৭ ভাদ্র  ১৪২৬  রবিবার ২৫ আগস্ট ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সুব্রত যশ, আরামবাগ: সপ্তাহ খানেক আগে প্রেমিকের সঙ্গে উধাও হয়ে গিয়েছিলেন। বুঝিয়েসুঝিয়ে বাড়ি ফিরিয়ে এনেছিলেন স্বামী। শেষে কিনা তাঁকেই জীবন্ত পুড়ে মরতে হল। ঘটনায় মৃতের স্ত্রী ও তার প্রেমিককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। হুগলির আরামবাগের এই ঘটনা ফের ফিরিয়ে আনল মনুয়াকাণ্ডের স্মৃতি।

[আরও পড়ুন: ছেলেধরা আতঙ্ক, এবার জোড়া গণপিটুনির ঘটনা ঘটল আলিপুরদুয়ারে]

মৃতের নাম লক্ষ্মী প্রামাণিক। বাড়ি আরামবাগ শহরের ডহরকুন্ডু এলাকায়। স্ত্রী ময়না, দুই সন্তান ও বৃদ্ধা মা-কে নিয়ে ভরা সংসার। স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন, চেন্নাইয়ে সোনার কারিগর হিসেবে কাজ করতেন লক্ষ্মী। কাজের সুবাদে পরিবার থেকে দূরে থাকতে হত তাঁকে। স্থানীয় এক যুবকের সঙ্গে বিবাহ-বর্হিভূত সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন লক্ষ্মীর স্ত্রী ময়না। সপ্তাহ খানেক আগে প্রেমিকের সঙ্গে শ্বশুরবাড়ি থেকে পালিয়ে যান ওই গৃহবধূ। খবর পেয়ে তড়িঘড়ি আরামবাগে ফিরে আসেন লক্ষ্মী। বুঝিয়েসুঝিয়ে স্ত্রীকেও বাড়িতে ফিরিয়ে এনেছিলেন। ভেবেছিলেন, অতীত ভুলে ফের সুখে সংসার করবেন৷কিন্তু, তা তো হলই না, উলটে প্রাণ দিয়ে তার মাশুল দিতে হল লক্ষ্মী প্রামাণিককে।

সোমবার সকালে বাড়ি থেকে খাটে বাঁধা অবস্থায় লক্ষ্মী প্রামাণিকের অগ্নিদগ্ধ দেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তদন্তকারীদের বক্তব্য, রাতে খাবারের সঙ্গে স্বামীকে ঘুমের ওষুধ খাইয়েছিলেন স্ত্রী ময়না। ঘুমিয়ে পড়ার পর তাঁকে খাটের সঙ্গে বেঁধে আগুন লাগিয়ে দেন ওই গৃহবধূ ও তার প্রেমিক। জীবন্ত পুড়িয়ে মারা যান লক্ষ্মী প্রামাণিক। অভিযুক্ত ময়না ও তার প্রেমিক ঝন্টু দলুইকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এদিকে এই ঘটনার শোরগোল পড়েছে আরামবাগে। নৃশংস এই ঘটনার দোষীদের কঠোর শাস্তির দাবি করেছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

কয়েক দিন আগে পূর্ব বর্ধমানের কাটোয়ায় স্ত্রীর বিবাহ-বহির্ভূত সম্পর্কের কারণে খুন হতে হয় এক ব্যক্তিকে। প্রেমিকের সঙ্গে ষড়যন্ত্র করে প্রথমে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে ও পরে শ্বাসরোধ করে স্বামীকে খুন করে এক গৃহবধূ। দু’জনকেই গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

[ আরও পড়ুন: নিয়ম মেনে অন্ত্যেষ্টি ঝাড়গ্রামের তিন হাতির, মুণ্ডিত মস্তকে কাজ সারলেন ৩ গ্রামবাসী]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং