BREAKING NEWS

৭ আশ্বিন  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

ঘাটালের কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে খাবার জোগাচ্ছে স্থানীয় ক্লাব, রেশন দিয়ে সাহায্য করলেন দেব

Published by: Bishakha Pal |    Posted: June 12, 2020 7:18 pm|    Updated: June 12, 2020 10:38 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: দুর্দিনে মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্য সবরকমভাবে চেষ্টা চালাচ্ছেন অভিনেতা ও ঘাটালের সাংসদ দেব। কখনও করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য মুখ্যমন্ত্রীর পাশে দাঁড়াচ্ছেন; কখনও আবার নেপাল, দুবাই, জম্মু ও কাশ্মীর থেকে ফিরিয়ে আনছেন পরিযায়ী শ্রমিকদের। দেশের এই দুর্দিনে একটি নীতিকেই বেদবাক্যের মতো অনুসরণ করছেন তিনি। রাজনীতির উর্ধ্বে উঠে মানুষের পাশে দাঁড়ানো। এবার সেই কাজে আরও একধাপ অগ্রসর হলেন ঘাটালের সাংসদ।

করোনা আবহে অনেকেরই ঠাঁই হয়েছে কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে। ঘাটালের দাসপুরেও তৈরি হয়েছে এমন কোয়ারেন্টাইন সেন্টার। তেমনই এক সেন্টারের মানুষদের খাবারের দায়িত্ব নিয়েছে স্থানীয় একটি ক্লাব। নাম রাজনগর ইয়ং স্পোর্টিং ক্লাব। কোয়ারেন্টাইনে থাকা মানুষদের দু’বেলা খাবার দেওয়ার বন্দোবস্ত করেছে তারা। ক্লাব সদস্যদের নিজেদের উদ্যোগেই এতদিন এই কাজ চলছিল। সদস্যদের অভিযোগ, প্রশাসনের তরফ থেকে এই কাজের জন্য কোনও রকম সাহায্য পাননি তাঁরা। এই খবর ঘাটালের সাংসদ দেবের কানে পৌঁছয়। প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই তিনি সাহায্য়ের প্রতিশ্রুতি দেন। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় পৌঁছে যায় এক কুইন্ট্যাল চাল, ৫০ কেজি আলু, ১০ কেজি ডাল ও আর কিছু প্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী। দেবের এই সাহায্যে আপ্লুত ক্লাবের সদস্যরা। তাঁরা জানিয়েছেন, ভবিষ্যতে প্রয়োজন পড়লে তিনি আরও সাহায্য করবেন বলে জানিয়েছেন।

[ আরও পড়ুন: শুরু হল ‘মহাপীঠ তারাপীঠ’ সিরিয়ালের শুটিং, স্ত্রী নবনীতাকে নিয়ে দুশ্চিন্তায় রয়েছেন অভিনেতা জিতু ]

কিছুদিন আগে নেপালে আটকে থাকা হাজারেরও বেশি পরিযায়ী শ্রমিককে ফিরিয়েছেন দেব। ভারত-নেপাল সীমান্তে আটকে পড়া মানুষ গুলোর জন্য কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের থেকে বিশেষ অনুমতি নিয়ে ফিরিয়ে এনেছেন তাঁদের। এঁদের বেশিরভাগই দেবের সংসদীয় এলাকা ঘাটালের বাসিন্দা। বাড়ি ফেরা পরিযায়ীদের তালিকায় বাঁকুড়া, আরামবাগের লোকেরাও রয়েছেন। এছাড়া জম্মু ও কাশ্মীর থেকেও পর্যটকদের ফিরিয়েছেন তিনি। দুবাই থেকে ১৮০ জনকেও ফেরানোর বন্দোবস্ত করেছেন দেব।

[ আরও পড়ুন: পরিচালক যখন ডাক্তার! কঠিন সময়ে সুন্দরবনে রোগী দেখছেন কমলেশ্বর মুখোপাধ্যায় ]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement