২ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

‘ব্রিটিশ-মোঘল আমলেও রাম নবমী করেছি, লকডাউনেও করব’, চ্যালেঞ্জ দিলীপের

Published by: Tiyasha Sarkar |    Posted: August 4, 2020 2:28 pm|    Updated: August 4, 2020 2:32 pm

An Images

ব্রতদীপ ভট্টাচার্য, বারাকপুর: রাম মন্দিরের (Ram Temple) ভূমিপুজোর দিন বাংলার লকডাউন নিয়ে ইতিমধ্যেই বিস্তর জলঘোলা হয়েছে। বিজেপির তরফে বারবার আবেদন করা হয়েছে লকডাউনের দিন পরিবর্তনের। কিন্তু তাতে সাড়া দেননি মুখ্যমন্ত্রী। বিষয়টা গেরুয়া শিবির যে ভালভাবে নেয়নি, মঙ্গলবার পলতার চা-চক্র থেকে তা বোঝালেন রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ। চ্যালেঞ্জ ছুড়ে বললেন, “ব্রিটিশ, মোঘল আমলেও রাম নবমী পালন করেছি, লকডাউনেও করব।”

করোনা (Corona Virus) সংক্রমণ রুখতে সপ্তাহে দু’দিন গোটা রাজ্য লকডাউন (Lockdown) জারির সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)। সেই মতো আগস্টের কোন কোন দিন লকডাউন থাকবে, তার তালিকাও প্রকাশ করা হয়েছিল সরকারের তরফে। সেখানে ৫ তারিখ অর্থাৎ রাম মন্দিরের ভূমিপুজোর দিন ছিল লকডাউনের আওতায়। প্রথম থেকে যা পরিবর্তনের আবেদন করেছিল বিজেপি। কিন্তু প্রশাসনের তরফে বিষয়টিকে গুরুত্ব দেওয়া হয়নি। ফলে সোমবার লকডাউনের বেশ কয়েকটি দিন পরিবর্তন করা হলেও ৫ আগস্ট এখনও সম্পূর্ণ লকডাউনের আওতায়। এপ্রসঙ্গেই এদিন ক্ষোভ প্রকাশ করেন বিজেপি সাংসদ দিলীপ ঘোষ (Dilip Ghosh)। বলেন, “শাসকদল সব কিছুতেই রাজনীতি করছে। তোষণের রাজনীতি। পরিকল্পনা করে হিন্দু সমাজকে রাম মন্দির প্রতিষ্ঠার দিন উদযাপন করতে দেওয়া হচ্ছে না।” রাজ্যের লকডাউন প্রসঙ্গে দিলীপ বলেন, “বিষয়টি সম্পূর্ণ দিশাহীন, উদ্দেশ্যহীন। সেই কারণেই বারবার দিন বদল হচ্ছে।” এরপরই দৃপ্ত কন্ঠে রাজ্য সভাপতি বলেন, “ব্রিটিশ, মোঘল আমলেও রাম নবমী পালন করেছি, লকডাউনেও করব। কেউ আটকাতে পারবে না।”

[আরও পড়ুন: চিত্তরঞ্জন রেল কারখানা থেকে চুরি যন্ত্রাংশ, গ্রেপ্তার ৭ আরপিএফ কর্মী]

কিন্তু আগামীকাল রাজ্যে কমপ্লিট লকডাউন। তবে কী ঘরেই থাকবেন কর্মীরা? যদি বেরিয়ে পুলিশের হাতে আটক হতে হয়, সেক্ষেত্রেই বা দলের ভূমিকা কী হবে? এ প্রশ্নের উত্তর দিলীপ ঘোষ জানান, পরিস্থিতি বুঝে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এরপর ব্যাঙ্গাত্মক সুরেই সাংসদ অর্জুন সিংয়ের নাম করে তিনি বলেন, “এই যে অর্জুন দার নামেই ৯৩টি কেস চলছে। পুলিশ পারলেই কেস দিচ্ছে। আমি তো বলেছি, যেদিন ১০০ টা কেস হবে সেদিন একশো পদ্মের মালা পড়াব অর্জুন দাকে”। পাশাপাশি, কর্মীদের দলত্যাগ প্রসঙ্গেও তৃণমূলকে নিয়ে বিদ্রুপ করেন সাংসদ। বলেন, “মাথা খারাপ না হলে কেউ তৃণমূলে যায় না।! আর বিজেপির কারও মাথা খারাপ নয়, কেউ দল ছাড়বে না।” মন্তব্যেই স্পষ্ট যে, আত্মবিশ্বাসে ভরপুর রাজ্য বিজেপির সভাপতি।

দেখুন ভিডিও: 

[আরও পড়ুন: ছুটি নিয়ে বচসার জের, গুলি চালিয়ে ২ সহকর্মীকে হত্যায় অভিযুক্ত বিএসএফ জওয়ান]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement