৪ ফাল্গুন  ১৪২৬  সোমবার ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 

Menu Logo দিল্লি ২০২০ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: হাজারো জল্পনা, ধোঁয়াশা সবকিছুকে ধূলিসাৎ করে দিয়ে গত ৬ ডিসেম্বর পদ্মাপারের প্রেমিকার সঙ্গে সাত পাকে বাঁধা পড়েছেন টলিউড পরিচালক সৃজিত মুখোপাধ্যায়। সমালোচকদের মুখে ছাই দিয়ে সেদিনের গোধূলি লগ্নে এক হয়েছিল চার হাত। এ মিলন শুধু হিন্দু-মুসলিমের মিলন নয়, বরং কাঁটাতারের উর্দ্ধে গিয়ে এ মিলন মনুষ্যত্বের। মানবতার নজির। বলছেন সৃজিত অনুরাগী তথা সাম্যবাদ মতাদর্শে বিশ্বাসীরা। কিন্তু এর মাঝেও নেটিজেনদের একাংশ কটাক্ষ করতে ছাড়েননি নব তারকাদম্পতিকে। সৃজিত-পত্নী মিথিলার অতীত ঘেঁটে একের পর এক কদর্য মন্তব্য করেছেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। আর সেসব মন্তব্য নজরে আসতেই নেটিজেনদের কড়া জবাব দিলেন গায়ক অনুপম রায়।

“No points for guessing who is getting hitched today! সৃজিতদার জীবনে বসন্ত এসে গেছে! অভিনন্দন কমরেড!”

গত শুক্রবার গোধূলি লগ্নে দক্ষিণ কলকাতার এক ফ্ল্যাটে ‘গুমনামী’ ব‌্যাচেলর অনেক হৃদয় ভেঙে রেজিস্ট্রি সেরেছিলেন বাংলাদেশের অভিনেত্রী তথা বিআরএসি’র উচ্চপদস্থ আধিকারিক মিথিলার সঙ্গে। ঘরোয়া সেই অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকার কথা ছিল সস্ত্রীক গায়ক অনুপম রায়েরও। যিনি কিনা পরিচালক সৃজিতের খুব কাছের বন্ধু। তাই পরিচালক বন্ধুর এই বিশেষ দিনে অনুপম একটি ছবি শেয়ার করে আগামীর জন্য শুভেচ্ছা জানিয়েছিলেন। ক্যাপশনও বেঁধেছিলেন খাসা- “No points for guessing who is getting hitched today! সৃজিতদার জীবনে বসন্ত এসে গেছে! অভিনন্দন কমরেড!” সেই পোস্টের নিচেই বিরূপ মন্তব্য করতে দেখা গিয়েছে অনককে। তার মধ্যে বাংলাদেশের লোকেরাই বেশি। অহেতুক ঘৃণা-বিদ্বেষ মাখানো মন্তব্য উড়ে এসেছে। ফাহমির সঙ্গে মিথিলার ছবি এবং তারপরই সৃজিতের সঙ্গে তাঁর এই আড়ম্বরহীন বিয়ে, চর্চার কেন্দ্রবিন্দুতে উঠে এসেছে সবকিছু।

[আরও পড়ুন: জেনিভায় পিএইচডি করতে গেলেন সৃজিতের ‘সিমরন’, পরিচালকের রসিকতায় মজেছে নেটদুনিয়া ]

সব কিছু দেখে কিন্তু চুপ করে থাকেননি অনুপম। নম্রতার সঙ্গে একহাত নিয়েছেন সমালোচকদের। পালটা মন্তব্য করেছেন, “শুভদিনে অভিনন্দন জানাতে না পারলেও, ঘৃণা, বিদ্বেষ ছড়াবেন না। এটা অনুরোধ।” অন্যদিকে, লেখিকা তসলিমা নাসরিনও সৃজিত-মিথিলার বিয়েকে সাধুবাদ জানিয়েছেন। প্রসঙ্গত, বিয়ের পরের দিনই সুইৎজারল্যান্ডে পাড়ি দিয়েছেন ‘মিস্টার অ্যান্ড মিসেস মুখুজ্জ্যে’। জেনিভার এক বিশ্ববিদ্যালয়ে মিথিলার পিএইচডি আবেদন সেরে হানিমুনে গিয়েছেন গ্রীসে।

[আরও পড়ুন:‘ছিঁড়বে কাঁটাতার, মরবে বিদ্বেষ’, সৃজিত-মিথিলার বিয়ে প্রসঙ্গে মানবতার বার্তা তসলিমার ]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং