৫ আশ্বিন  ১৪২৬  সোমবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

ধীমান রায়, কাটোয়া:  মেরামতি তো দুর অস্ত, দীর্ঘদিন ধরেই রাস্তায় মোরামও পড়েনি। এক হাঁটু কাদায় চলাফেলা করাই দায়। প্রতিবাদে গ্রামে ঢোকার রাস্তায় ধানের বীজ পুঁতে দিলেন স্থানীয় বাসিন্দারাই। তাঁদের সাফ কথা, বর্ষায় সময়ে রাস্তা দিয়ে তো যাতায়াত করা যায় না, তাহলে ধান চাষ করলে ক্ষতি কি! তাতে অন্তত গ্রামের মানুষের উপকার হবে। ঘটনাটি ঘটেছে পূর্ব বর্ধমানের ভাতারের কালীপাহাড়ি গ্রামে।

[আরও পড়ুন:  হাসপাতালের চিকিৎসক পুরুষ, বাড়িতেই সন্তান প্রসব মহিলাদের!]

ভাতারের নিত্যানন্দপুর পঞ্চায়েতের কালীপাহাড়ি গ্রাম। বলগোনা-গুসকরা রাজ্য সড়ক থেকে একটি রাস্তা চলে গিয়েছে কালীপাহাড়ির দিকে। কিন্তু দীর্ঘদিন মেরামতির অভাবে সেই রাস্তাটির বেহাল দশা। স্থানীয় বাসিন্দাদের দাবি,  প্রায় ১০-১২ বছর আগে রাস্তায় মোরাম পড়েছিল। তারপর থেকে আর রাস্তাটির সংস্কার করা হয়নি। বর্ষার সময়ে ওই রাস্তাটি এতটাই কর্দমাক্ত হয়ে যায় যে, চলাফেরা করাই যায় না। গ্রামবাসীদের দাবি, গ্রামে ঢোকার রাস্তাটি ঢালাই করে দেওয়ার জন্য বহুবার পঞ্চায়েতে দরবার করেছেন। কিন্তু লাভ হয়নি। এবারের বর্ষাতেও যথারীতি রাস্তার একই হাল। রবিবার সকালে গ্রামের মেঠো পথে ধানের বীজ পুঁতে প্রতিবাদ জানালেন কালীপাহাড়ি গ্রামের বাসিন্দারা। তাঁদের হুঁশিয়ারি, আগামী বছর বর্ষার আগে যদি রাস্তা মেরামতি না হয়, তাহলে ওই জায়গায় পুকুর খুঁড়বেন তাঁরা!

কিন্তু এতদিনেও রাস্তাটি ঢালাই করা গেল না কেন? স্থানীয় নিত্যানন্দপুর পঞ্চায়েতের উপ প্রধান জুলফিকার আলির সাফাই, ‘কালীপাহাড়ি গ্রামের রাস্তাটি সারাই করার টেন্ডার প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়ে গিয়েছে। কাজ শুরু হওয়ারও কথা ছিল। কিন্তু বৃষ্টির কারণে এখন বালি পাওয়া যাচ্ছে না, তাই কাজ শুরু করা যাচ্ছে না। বৃষ্টির কমলেই রাস্তা মেরামতি কাজ শুরু হয়ে যাবে।’

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং