৭ ভাদ্র  ১৪২৬  রবিবার ২৫ আগস্ট ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

শংকরকুমার রায়, রায়গঞ্জ: গভীর রাতে ঘুমন্ত অবস্থায় তৃণমূল কংগ্রেসের এক পঞ্চায়েত সদস্যকে গুলি করে চম্পট দিল দুষ্কৃতীরা। আহত অবস্থায় তিনি ভরতি হাসপাতালে। ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে উত্তর দিনাজপুরের গোখালপোখরে। 

[আরও পড়ুন: তৃণমূলকর্মীদের বাস আটকানোর চেষ্টা, বিজেপির তাণ্ডবে রণক্ষেত্র আরামবাগ]

গোয়ালপোখরের মহুয়া গ্রাম পঞ্চায়েতের তৃণমূল সদস্য ভুট্টু আলম। স্থানীয় মোতিলাল গ্রামে থাকেন তিনি। শনিরার রাতে যখন নিজের বাড়িতে ঘুমোচ্ছিলেন ভুট্টু, তখন জানালা দিয়ে তাঁকে লক্ষ্য করে দুষ্কৃতীরা গুলি চালায় বলে অভিযোগ। গুলির শব্দে ছুটে আসেন আশেপাশের লোকজন। কিন্তু ততক্ষণে দুষ্কৃতীরা পালিয়েছে। বাড়িতে ঢুকে স্থানীয় বাসিন্দারা দেখেন, নিজের ঘরে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে রয়েছেন তৃণমূল কংগ্রেসের ওই পঞ্চায়েত সদস্য। তড়িঘড়ি তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয় ইসলামপুর মহকুমা হাসপাতালে। ঘটনার খবর চাউর হতেই রীতিমতো চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে গোয়ালপোখরের মোতিলাল গ্রামে। রাতেই ঘটনাস্থলে যায় গোয়ালপোখর থানার পুলিশ। 

আক্রান্ত তৃণমূল নেতা ভুট্টু আলমের দাবি, গত পঞ্চায়েত ভোটের সময়ে তাঁর তুতো ভাইকে গুলি করে খুন করে দুষ্কৃতীরা। ঘটনায় আবদুল হাসিব আশরাফির বিরুদ্ধে মামলা চলছে। কিন্তু, খোদ শাসকদলের পঞ্চায়েত সদস্যকে মামলা প্রত্যাহারের জন্য চাপ দেওয়া হচ্ছিল বলে অভিযোগ। প্রাথমিক তদন্তে পুলিশের অনুমান, মামলা প্রত্যাহারে রাজি না হওয়ায় ভুট্টু আলমকে খুনের চেষ্টা করা হয়। উত্তর দিনাজপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কার্তিক মণ্ডলের দাবি, হামলাকারীদের চিহ্নিত করা গিয়েছে। তাদের সন্ধানে তল্লাশি চলছে। গোয়ালপোখরের বিধায়ক গোলাম রব্বানি পঞ্চায়েত ও গ্রামোন্নয়ন দপ্তরের প্রতিমন্ত্রী। তিনি বলেন, “আমি খবর পেয়েছি আমাদের এক পঞ্চায়েত সদস্যকে গুলি করা হয়েছে। কিন্তু আমি কলকাতায় আছি। সোমবার গোয়ালপোখর পৌঁছে আক্রান্তের সঙ্গে দেখা করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। পুলিশকে বলেছি দুষ্কৃতীকে গ্রেপ্তার করতে।”   

[আরও পড়ুন: টাকার লোভে স্কুলে অবৈধভাবে গাছ কাটার অভিযোগ, কাঠগড়ায় প্রধান শিক্ষিকা]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং