BREAKING NEWS

৪ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

বিরোধীদের তোপে মমতার বায়োপিক ‘বাঘিনী’, সিপিএমের পর কমিশনে বিজেপি

Published by: Sandipta Bhanja |    Posted: April 17, 2019 8:16 pm|    Updated: April 17, 2019 8:16 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: মোদির বায়োপিকের পর নির্বাচনী বিধির গেরোয় মমতার বায়োপিক ‘বাঘিনী’। সৌজন্যে সিপিএম। ট্রেলার মুক্তির পরই নির্বাচন কমিশনের দ্বারস্থ হয়েছিল সিপিএম। তাদের দাবি, ভোটের মরসুমে ‘বাঘিনী’র ট্রেলার মুক্তি নির্বাচনী বিধিভঙ্গ করেছে। আর এবার সিপিএমের পর সেই একই সুর শোনা গেল বিজেপির গলায়। মমতার বায়োপিক নিয়ে নির্বাচন কমিশনকে চিঠি পাঠাল বিজেপি।

[আরও পড়ুন:  মাথা খারাপ হয়েছে কঙ্গনার, সঙ্গে দোসর রাজকুমার রাও!]

বুধবার ভারতীয় জনতা পার্টির তরফে নির্বাচন কমিশনের কাছে চিঠি পাঠিয়ে ‘বাঘিনী’ ছবিটি দেখার আবেদন জানানো হয়। তাঁদের দাবি, মুক্তির আগে মমতার বায়োপিক দেখা হোক নির্বাচন কমিশনের তরফে। ঠিক যেমনটা ৮ এপ্রিল মোদি বায়োপিকের ক্ষেত্রে রায় দিয়েছে দেশের শীর্ষ আদালত। প্রসঙ্গত, চলতি লোকসভা ভোটের মাঝেই মে মাসের ৩ তারিখে মুক্তি পাওয়ার কথা রয়েছে মমতার বায়োপিকের। অন্য দিকে, ভোট চলবে ১৯ মে অবধি। অর্থাৎ, লোকসভা নির্বাচন চলাকালীনই মুক্তি পাওয়ার কথা ‘বাঘিনী’র। তবে, তৃণমূল বিরোধী দল সিপিএম এবং বিজেপির অভিযোগ ও আবেদনের পর মমতার বায়োপিক ইস্যু নিয়ে কোনওরকম কথা শোনা যায়নি নির্বাচনী কমিশনের তরফে।

‘বাঘিনী’ নির্মাতাদের দাবি এ ছবি বায়োপিক নয়। মমতার জীবনসংগ্রাম থেকে অনুপ্রাণিত হয়েই তৈরি হয়েছে এই ছবি। কিন্তু এসব কথা মানতে নারাজ বিরোধী দলরা। উলটে তাদের দাবি, অবিলম্বে যেন এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয় নির্বাচন কমিশন।

গত সপ্তাহেই মুক্তি পেয়েছে ‘বাঘিনী’র ট্রেলার। তৃণমূল কংগ্রেস সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছোটবেলা থেকে যে মুখ্যমন্ত্রী হওয়া পর্যন্ত পুরো জার্নিটা তুলে ধরা হয়েছে ছবিতে, তার আঁচ পাওয়া গিয়েছে ট্রেলারেই। ছবিতে সিঙ্গুর-নন্দীগ্রামের মতো সাড়া জাগানো ঘটনাও তুলে ধরা হয়েছে। রয়েছে মমতার রাইটার্স বিল্ডিংয়ের সেই বিখ্যাত ঘটনাও।

[আরও পড়ুন:  সলমনের পর প্রকাশ্যে ক্যাটরিনার ‘ভারত’ লুক, মিলল চরিত্রের আভাস]

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বায়োপিকের উপর ইতিমধ্যেই স্থগিতাদেশ জারি করেছে নির্বাচন কমিশন। বলা হয়েছে, ভোটের মরশুমে কোনওভাবেই মুক্তি পাবে না ছবিটি। কারণ, নির্বাচনের নির্ঘণ্ট ঘোষণার পর এমন ছবি মুক্তি পাওয়া বিধিভঙ্গের শামিল। কংগ্রেস-সহ একাধিক বিরোধী দল এই অভিযোগ তুলে দেশের একাধিক আদালতের দ্বারস্থ হয়। দায়ের হয় বেশ কিছু জনস্বার্থ মামলাও। শেষে সুপ্রিম কোর্ট জানায়, এই সংক্রান্ত যাবতীয় সিদ্ধান্ত নেবে নির্বাচন কমিশন। 

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement