৫ ভাদ্র  ১৪২৬  শুক্রবার ২৩ আগস্ট ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

রঞ্জন মহাপাত্র ও সুব্রত যশ:  নদিয়ার রানাঘাট কলেজ, পশ্চিম মেদিনীপুরের ঘাটালের কলেজের পর এবার পূর্ব মেদিনীপুরের পালপাড়া কলেজ। টিএমসিপি-এবিভিপি সংঘর্ষে ফের রণক্ষেত্রের চেহারা নিল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। কলেজ চত্বরে দু’পক্ষের মধ্যে চলল লাঠালাঠি। ঘটনায় এবিভিপির চারজন সমর্থক আহত হয়েছেন বলে জানা গিয়েছে। এদিকে আবার পতাকা লাগানো নিয়ে হুগলির গোঘাট কলেজেও সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন শাসক ও বিরোধী দলের ছাত্র সংগঠনের সদস্যরা।

[আরও পড়ুন: স্কুলে ছাত্রীদের সঙ্গে অশালীন আচরণ, শিক্ষককে অর্ধনগ্ন করে পেটালেন অভিভাবকরা]

লোকসভা ভোটে এ রাজ্যে অভাবনীয় ফল করেছে গেরুয়া শিবির। আর এবার শিক্ষাক্ষেত্রেও নিজেদের সংগঠন মজবুত করতে চাইছে বিজেপি সমর্থিত ছাত্র সংগঠন এবিভিপি। ছাত্র সংসদ নির্বাচনের দাবিতে ডেপুটেশন দেওয়াকে কেন্দ্র করে অশান্তি ছড়াচ্ছে রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে। বুধবার সকালে পূর্ব মেদিনীপুরের পটাশপুরের পালপাড়া কলেজের অধ্যক্ষের কাছে ডেপুটেশন দিতে গিয়েছিলেন এবিভিপি সমর্থকরা। কিন্তু সংগঠনের সদস্যরা যখন কলেজে ঢুকতে যান, তখন টিএমসিপি-র সদস্যরা তাঁদের বাধা দেন বলে অভিযোগ। এরপরই দু’পক্ষের মধ্যে তীব্র বাদানুবাদ শুরু হয়ে যায়। ক্রমে তা সংঘর্ষের আকার নেয়। একসময়ে পালপাড়া কলেজের গেটের বাইরে রীতিমতো লাঠি নিয়ে এক অপরের উপর চড়াও হন টিএমসিপি ও এবিভিপি সমর্থকরা। রাস্তার উপর লাঠালাঠি চলে বেশ কিছুক্ষণ। শেষপর্যন্ত পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। সংঘর্ষে চারজন এবিভিপি সমর্থক আহত হয়েছেন বলে জানা গিয়েছে।

এদিকে কলেজ চত্বরে পতাকা লাগানোকে কেন্দ্র করে বুধবার উত্তেজনা ছড়ায় হুগলির গোঘাট কলেজেও। সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন টিএমসিপি ও এবিভিপি সমর্থকরা। সংঘর্ষে বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ মৃদু লাঠিচার্জও করে বলে অভিযোগ। এর আগে টিএমসিপি ও এবিভিপি-র সংঘর্ষে রণক্ষেত্রের চেহারা নিয়েছিল নদিয়ার রানাঘাট কলেজ ও পশ্চিম মেদিনীরপুরের ঘাটাল কলেজ। ঘাটাল কলেজে মার খেয়েছিলেন তৃণমূল পরিচালিত ছাত্র সংসদের সাধারণ সম্পাদক ও স্থায়ী বিধায়কের ছেলে তুফান দলুই।

দেখুন ভিডিও:

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং