BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

লকডাউনে মুক্তি পেল ‘উড়নচণ্ডী’ খ্যাত অমর্ত্যর প্রথম বাংলা গানের ভিডিও, অভিনয়ে ঋতুপর্ণা-সুদীপ্তা

Published by: Bishakha Pal |    Posted: April 25, 2020 6:16 pm|    Updated: April 26, 2020 9:42 pm

An Images

শম্পালী মৌলিক: অমর্ত্য রায় বাংলায় প্রথম নজর কাড়েন অভিষেক সাহার ‘উড়নচণ্ডী’ ছবিতে ‘ছোটু’র চরিত্রে। সেটা ২০১৮ সাল। অমর্ত্যর আরও একটা পরিচয় তিনি অভিনেত্রী চৈতি ঘোষালের ছেলে। তাঁকে আমরা পেয়েছি মিতালি ঘোষালের ‘টোয়েন্টি টু ইয়ার্ডস’ ছবিতেও। সেই অমর্ত্যই রয়েছেন অজয় দেবগন অভিনীত ছবি ‘ময়দান’-এ। যার পরিচালনায় অমিত শর্মা। যেখানে চুনী গোস্বামীর ছোটবেলার চরিত্রে অভিনয় করছেন তিনি। এহেন অভিনেতা অমর্ত্য রায় এই লকডাউনের বাজারে বানিয়ে ফেললেন নিজের প্রথম বাংলা সিঙ্গলস ‘আমি না তুমি’। যে গানটি ২৫ এপ্রিল অর্থাৎ শনিবার বিকেলে ভিডিও-সহ মুক্তি পেল ‘চৈতি ও অমর্ত্য’ শীর্ষক নতুন ইউটিউব চ্যানেলে।

লকডাউনের আগে তিনি ছিলেন মুম্বইয়ে। ‘ময়দান’-এর শেষ পর্বের শুটিং শুরু হব-হব, এমন অবস্থায় স্থগিত হয়ে যায়। এবং তিনি ফিরে আসেন কলকাতায়। ‘ভাগ্যিস এই করোনা পরিস্থিতিতে লকডাউনের আগে চলে আসতে পেরেছিলাম।’ মোবাইলে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেললেন তিনি। বলা চলে ঘরে বসে থাকতে থাকতেই নতুন গানের আইডিয়া মাথায় আসে তাঁর। এবং এই প্রথম বাংলায়। যাঁরা তাঁকে চেনেন, জানেন মিউজিক অমর্ত্যর প্যাশন। এর আগে ‘টোয়েন্টি টু ইয়ার্ডস’-এর জন্যও দু’টি গান বানিয়েছিলেন। এ শহরেও শো করতেন। তবে এবাবের করোনা পরিস্থিতিতে বদলে যাওয়া জীবনযাত্রা- চারপাশ, লকডাউনের নীরবতা, প্রকৃতি তাঁকে দিয়ে নতুন গান তৈরি করিয়ে নিল। ‘আমি না তুমি’ লিখেছেন, সুর দিয়েছেন, গেয়েছেন তিনি নিজেই। অ্যারেঞ্জ করেছেন তাঁর বন্ধু স্বর্ণদীপ। আর বাড়িতেই পুরো শুট করা। এই ব্যাপারে মা চৈতি ছিলেন ক্যামেরার পিছনে। তিনিই অমর্ত্যর বেশিরভাগ ছবি তুলে দিয়েছেন। ‘সিনেমাটোগ্রাফির ক্রেডিট মাকেই দিয়েছি।’ হেসে বললেন অমর্ত্য।

ami na tumi

[ আরও পড়ুন: করোনা আবহে অনাড়ম্বড়ে পালিত হল জন্মদিন, ইন্ডাস্ট্রির দিনমজুরদের সাহায্য বরুণ ধাওয়ানের ]

মিউজিক ভিডিওতে অংশ নিয়েছেন ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত, দেবলীনা দত্ত, সুদীপ্তা চক্রবর্তী, চৈতি ঘোষাল, তথাগত মুখোপাধ্যায়, দেবেশ চট্টোপাধ্যায়, ক্রিকেটার সৌরাশিস লাহিড়ি, ইংল্যান্ডের চিকিৎসক কৌশিক মজুমদার, একজন প্রাক্তন নার্স গীতা দে, একজন পড়ুয়া প্রমুখ। ‘চৈতি ও অমর্ত্য’ ইউটিউব চ্যানেল ও সোশ্যাল মিডিয়ায় দেখতে পাওয়া যাচ্ছে এটি। প্রত্যেকে নিজের শট তুলে অমর্ত্যকে পাঠিয়েছেন। যেখানে তাঁরা সকলেই গানের একটি করে লাইন গেয়েছেন। তারপর সমস্ত শট নিয়ে একটি মন্তাজ সিকোয়েন্স তৈরি হয়েছে। যেটা ভিডিওর শেষে দেখা যায়। করোনা যুদ্ধের বার্তা রয়েছে। কিন্তু জ্ঞান দেওয়ার মতো করে নয়। ফলে সকলের ভাল লেগেছে মিউডিক ভিডিওটি। একটি কর্পোরেট সংস্থা ভিডিওর টিজার দেখেই পরবর্তী কাজের জন্য আগ্রহ প্রকাশ করেছে।

[ আরও পড়ুন: ‘বহু মানুষের ‘উপোস’ চলছে এক মাস ধরে’, রমজানের শুভেচ্ছাবার্তায় মন খারাপ মীরের ]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement