২৮ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২৬ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

সুশান্তের শরীরে মেলেনি জৈব বিষ, রিপোর্টে উল্লেখ করেও খুনের তত্ত্ব ওড়াল না AIIMS

Published by: Biswadip Dey |    Posted: September 29, 2020 11:40 am|    Updated: October 1, 2020 1:52 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বলিউড তারকা সুশান্ত সিং রাজপুতের (Sushant Singh Rajput) মৃত্যুর কারণ অনুসন্ধান করার পর রিপোর্ট জমা দিল এইমস। রিপোর্টটি খতিয়ে দেখার পর সিবিআই এবিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে বলে দাবি এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমের। কী রয়েছে সেই রিপোর্টে, তা জানতে মরিয়া সকলে। ওই সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্য়মের দাবি, সুশান্তের শরীরে কোনও জৈব বিষ পাওয়া যায়নি। তবে তাতেও খুনের আশঙ্কা উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না। 

এদিকে, অভিনেতার মৃত্যুর কারণ খুঁজতে গিয়ে চিকিৎসকদের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুললেন পারিবারিক আইনজীবী বিকাশ সিং। তাঁর দাবি যে আত্মহত্যা নয়, শ্বাসরোধ করেই হত্যা করা হয়েছে বলিউড তারকা সুশান্ত সিং রাজপুতকে এবং এ ব্যাপারে এইমসের (AIIMS) চিকিৎসকরাও দু’শো শতাংশ নিশ্চিত বলে মনে করছেন তিনি। তবে তাঁর এই দাবি উড়িয়েছেন চিকিৎসক দলের নেতৃত্বে থাকা ড. সুধীর গুপ্তা। তিনি এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে জানিয়ে দিয়েছিলেন, ‘‘অনুসন্ধান এখনও চলছে। উনি যা বলেছেন তা সঠিক নয়। কেবল ফাঁসের দাগ বা ঘটনাস্থলের ছবি দেখেই আমরা খুন না আত্মহত্যা সে বিষয়ে সিদ্ধান্তে আসতে পারি না। এর জন্য আরও অনুসন্ধানের প্রয়োজন।’’ 

[আরও পড়ুন: রাজ কাপুর ও দিলীপ কুমারের পূর্বপুরুষের ভিটে কিনে নিচ্ছে পাকিস্তান সরকার]

এইমসের চিকিৎসকদের একটি দল সুশান্ত সিংহ রাজপুতের ময়নাতদন্ত ও ভিসেরা রিপোর্টের পুনর্মূল্যায়ণ করেছেন। ভিসেরা নমুনার অবশিষ্ট ২০ শতাংশের সাহায্যে তাঁরা অনুসন্ধান করেছেন সুশান্তের মৃত্যুরহস্য। সুশান্ত আত্মহত্যা করেছেন, নাকি তাঁকে হত্যা করা হয়েছিল সেই সংক্রান্ত একটি চূড়ান্ত রিপোর্ট ২২ সেপ্টেম্বর জমা পড়ার কথা। কিন্তু নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সেই রিপোর্ট জমা না পড়ায় বিস্তর ক্ষোভ তৈরি হয় অনুরাগী মহলে। অবশেষে সোমবার রাতের দিকে নিজেদের পর্যবেক্ষণের কথা CBIকে জানায় AIIMS.

[আরও পড়ুন: সুশান্ত মৃত্যুতদন্তে ঢিলেমি, CBI-এর বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে অনশনে অভিনেতার বন্ধু ও প্রাক্তন কর্মী]

সূত্রের খবর, এইমসের চিকিৎসকরা তদন্ত করে দেখেছেন সুশান্ত সিংকে মৃত্যুর আগে বিষ দেওয়া হয়েছিল কিন‌া। ভিসেরা নমুনার অবশিষ্ট ২০ শতাংশের উপরে পরীক্ষা করে তাঁরা বলছেন, এখনও পর্যন্ত কোনও জৈব বিষ মেলেনি তাঁর শরীরে। অনুসন্ধান চলাকালীন সিবিআইয়ের বিশেষ অনুসন্ধানকারী দল এইমসের চিকিৎসকদের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রেখেছেন। চিকিৎসকদের রিপোর্টের উপরে সিবিআই অনেকটাই নির্ভরশীল বলে জানা গিয়েছে।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement