১২ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

নির্বাচনের দিন ‘পোল ভোট’ করবে তৃণমূল, নয়া দাওয়াই অনুব্রতর

Published by: Subhamay Mandal |    Posted: April 7, 2019 8:29 pm|    Updated: April 7, 2019 8:29 pm

An Images

নন্দন দত্ত, সিউড়ি: ভোটের দিনে ‘পোল ভোট’ করবে তৃণমূল। সেজন্য ভোটের প্রিসাইডিং অফিসারদের কাছে তার সুযোগ করে দেওয়ার আবেদন জানালেন তৃণমূল জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল। রবিবার সিউড়িতে পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূল শিক্ষক সমিতির কর্মী সম্মেলন ছিল। সেখানেই শিক্ষকদের কাছে অনুরোধ করেন অনুব্রত। তবে ‘পোল ভোট’ বলতে তিনি ছাপ্পা বলতে চাইলেন কিনা সে নিয়ে কোনও খোলসা করেননি। তিনি জানান, যাঁরা ভোট করে তাঁরা পোল ভোটের মানে জানে।

সিউড়ি ইন্ডোর স্টেডিয়ামে সারা জেলার সমস্ত শিক্ষক শিক্ষিকাদের নিয়ে হল ভরতি কর্মী সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। অনুব্রত মণ্ডল তাঁর বক্তব্য রাখতে গিয়ে বলেন, এবারের ভোটের অনেক গুরুত্ব আছে। অনেক মানে আছে। তাই প্রত্যেক শিক্ষক-শিক্ষিকাকে গুরুত্ব দিয়ে ভোটটা করে দিতে হবে। তিনি বলেন, ‘যে যেখানে যাবেন স্থানীয় ব্লক সভাপতির ফোন নম্বরটা সঙ্গে রাখবেন। যদি কোনও অসুবিধা হয় তাহলে তিনি দেখে দেবেন। যদি কোনও অসুবিধা হয় আমাকে ধরবেন। কিন্তু একটা অনুরোধ করব যারা প্রিসাইডিং থাকবেন, আমরা কিন্তু পোল ভোটটা করে নেব। আমাদের একটু সুযোগ দেবেন। এটা জোড় হাত করে বলছি।’

যদিও পোল ভোট বলতে তিনি কি বলতে চাইছেন তা স্পষ্ট করেননি। তবে তিনি বলেন, ‘যারা বোঝার তাঁরা বুঝে গিয়েছে। রাত্রে লাইনে ৫০-৬০টা ভোটার দাঁড়িয়ে আছে। তাঁদের ভোটটাও যেন নিয়ে নেয়। এই রকম আর কি।’ তবে ভোট কর্মীদের ব্লক সভাপতির নম্বর নিতে বলা কেন। তারা কি রাজনৈতিক কর্মী? সে প্রশ্নের উত্তরে অনুব্রত বলেন, ভোট কর্মীদের কোনও অসুবিধা হলে তা দেখে দেবে সরকার। এর পরেও কেউ খাবার পেল না। অন্য কিছু অসুবিধা হল সেগুলো ব্লক প্রেসিডেন্ট দেখে দেবে। সন্ধ্যেয় ভোট কর্মীরা বুথে গেলে তৃণমূল কর্মীরা তাদের ধুপকাঠি জ্বালিয়ে বরণ করে নেবে। তবে অন্যান্য জেলার মতন আধা সামরিক বাহিনী না গেলে শিক্ষকরা বিক্ষোভ দেখাবে কিনা। সে প্রশ্নে অনুব্রতবাবু বলেন, এখানে শিক্ষক সংগঠন মজবুত। কে পুলিশ গেল, কে আধাসামরিক বাহিনী গেল, তাতে কিছু যায় আসে না। শিক্ষকেরা সবাই যাবে। তিনি আশ্বস্ত করেন, ভোটে কোথাও কোনও দাঙ্গা হবে না, বোমা পড়বে না, ঝামেলা হবে না। গত লোকসভা নির্বাচন নিশ্চিন্তে করিয়ে জেলাশাসক পুরস্কার পেয়েছিলেন। এবারও সেই পুরস্কার তিনি পাবেন। তবে এদিন একইমঞ্চে সরকারি আইনজীবী মলয় মুখোপাধ্যায় ও সাসপেন্ড হওয়া শিক্ষক উজ্জ্বল কাদেরিকে দেখা যায়।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement