৯ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

জাহ্নবীর বোনকে ধর্ষণের হুমকি, কড়া জবাব দাদা অর্জুন কাপুরের

Published by: Sulaya Singha |    Posted: November 28, 2018 1:44 pm|    Updated: November 28, 2018 1:44 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ধর্ষণের হুমকি দেওয়া হল জাহ্নবী কাপুরের বোন অনশুলাকে। অদ্ভুত একটি ‘ভুল’ করায় নেটিজেনদের কাছে চূড়ান্ত হেনস্তা হতে হল সেলেবকন্যাকে।

[গা ছমছমে রাতে একা নারগিস, কী হল অভিনেত্রীর?]

ঘটনার সূত্রপাত, পরিচালক করণ জোহরের রিয়ালিটি চ্যাট শো ‘কফি উইথ করণ’-এর সেটে। শোয়ের শেষ পর্বে অতিথি হিসেবে হাজির হয়েছিলেন অভিনেতা অর্জুন কাপুর এবং জাহ্নবী কাপুর। কিংবদন্তি অভিনেত্রী শ্রীদেবীর প্রয়াণের পর আরও গাঢ় হয়েছে অর্জুন-জাহ্নবীর ভাই-বোনের সম্পর্ক। তাঁদের জীবনের নানা কথা করণকে মন খুলে জানান দুজনই। সেই শোয়েই করণ একটি ছোট্ট গেম খেলেন। কী গেম? অর্জুন এবং জাহ্নবীর পরিবারের কোনও এক সদস্যকে আচমকা ডাকা হবে এই শোয়ে। এবং তাঁকে এসে বলতে হবে, ‘কেমন আছ করণ’। দুজনের মধ্যে যে এই কাজটি পরিবারের সদস্যকে দিয়ে আগে করাতে পারবেন তিনিই গেমটি জিতে যাবেন। করণের গেম বেশ মনে ধরে জাহ্নবীর। তিনি তড়িঘড়ি ডেকে নেন বোন অনশুলাকে। তাঁকে গেমটি বুঝিয়েও দেন। দিদির কথা মতোই কাজ করতে প্রস্তুত ছিলেন অনশুলাও। কিন্তু তখনই গেম জিততে বোনকে আটকে দেন অর্জুন। মজার ছলে অনশুলাকে বলেন, “বোন, তুমি জাহ্নবীর কথা মেনে এমনটা করলে কিন্তু দাদা আর বাড়ি ফিরবে না। তাকে বাড়িতে দেখতে চাইলে তুমি এ কথা বলতে না।” ব্যস, এতেই ধন্দে পড়ে যান অনশুলা। কী করবেন বুঝতে না পেরে শেষমেশ নীরব থাকারই সিদ্ধান্ত নেন তিনি। আর এতেই জিতে যান বনি কাপুরের পুত্র অর্জুন।

[চূড়ান্ত ফ্লপ ‘ঠাগস অফ হিন্দোস্তান’, দায় স্বীকার আমিরের]

এই পর্যন্ত সবই ঠিকঠাক ছিল। কিন্তু এর পরই সোশ্যাল মিডিয়ার রোষের মুখে পড়তে হয় অনশুলাকে। জাহ্নবী জানান, তাঁর পাশে না দাঁড়ানোয় তাঁর বোনকে ধর্ষণের হুমকিও দেওয়া হয়। গোটা ঘটনায় বেশ হতবাক কাপুর পরিবারের দুই বোন। ‘ধড়ক’ খ্যাত অভিনেত্রী বলেন, “বিষয়টা খুবই অদ্ভুত। সোশ্যাল মিডিয়ায় যে যার ইচ্ছা মতো যে কোনও ব্যাপারে বক্তব্য রাখে। অনেক সময় যা শালীনতার সীমা পেরিয়ে যায়।” নেটিজেনদের নিন্দায় সরব হয়েছেন অর্জুন কাপুরও। বোন অনশুলার পাশে দাঁড়িয়ে তিনি বলেন, “আমার বোনকে নিয়ে যেসব ঘৃণ্য মশকরা করা হয়েছে, তা অত্যন্ত নিন্দনীয়। কামনা করি আপনার মা বা বোনকে এমন ট্রোলড হতে না হয়।”

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement