৩১ শ্রাবণ  ১৪২৬  শনিবার ১৭ আগস্ট ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: হাসনাবাদ লোকালের পর এবার বালির জেটিয়া ঘাট। বৃহস্পতিবার সকালে বালি ব্রিজের নিচে জেটিয়া ঘাটে গঙ্গায় একটি ট্রলি ব্যাগ দেখতে পান স্থানীয়েরা। খুলতেই দেখা যায় সেটির ভিতর রয়েছে এক মহিলার কাটা মুন্ডু। খবর পেয়ে বালি থানার পুলিশ গিয়ে কালো রঙের ট্রলি ব্যাগটি উদ্ধার করে।

পুলিশ জানায়, ভিতরে ওই মহিলার দেহ টুকরো টুকরো করে কেটে ভরা রয়েছে। ওই ব্যাগের পাশেই মিলেছে আরেকটি কাপড়ের ব্যাগ। তা থেকে ৫টি ধারালো অস্ত্র মিলেছে। যার মধ্যে ৩টি চপার, একটি আনাজ কাটার ছোট ছুরি ও একটি মাঝারি ছুরি। এছাড়াও মিলেছে কাদা মাখা নীল জিনসের প্যান্ট, কালো জামা ও একটি গ্লাভস। মহিলাকে নৃশংসভাবে খুন করে ব্যাগে ভরে এনে ওই ঘাটে ফেলা হয়েছিল না গঙ্গায় ভেসে এসেছিল তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। কিন্তু প্রশ্ন হল দেহ ভরা ব্যাগটি ভেসে এলেও ছুরি ভরা কাপড়ের ব্যাগটি কীভাবে ভেসে এল। সেটি তো ডুবে যাওয়ার কথা। তাহলে কী দেহ ভরা ব্যাগ ও ছুরির ব্যাগটি কেউ বালি ব্রিজ থেকে নিচে ফেলেছিল, তাতেই কী কাদায় আটকে গিয়েছিল?বালি ব্রিজে কোনও সিসি ক্যামেরা নেই। এমনকী যে ঘাটে ব্যাগ মিলেছে সেখানেও কোনও ক্যামেরা নেই। ফলে কোনও ফুটেজও পাচ্ছে না পুলিশ।

কিছুদিন আগে ডাউন হাসনাবাদ-প্রিন্সেপঘাট লোকালের ভেন্ডারের ভিতর কাগজে ঠাসা একটি ঝুড়ির ভিতরে উদ্ধার হয় লালা চৌধুরি নামে এক যুবকের কাটা মুন্ডু। বারাসতের জিআরপি সেই ঝুড়িটি উদ্ধার করে। অন্যদিকে, কাঁকিনাড়া স্টেশনের কাছে ২৯ নম্বর রেলগেট সংলগ্ন এলাকায় লাইনপাড়ের জঙ্গল থেকে উদ্ধার হয় লালার দেহ। লালার বাবা বিরজু চৌধুরি গিয়ে দেহ ও মুন্ডু শনাক্ত করেন। পুলিশ জানতে পারে পেশায় ফুচকা বিক্রিতা ছিলেন লালা। বালির ঘটনাতেও সেরকমই আভাস পাচ্ছেন তদন্তকারীরা। 

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং