১৯  মাঘ  ১৪২৯  রবিবার ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ 

READ IN APP

Advertisement

এবছর পলাশহীন বসন্তোৎসব বিশ্বভারতীতে, শোভাযাত্রায় থাকবেন না উপাচার্যও

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: February 14, 2018 1:07 pm|    Updated: February 14, 2018 1:07 pm

Veering off tradition Visva Bharati University bans ‘Palash’ in Basanta Utsab

ভাস্কর মুখোপাধ্যায়, বীরভূম: শান্তিনিকেতন এবছর পলাশহীন বসন্তোৎসব। শোভাযাত্রায় তো বটেই, বসন্তোৎসব চলাকালীন বিশ্বভারতী চত্বরেও পলাশ বিক্রি নিষিদ্ধ বলে ঘোষণা করেছেন বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। এমনকী, যাঁরা বাইরে থেকে বসন্তোৎসব দেখতে আসবেন, তাঁদেরও পলাশ ফুল ব্যবহার না করার অনুরোধ করা হয়েছে। শুধু তাই নয়, দীর্ঘদিনের রীতি ভেঙে এবার প্রথম  বসন্তোৎসবের শোভাযাত্রায় অংশ নেবেন না বিশ্বভারতীর উপাচার্যও।

[প্যারিসে বাঙালি বিজ্ঞানীর রহস্যমৃত্যু, দেহ ফেরাতে মুখ্যমন্ত্রীর দ্বারস্থ পরিবার]

বসন্তের আগমনে সেজে উঠছে বিশ্বভারতী। আর কয়েক দিন পরই বসন্তোৎসব। সকালে ছাতিমতলা ছেকে শোভাযাত্রা বের করেন বিশ্বভারতীর পড়ুয়ায়। ছাত্রীদের খোপায় থাকে পলাশফুল। শোভাযাত্রায় নেতৃত্ব দেন উপাচার্য স্বয়ং। রবীন্দ্রনাথের হাতে গড়া বিশ্ববিদ্যালয়ে বসন্তোৎসব দেখতে ভিড় করেন দেশি-বিদেশ পর্যটক। কিন্তু, এ বছর সেসব কিছু হবে না। বসন্তোৎসবে পলাশ ফুলের ব্যবহার সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ বলে ঘোষণা করেছে বিশ্বভারতী কর্তৃপক্ষ। শোভাযাত্রায় অংশ নেবেন না উপাচার্যও। থাকবেন শুধুমাত্র পড়ুয়ারা।

মদের আসরে হাত-পা বেঁধে বান্ধবীকে যৌন নির্যাতন, চাঞ্চল্য সোনারপুরে]

মঙ্গলবার বসন্ত উৎসব নিয়ে জেলা প্রশাসন এবং পুলিশের সঙ্গে বৈঠকে বসেছিল বিশ্বভারতী কর্তৃপক্ষ। বৈঠকে হাজির ছিলেন ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য সবুজকলি সেন-সহ বিশ্বভারতীর পদস্থ আধিকারিকরা। বৈঠকের পর বিশ্বভারতীর ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য সবুজকলি সেন বলেন, এবছর শোভাযাত্রায় পলাশ ফুল ব্যবহার করতে পারবেন না পড়ুয়ারা। বিশ্ববিদ্যাল চত্বরেও পলাশ বিক্রি নিষিদ্ধ। এমনকী, বাইরে থেকে যাঁরা আসবেন, তাঁদেরও পলাশফুল ব্যবহার না করার অনুরোধ জানিয়েছেন ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য। বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে খবর, প্রতিবছরই বসন্তোৎসবে সময়ে পড়ুয়া ও দর্শনার্থীদের একাংশে অতি উৎসাহে বিশ্বভারতী চত্বরে পলাশ ফুল ও গাছের ব্যাপক ক্ষতি হয়। অনেকে আবার গাছ থেকে পলাশ ফল পেড়ে রীতিমতো পসরা সাজিয়ে বসেন। তাই এবছর বসন্তোৎসবে পলাশ ফুলের ব্যবহার নিষিদ্ধ ঘোষণা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিশ্বভারতী কর্তৃপক্ষ। ব্যবহার করা যাবে না প্লাস্টিকও। সকালে অনুষ্ঠানে শেষ হওয়ার পর সাড়ে বারোটা মধ্যেই বিশ্ববিদ্যালয় চত্বর খালি করে দেবেন নিরাপত্তারক্ষীরা। বসন্তোৎসবের দিন সকালে পড়ুয়াদের শোভাযাত্রা থাকবেন না উপাচার্যও। প্রতি বছরই রীতিমাফিক ছাতিমতলা থেকে উপাচার্যের নেতৃত্বেই এই শোভাযাত্রা শুরু হয়। বিশ্বভারতীর ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য সবুজকলি সেন জানিয়েছেন, দর্শনার্থীদের কথা ভেবেই এবছর শোভাযাত্রায় অংশ না নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি। পাশাপাশি, কার্ড বিতরণে বেনিয়ম রুখতে কড়া পদক্ষেপ করেছে বিশ্বভারতী।

[দীর্ঘতম প্রেমপত্র লিখে গিনেস বুকে নাম তুলতে চান বাংলার ‘মিস্টার ভ্যালেন্টাইন’]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে