১৩ কার্তিক  ১৪২৭  শুক্রবার ৩০ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

যোগীর উপর ‘বিশ্বাস’ আছে! হাথরাসের ধর্ষকদের এনকাউন্টারের দাবি কঙ্গনার

Published by: Biswadip Dey |    Posted: September 30, 2020 4:21 pm|    Updated: September 30, 2020 9:42 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: উত্তরপ্রদেশের (Uttar Pradesh) মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের উপরে তাঁর ‘অগাধ বিশ্বাস’ আছে বলে জানালেন বলিউড অভিনেত্রী কঙ্গনা রানাউত (Kangana Ranaut)। হাথরাসে গণধর্ষণ এবং নৃশংস শারীরিক নির্যাতনের শিকার হওয়া ১৯ বছরের যুবতীর মৃত্যু প্রসঙ্গে তিনি বুধবার টুইট করেন। সেখানেই তিনি নিজের এই ‘বিশ্বাস’ ব্যক্ত করেন।

গত বছর তেলেঙ্গানায় পশু চিকিৎসক প্রিয়াঙ্কা রেড্ডির ধর্ষকদের যেভাবে এনকাউন্টারে মারা হয়েছিল, সেইভাবেই হাথরাসের দলিত যুবতীর ধর্ষকদেরও এনকাউন্টারের দাবি তুলেছেন কঙ্গনা।

এদিন তাঁর টুইটে কঙ্গনা লেখেন, ‘‘যোগী আদিত্যনাথজির প্রতি আমার অগাধ বিশ্বাস রয়েছে। যেভাবে প্রিয়াঙ্কা রেড্ডির ধর্ষকদের গুলি করে হত্যা হয়েছিল ধর্ষণ ও জীবন্ত পুড়িয়ে হত্যার ঘটনাস্থলে সেভাবেই আমরা সংবেদনশীল, সহজাত এবং আবেগপ্রবণ ন্যায়বিচার চাই হাথরাসের (Hathras) অপরাধের।’’

প্রসঙ্গত, গত বছর ২০১৯ সালের নভেম্বরে হায়দরাবাদে পশু চিকিৎসক প্রিয়াঙ্কা রেড্ডিকে গণধর্ষণ করে জীবন্ত আগুনে পুড়িয়ে হত্যা করেছিল ধর্ষকরা। পরে সেই ধর্ষকদের এনকাউন্টারে গুলি করে মেরেছিল পুলিশ।

এদিকে কবে এই ধরনের অপরাধ বন্ধ হবে, প্রশ্ন তুলে টুইট করেছেন বলিউড অভিনেতা অক্ষয় কুমারও। তিনি টুইটে জানান, ‘‘হাথরাসের গণধর্ষণ নৃশংস। কবে এই ধরনের ঘটনা বন্ধ হবে? আমাদের আইন ও তার প্রয়োগ অবশ্যই এতটা কঠোর হতে হবে যে শাস্তির কথা ভেবেই ধর্ষকরা ভয়ে কেঁপে উঠবে।’’

কেবল অক্ষয় বা কঙ্গনাই নয়, গণধর্ষণের ঘটনায় দ্রুত ন্যায়বিচারের সপক্ষে সরব হয়েছেন রিচা চাড্ডা, রীতেশ দেশমুখ, ফারহান আখতার, ইয়ামি গৌতমের মতো বলি তারকারা।

[আরও পড়ুন: ধর্ষণ করা হয়েছিল দিশাকে! ফের সুশান্তের প্রাক্তন ম্যানেজারের মৃত্যুতদন্তের ফাইল খুলছে CBI]

এদিকে ২০১২-র ১৬ ডিসেম্বর গণধর্ষণের শিকার হওয়া নির্ভয়ার মা আশা দেবীও মুখ খুলেছেন হাথরাসের গণধর্ষণের ঘটনায়। দাবি করেছেন ফাস্ট ট্র্যাক কোর্টে বিচারের। তিনি জানান, তাঁর মনে হচ্ছে আবারও ২০১২ সালে ফিরে গিয়েছেন তিনি। নির্ভয়ার মা  বলেন, ‘‘শুনেছি আমাদের দেশে আরও একটি নির্দোষ মেয়েকে ধর্ষণ, অত্যাচারের শিকার হতে হয়েছে। সে তার প্রাণ হারিয়েছে। এটা অত্যন্ত লজ্জার যে আমাদের দেশের মেয়েরা এমন ব্যবহার পেয়েই চলেছেন।’’ 

গত ১৪ সেপ্টেম্বর উত্তরপ্রদেশের হাথরাস জেলার এক দলিত যুবতী ধর্ষণ এবং নৃশংসতার শিকার হন। দিল্লির সফদরজং হাসপাতালে দু’সপ্তাহ ধরে মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করার পরে মঙ্গলবার সকালে তাঁর মৃত্যু হয়। দেশজোড়া প্রতিবাদের মধ্যেই উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ জানিয়েছেন, এবিষয়ে তদন্তের জন্য তিন সদস্যের একটি দল গঠন করা হয়েছে। সাত দিনের মধ্যে রিপোর্ট জমা দিতে বলা হয়েছে সেই দলকে। ফাস্ট ট্র্যাক কোর্টে হাথরাস মামলার বিচার সম্পন্ন করার নির্দেশও দিয়েছেন যোগী। 

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement