৩১ ভাদ্র  ১৪২৬  বুধবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: যিনি মৃত, ইহলোকে নেই, তাঁকে রাজনীতির কাদা ছোঁড়াছুড়িতে টেনে আনা যে রুচিবোধের পরিচয় নয়, তা খুব মার্জিত ভাষায় বুঝিয়ে দিলেন রীতেশ দেশমুখ। এপ্রসঙ্গে পীযূষ গোয়েলকে একহাত নিলেন তিনি। বললেন, মুখ্যমন্ত্রীকে প্রশ্ন করার সম্পূর্ণ অধিকার তাঁর রয়েছে। কিন্তু যিনি প্রয়াত হয়েছেন তাঁকে দোষারোপ করা ঠিক নয়।

সোমবার কংগ্রেসের প্রাক্তন নেতা ও মহারাষ্ট্রের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বিলাসরাও দেশমুখকে কটাক্ষ করেন পীযূষ গোয়েল। বলেন, যখন তাজ আর ওবেরয় হোটেলের ভিতর বোমা ফাটছিল, গুলি চলছিল, তখন মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী বিলাসরাও দেশমুখ ওবেরয় হোটেলের বাইরে সিনেমার এক প্রযোজকের সঙ্গে ব্যস্ত ছিলেন। ছেলে রীতেশকে একটি রোল পাইয়ে দেওয়া তখন তাঁর কাছে বেশি গুরুত্বপূর্ণ ছিল। পীযূষ গোয়েলের এমন মন্তব্যেরই বিরোধিতা করেছেন রীতেশ। বলেছেন, যখন তাজ ও ওবেরয় হোটেলে বোমা পড়ছিল, গুলি চলছিল, তখন তাঁরা সেখানে ছিলেন না।

[ আরও পড়ুন: নিজেদের গ্রামকে ভুলে পাঞ্জাবের সেবা করবেন! সানিকে নিয়ে ক্ষোভ প্রতিবেশীদের ]

এখানেই থামেননি অভিনেতা। তিনি বলেন, “এটা সত্যি যে আমি বাবার সঙ্গে ছিলাম। কিন্তু এটা সম্পূর্ণ ভুল যে তিনি আমাকে রোল পাইয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছিলেন। তিনি কখনও কোনও পরিচালক বা প্রযোজককে আমায় রোল পাইয়ে দেওয়া নিয়ে কিছু বলেননি। এজন্য আমি গর্বিত। একজন মুখ্যমন্ত্রীকে প্রশ্ন করার অধিকার আপনার রয়েছে। কিন্তু যে নিজেকে রক্ষা করার জন্য ইহলোকে নেই, তাতে অভিযুক্ত করা ঠিক নয়। একটু দেরি হয়ে গিয়েছে। সাত বছর আগে হলে উনি আপনাকে উত্তর দিতে পারতেন।” এরপর গোয়েলের প্রচারের জন্য শুভেচ্ছা জানিয়ে বক্তব্য শেষ করেন রীতেশ।

তবে নিন্দুকরা বলছেন, বিজেপির এটা ট্রেন্ড হয়ে দাঁড়িয়েছে। এর আগে রাজীব গান্ধীকে নিয়ে রাহুলকে খোঁচা দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। বলেছিলেন, “আপনার বাবাকে দেশবাসী মিস্টার ক্লিন বলত। কিন্তু তাঁর জীবন শেষ হয়েছিল একনম্বর দুর্নীতিগ্রস্ত তকমা নিয়ে।” এবার ওই একই রাস্তায় হাঁটলেন পীযূষ গোয়েল।

[ আরও পড়ুন: ‘ডন’ নাম নিয়ে আপত্তি ছিল বিদগ্ধদের! ছবির ৪১ বছর পূর্তিতে ফাঁস করলেন বিগ বি ]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং