৫ ফাল্গুন  ১৪২৬  মঙ্গলবার ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: কংগ্রেসমুক্ত ভারত গড়ার ডাক দিয়েছিল বিজেপি। কিন্তু সেই বার্তাই যে দিল্লি জয়ের পথে কাঁটা হয়ে দাঁড়াবে তা বোধহয় স্বপ্নেও ভাবতে পারেননি গেরুয়া শিবিরের নেতারা। পরিসংখ্যান আগেই বলেছিল, দিল্লিতে বিজেপির হারের পিছনে অন্যতম কারণ কংগ্রেসের দুর্বল লড়াই। এবার সেকথা প্রকাশ্যে স্বীকার করে নিলেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী প্রকাশ জাভড়েকর। তাঁর কথায়, “দিল্লির রাজনীতি থেকে কংগ্রেস আচমকাই গায়েব হয়ে গিয়েছে। আর এটাই দিল্লির বিধানসভায় বিজেপির হারের অন্যতম কারণ।” বিজেপি শীর্ষস্তরের নেতার এহেন স্বীকারোক্তিতে কার্যত অস্বস্তিতে গেরুয়া শিবির।

কী বলেছেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী প্রকাশ জাভড়েকর? শুক্রবার এক সাংবাদিক বৈঠকে তিনি বলেন, “দিল্লি নির্বাচনে বিজেপির হারের অন্যতম কারণ কংগ্রেসের দুর্বলতা। এটা ঠিক যে মানুষ কংগ্রেসকে বিদায় দিয়েছে। কিন্তু তাদের সেই ভোট পেয়েছে আম আদমী পার্টি।” দেখা গিয়েছে, লোকসভা নির্বাচনে দিল্লিতে কংগ্রেস পেয়েছিল ২৬ শতাংশ ভোট, সেখানে বিধানসভা নির্বাচনে তাদের ঝুলিতে এসেছে মাত্র ৪ শতাংশ।

[আরও পড়ুন : কাশ্মীরে নিষেধাজ্ঞা তুলুক ভারত, আরজি ইউরোপীয় ইউনিয়নের]

প্রকাশ জাভড়েকরের কথায়, “কংগ্রেস ময়দানে না থাকায় বিজেপির সঙ্গে আপের সরাসরি লড়াই হয়েছে। আমরা অঙ্ক কযে দেখেছিলাম, আপ পাবে ৪৮ শতাংশ ভোট আর আমরা পাব ৪২ শতাংশ ভোট। কিন্তু দুই ক্ষেত্রেই ৩ শতাংশ ভোটে পার্থক্য হয়েছে।কংগ্রেস ভোটব্যাংক সরাসরি আপে চলে গিয়েছে।” এবার দিল্লি বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি পেয়েছে ৩৯ শতাংশ আর আপ পেয়েছে ৫২ শতাংশ ভোট। হিসেব কষতে যে দুঁদে রাজনীতিকদের কিছুটা ভুল হয়েছিল তা কার্যত এদিন স্বীকার করে নেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী। একই সঙ্গে সাংবাদিক বৈঠকে মন্ত্রী দাবি করেন, তিনি অরবিন্দ কেজরিওয়ালকে কখনওই সন্ত্রাসবাদি বলেননি। তাঁর মন্তব্যের ভুল ব্যাখা করা হয়েছে।

[আরও পড়ুন : CAA বিরোধী আন্দোলনের জের! এবার জাতীয় নিরাপত্তা আইনে গ্রেপ্তার কাফিল খান]

বিজেপি বরাবরই কংগ্রেসমুক্ত ভারত গড়ার বার্তা দিয়েছে। এবার তাঁদের সেই ‘স্বপ্ন’পূরণও হয়েছে কিছুটা। দিল্লি বিধানসভায় কংগ্রেস একটি আসনও পায়নি। ভোট শতাংশও তলানিতে এসে ঠেকেছে। তাই  বিজেপির সেই বার্তা যে এভাবে বুমেরাং হবে, তা কল্পনাতীত ছিল। 

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং