BREAKING NEWS

১২ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

বম্বে হাই কোর্টে স্বস্তি কঙ্গনার, আগামী ২২ সেপ্টেম্বর অবধি অফিস ভাঙার কাজে স্থগিতাদেশ

Published by: Sandipta Bhanja |    Posted: September 10, 2020 4:37 pm|    Updated: September 10, 2020 4:37 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: মুম্বই এবং মহারাষ্ট্র সরকারকে নিয়ে কড়া মন্তব্যের জেরে বর্তমানে শিব সেনার রোষানলে কঙ্গনা রানাউত (Kangana Ranaut)। যার জেরে উদ্ধব প্রশাসনের নজর এখন অভিনেত্রীর ‘অবৈধ’ বাংলো ও অফিসের দিকে। বুধবার কঙ্গনা মুম্বইয়ে পা রাখার আগেই তাঁর বাংলো ভাঙার কাজ শুরু করেছিল বৃহন্মুম্বই পুরসভা। উদ্ধব প্রশাসনের এই কর্মকাণ্ড রুখতে গতকালই আদালতের কাছে আবেদন জানিয়েছিলেন অভিনেত্রী। তড়িঘড়ি সেই কাজে স্থগিতাদেশ জারি করেছিল বম্বে হাই কোর্ট। বৃহস্পতিবার সেই মামলার শুনানিতে আবারও কঙ্গনার সমর্থনে রায় দেওয়া হল আদালতের তরফে।

আগামী ২২ তারিখ অবধি কঙ্গনার অফিস ভাঙার কাজে হাত দেওয়া যাবে না, বলে জানিয়েছে বম্বে হাই কোর্ট (Bombay High Court)। অভিনেত্রীর বিরুদ্ধে অভিযোগ, তাঁর অফিস ও বাসভবন অবৈধভাবে গড়ে তোলা হয়েছে। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে আইনি তথ্য-প্রমাণাদি জমা দিতে হবে পুরসভার কাছে। তার ভিত্তিতেই বুধবার বৃহন্মুম্বই পুরসভার (Brihanmumbai Municipal Corporation) কাছে সংশ্লিষ্ট বিষয়ে রিপোর্ট পেশ করার নির্দেশ দিয়েছিল আদালত। পুরসভার সেই তথ্য দেখে বম্বে হাই কোর্ট আগামী ১২ দিন অবধি কঙ্গনার বান্দ্রার বাংলো ও অফিস ভাঙার কাজে স্থগিতাদেশ জারি করেছে।

[আরও পড়ুন: নীরব মোদি, মেহুল চোকসিদের না ধরে রিয়া চক্রবর্তীর পিছনে কেন? ED’কে তোপ স্বরা ভাস্করের]

অন্যদিকে কঙ্গনার বাংলো ভাঙার তীব্র নিন্দা করেছে IMPPA (Indian Motion Pictures Producers’ Association)। IMPPA’র প্রেসিডেন্ট জানিয়েছেন, “এমন কার্যকলাপ মহারাষ্ট্র সরকার কিংবা কঙ্গনা, কারও জন্যই ইতিবাচক নয়। এত কম সময়ের নোটিসে এভাবে কারও বাংলো ভেঙে ফেলা মোটেই যুক্তিসঙ্গত নয়। মুম্বইয়ের যত্রতত্র এরকম কনস্ট্রাকশন ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে, দরকারে সেগুলোও ভাঙুন শুধু কঙ্গনারটা কেন?”  

প্রসঙ্গত, বুধবারই নিজের অফিস ভাঙা নিয়ে উদ্ধব ঠাকরেকে কটাক্ষ করেছিলেন কঙ্গনা রানাউত বলেছিলেন ‘বাবররা রাম মন্দির ভাঙতে এসেছিল!’ এমনকী মুম্বইকে সরাসরি ‘পাকিস্তান’ বলেও তোপ দেগেছেন অভিনেত্রী! উদ্ধব প্রসাশনের বিরুদ্ধে সুর চড়িয়ে অভিনেত্রীর মন্তব্য, “এ তো গণতন্ত্রের মৃত্যু!” আর তার রেশ ধরেই বুধবার দুপুরে ছত্রপতি শিবাজি মহারাজ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে কঙ্গনা পা রাখলে তার বিরুদ্ধে বিক্ষোভ প্রদর্শন শুরু হয়। বিরোধী শিবিরের পক্ষ থেকে আপত্তি উঠেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের দেওয়া Y+ ক্যাটাগরির নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়ে। সব মিলিয়ে রাজনৈতিক মহলের অন্দরও বেশ সরগরম কঙ্গনাকে নিয়ে। 

[আরও পড়ুন: তুরস্ক বিতর্ক অতীত! ‘ড্রাগনের প্রিয়পাত্র’ আমিরের পানি ফাউন্ডেশনকে কুর্নিশ কেন্দ্রীয় মন্ত্রকের]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement