BREAKING NEWS

২ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

অমানবিক! ঝড়ের রাতে ডাইনি অপবাদে সপরিবারে মহিলাকে ঘরছাড়া করল প্রতিবেশীরা

Published by: Tiyasha Sarkar |    Posted: July 23, 2020 9:49 am|    Updated: July 23, 2020 9:50 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ফের ডাইনি অপবাদ দিয়ে মহিলাকে সপরিবারে ঘরছাড়া করার ঘটনা ঘটল বাংলায়। মারধর করে গ্রাম থেকে বের কর দেওয়া হল বোলপুরের (Bolpur) সিয়ান-মুলুকের বাসিন্দা ওই পরিবারকে। ফলে ঝড়-বৃষ্টি মাথায় নিয়ে কার্যত রাস্তায় দিন কাটাতে হয় তাঁদের। তবে ইতিমধ্যেই গোটা বিষয়টি জানিয়ে পুলিশে অভিযোগ দায়ের করেছে নির্যাতিত ওই পরিবার।

জানা গিয়েছে, কিছুদিন ধরেই বোলপুর থানার সিয়ান-মুলুক গ্রাম পঞ্চায়েতের মণিকুণ্ডতলা গ্রামের বাসিন্দাদের রোগ লেগেই ছিল। মৃত্যুর ঘটনাও ঘটেছে। অদ্ভুতভাবে মৃত্যু হয়েছে বেশ কিছু পশুরও। এতে আচমকাই গ্রামবাসীদের মনে হতে শুরু করে যে, এলাকার এক আদিবাসী পরিবারই এর পিছনে রয়েছে, কারণ তাঁরা নিয়মিত পুজো-অর্চনা করে। এই সন্দেহ থেকেই এলাকায় ওঝা আনেন স্থানীয়রা। তিনি এসে ওই পরিবারের এক সদস্যকে ‘ডাইনি’ অপবাদ দেন। এতেই ক্ষোভের আগুন জ্বলে ওঠে এলাকাবাসীদের মনে। ওই পরিবারের সদস্যদের কী করা হবে, তা স্থির করতে গ্রামে আলোচনা সভা বসানো হয়। সেখানেই তাঁদের গ্রাম ছাড়ার নিদান দেওয়া হয়। কিন্তু অকারণে মোড়লদের এই ‘আবদার’ মানতে রাজি হননি ওই পরিবারের সদস্যরা। ফলত প্রতিবাদ করেছিল তাঁরা। এরপরই গ্রামবাসীরা একত্রিত হয়ে চড়াও হয় ওই পরিবারের ১২ জন সদস্যের উপর। বেধড়ক মারধর করে গ্রাম ছাডতে বাধ্য করা হয় তাঁদের।

[আরও পড়ুন: লালগড় থানা থেকে অস্ত্র চুরি করে মাওবাদীদের পাচার, বিহার থেকে গ্রেপ্তার লিংকম্যান]

সেই থেকে দীর্ঘক্ষণ রাস্তায় ছিল তাঁরা। পরে প্রবল বৃষ্টিতে তৃণমূলের কার্যালয়ে আশ্রয় নেন। পরে বুধবার সকালে বোলপুর থানায় অভিযোগও দায়ের করে ওই পরিবার। ঘরছাড়া এক যুবকের কথায়, “গ্রামে একের পর এক মানুষ মরছিল। তাই ডাইনি খুঁজতে সকলে ওঝার কাছে গিয়েছিল। সে বলেছে আমার মা ডাইনি! তাই আমাদের গ্রাম থেকে তাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। কতদিনে মাথার উপর ছাদ পাব, আদৌ পাব কি না জানি না। তবে পুলিশে অভিযোগ জানিয়েছি।” জেলা পুলিশ সুপারের কথায়, ঘটনা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। দ্রুতই ঘরে ফেরানো হবে ওই পরিবারকে।

[আরও পড়ুন: অমানবিক! বৃদ্ধের মৃত্যুতেও এগিয়ে এল না কেউ, দিনভর দেহ আগলে বসে রইল ছেলে]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement