১২ আশ্বিন  ১৪২৭  বুধবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

কুপ্রস্তাবে না, অ্যাসিড হামলার শিকার ছাত্রী

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: October 11, 2017 6:07 am|    Updated: September 12, 2020 12:14 pm

An Images

স্টাফ রিপোর্টার: কুপ্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় এক ছাত্রীকে লক্ষ্য করে অ্যাসিড হামলা করার অভিযোগ উঠল দুই ভাইয়ের বিরুদ্ধে। সোমবার রাতে বাড়ির ভিতর ঘুমন্ত অবস্থায় তারাপীঠের খামেড্ডা গ্রামে এক কলেজ ছাত্রীর উপর অ্যাসিড ছুড়ে পালায় দুষ্কৃতীরা। ছাত্রীকে রাতেই রামপুরহাট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। একইসঙ্গে হামলার জন্য গ্রামের আনোয়ার আলি ও তার ভাই জিন্না আলির নামে তারাপীঠ থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়। কিন্তু মঙ্গলবার দুপুর পর্যন্ত অভিযুক্তদের গ্রেফতার করতে না পারায় গ্রামবাসীরা তারাপীঠ থানায় বিক্ষোভ দেখায়। পুলিশের নিষ্ক্রিয়তার বিরুদ্ধে তারা সরব হয়। যদিও পুলিশের তরফে দাবি করা হয় অভিযুক্তদের খোঁজে রাতেই তাদের বাড়িতে তল্লাশি চালানো হয়। কিন্তু ঘটনার পর থেকেই দুই ভাই পলাতক।

[তারাপীঠ মহাশ্মশানের পবিত্রতা নষ্টের অভিযোগ সাধুদের, প্রশাসনের হস্তক্ষেপ দাবি]

খামেড্ডা গ্রাম থেকে রামপুরহাট কলেজে যায় কলা বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্রীটি। ছাত্রীটি ও তার পরিবারের অভিযোগ গত তিন বছর থেকে ক্রমাগত জ্বালাতন করত মধ্যবয়স্ক আনোয়ার। ছাত্রীটিকে নানাভাবে উত্ত্যক্ত করত। যাওয়া আসার পথে মোবাইলে নানা অশ্লীল ছবি থেকে নানা অঙ্গভঙ্গি করত। ছাত্রীটির বাবা শেখ সেলিম বলেন, আনোয়ার বিবাহিত। আমার মেয়ের বয়সি তার মেয়ে আছে। গ্রামবাসীদের নিয়ে ওর বাড়িতে গিয়ে কয়েকদিন আগেই তাকে সতর্ক করা হয়। তারপরেও আনোয়ারের কোনও স্বভাবের পরিবর্তন হয়নি। রবিবার সন্ধ্যায় গ্রামে ফেরার পথে ছাত্রীটিকে একা পেয়ে তাকে তুলে নিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা করে আনোয়ার। কিন্তু ছাত্রীটির চিৎকারে লোক জড়ো হয়ে যাওয়ায় সে যাত্রায় বেঁচে যায় ছাত্রীটি।

ছাত্রীটির দাদা নয়ন শেখ জানান, আমরা সেই রাতেই বাড়িতে গিয়ে আনোয়ারকে চূড়ান্তভাবে শাসিয়ে আসি। তারই প্রতিশোধ নিতে সোমবার রাত্রে জানালা দিয়ে বোনের মুখে অ্যাসিড ছুড়ে দিয়ে পালায়। পরিবার সূত্রে জানা যায়, সোমবার রাতে বাড়ির একতলায় বোনকে নিয়ে মশারি খাটিয়ে শুয়ে ছিল ছাত্রীটি। রাত এগারোটা নাগাদ জানালা দিয়ে ছাত্রীটিকে লক্ষ্য করে অ্যাসিড ছুঁড়ে দেয় দুষ্কৃতী। তাতে ছাত্রীটির শরীরের বাঁদিকের বেশ কিছুটা অংশ ঝলসে যায়। মুখে অ্যাসিডের ছিটেফোঁটা লাগে। ছাত্রীটি জানায় শরীরে জ্বালা করতেই আমি চিৎকার করে উঠি। রাতেই তাকে রামপুরহাট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পরিবারের দাবি, দাদাকে সাহায্যের জন্য আসে ভাই জিন্নার আলি। তাই দুই ভাই অ্যাসিড হামলায় অভিযুক্ত।

[মুখ্যমন্ত্রীর মূল্যায়নে ‘ফেল’ ঝাড়গ্রাম জেলা প্রশাসন, ভর্ৎসনা মন্ত্রী চূড়ামণিকে]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement