BREAKING NEWS

২ আশ্বিন  ১৪২৭  শনিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

‘ইন্ডাস্ট্রিতে তখন বুম্বার সঙ্গে ওর প্রেম’, শ্রীলেখার এই অভিযোগের ভিত্তিতে মুখ খুললেন ঋতুপর্ণা

Published by: Sandipta Bhanja |    Posted: June 20, 2020 10:46 am|    Updated: June 20, 2020 4:00 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: “ইন্ডাস্ট্রিতে তখন প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে ঋতুপর্ণার প্রেম চলছিল, তাই একের পর এক ছবিতে প্যাকেজ ডিলের মতো তাঁদেরই কাস্ট করা হয়েছে”, দিন দুয়েক আগেই টলিউডে স্বজনপোষন নিয়ে বোমা ফাটিয়েছিলেন অভিনেত্রী শ্রীলেখা মিত্র। “যে অভিনেতা-অভিনেত্রীদের প্রেম চলত, তারাই সিনেমায় জুটি হিসেবে কাজ পেত। ছবি চলুক না চলুক!” ঠিক এই কথাগুলিই বলেছিলেন অভিনেত্রী। এবার সেই অভিযোগের ভিত্তিতে সরব হয়েছেন ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তও।

“কেরিয়ারের গোড়ার দিকে আমি কখনও নায়িকার চরিত্র পাইনি। তখন ইন্ডাস্ট্রিতে এক নম্বরে ছিলেন বুম্বাদা অর্থাৎ প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়। তখন বোনের চরিত্র করেছি। সেকেন্ড লিড করেছি। যদিও আমি জানতাম আমি নায়িকা হওয়ার যোগ্য। কিন্তু সেই সময় ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তের সঙ্গে প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়ের প্রেম”, বলেছিলেন শ্রীলেখা। এবার সেই অভিযোগের ভিত্তিতেই এক টিভি চ্যানেলে মুখ খুললেন অভিনেত্রী ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত।

প্রসঙ্গ ঋতুপর্ণা-প্রসেনজিৎ প্রেম ও জুটি

ঠিক কী বললেন ঋতুপর্ণা? প্রথমত তিনি এই জুটি বাঁধা নিয়ে অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছেন। এবং দ্বিতীয়ত, ঋতুপর্ণার কথায়, ২০০১ সাল থেকে ২০১৫ সাল অবধি তিনি প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়ের (Prosenjit Chatterjee) সঙ্গে কোনও ছবি করেননি। যদিও  দীর্ঘ কয়েক বছর পর শিবু-নন্দিতার হাত ধরে ‘প্রাক্তন’ এবং পরবর্তীতে কৌশিক গঙ্গোপাধ্যায়ের ‘দৃষ্টিকোণ’ ছবিতে দেখা গিয়েছিল ঋতুপর্ণা-প্রসেনজিৎ জুটিকে। পাশাপাশি, অভিনেত্রী এও মনে করিয়ে দেন যে, ২০০১ সাল থেকেই ইন্ডাস্ট্রিতে ভিন্ন ধারার ছবিতে অভিনয় করে তিনি নিজেকে টিকিয়ে রেখেছেন।

অন্নদাতা ছবির কাস্টিং নিয়ে শ্রীলেখা-অশোক ধানুকা

অন্যদিকে, যে ছবি নিয়ে এই বিস্ফোরক অভিযোগ এনেছিলেন শ্রীলেখা। সেই ‘অন্নদাতা’ ছবির প্রযোজক অশোক ধানুকাও সরব হয়েছেন। শ্রীলেখার মন্তব্য, অশোক ধানুকার ‘অন্নদাতা’ ছবির নায়িকার চরিত্রে সই করে খুব আনন্দ পেয়েছিলাম। প্রথম বাংলা ছবিতে নায়িকার ভূমিকায় অভিনয় করার সুযোগ! কিন্তু অশোক ধানুকা পরে ফোন করে জানান, প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায় আমার সঙ্গে ছবি করতে চান না। কারণ তিনি মনে করেন শ্রীলেখা নায়িকা হলে কেউ টাকা দিয়ে সিনেমা হলে যাবেন না!”

শ্রীলেখার এই মন্তব্যের প্রেক্ষিতে প্রসেনজিতের পাশে দাঁড়িয়ে অশোক ধানুকা জানিয়েছেন, তিনি ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তকেই (Rituparna Sengupta) প্রথম ফোন করে ‘অন্নদাতা’ ছবির প্রস্তাব দিয়েছিলেন। কিন্তু অভিনেত্রী সেসময় আমেরিকাতে থাকায় তিনি শ্রীলেখা মিত্রকে (Sreelekha Mitra) নিয়েছিলেন। তাছাড়া শ্রীলেখা ‘অন্নদাতা’র আগে কোনও ছবিতে নায়িকার চরিত্র পাননি।

[আরও পড়ুন: মুম্বই পুলিশের নজরে যশ রাজ ফিল্মস! চেয়ে পাঠানো হল সুশান্তের সঙ্গে চুক্তিপত্রের কাগজ]

তিনি আরও বলেন, সেসময় দর্শকরা যেসব জুটিকে পছন্দ করত, তাঁদেরকেই সাধারণত সিনেমায় নেওয়া হত। প্রথম ছবি বলে তিনিও শ্রীলেখার উপর ভরসা করতে পারেননি তখন। সেই ভাবনা থেকেই ঋতুপর্ণা-প্রসেনজিৎ জুটির কথা ভাবা। তবে অশোক ধানুকা সাফ জানিয়েছেন, “বুম্বাদা কোনওদিনই এনাকে নিতে হবে কিংবা ওনাকে নিতে হবে বলে প্রস্তাব দেননি।”

টলিউডে ‘নেপোটিজম’ নিয়ে শাশ্বত চট্টোপাধ্যায়

প্রসঙ্গত, বাংলা ইন্ডাস্ট্রিতে শ্রীলেখার তোলা স্বজনপোষণের অভিযোগের ভিত্তিতে মুখ খুলেছেন অভিনেতা শাশ্বত চট্টোপাধ্যায়ও (Sashwata Chaterjee)। তাঁর কথায়, “প্রত্যেক পেশাতেই অনেকের মনেই হয়ত এই ধারনাটা আসে যে কোনও না কোনও ভাবে তাঁরা ঠকেছেন। এই ধারনাটা যদি মনে বসে যায়, সেখান থেকে বের হওয়ার কোনও রাস্তা কিন্তু খুব কঠিন।”

তিনি এও বলেন যে, শুভেন্দু চট্টোপাধ্যায়ের ছেলে হিসেবে ইন্ডাস্ট্রিতে তাঁকে আলাদা করে কোনও সুযোগ দেওয়া হয়নি। কারণ অভিনেতার মতে, তাঁর বাবার চেহারার একবিন্দুও তিনি পাননি। অভিনয়ের প্রতি ভালবাসা থেকেই এই ইন্ডাস্ট্রিতে আসা। অনেক সময়েই দেখেছেন ছবির খুব ছোট একটা চরিত্রে তিনি রয়েছেন অথচ ডাবিংয়ের সময় গিয়ে জানতে পেরেছেন যে তাঁর অংশটাই কেটে বাদ দিয়ে দেওয়া হয়েছে। বন্ধু, সহকর্মী শ্রীলেখার উদ্দেশে বলেছেন, “নেতিবাচক ভাবনা থেকে বেরিয়ে আয়। বছর দুয়েক আগে একটা চিত্রনাট্য শুনেছিলাম, তারপর দেখেছি, সেটা অন্য কেউ করছে। এটা যদি আমি মাথায় রাখি, তাহলে তো জীবনে বাঁচতেও পারব না।”

[আরও পড়ুন: ‘জাভেদ আখতার আমাকে আত্মহত্যার প্ররোচনা দিয়েছিলেন’, ‘নেপোটিজম’ নিয়ে ফের বিস্ফোরক কঙ্গনা]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement