৯ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

সুশান্ত ইস্যুতে রিয়া-সৌভিকের জবাবে সন্তুষ্ট নয়, পলিগ্রাফ পরীক্ষার পথে হাঁটতে পারে সিবিআই!

Published by: Suparna Majumder |    Posted: August 30, 2020 9:02 pm|    Updated: August 30, 2020 10:52 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: টানা ৩ দিন জিজ্ঞাসাবাদের পরও নাকি রিয়া চক্রবর্তী (Rhea Chakraborty) এবং তাঁর ভাই সৌভিক চক্রবর্তীর (Showik Chakraborty) বয়ানে সিবিআইয়ের গোয়েন্দারা সন্তুষ্ট নন। সূত্রের খবর, সত্যি-মিথ্যে জানতে এবার দু’জনের পলিগ্রাফ টেস্ট করার কথা ভাবছেন গোয়েন্দারা। সুশান্ত (Sushant Singh Rajput) মামলায় আরও এক-দু’দিন রিয়া ও সৌভিককে জিজ্ঞাসাবাদ করতে চান গোয়েন্দারা। তারপরই নাকি পলিগ্রাফের সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। রবিবার রিয়া, সৌভিকের পাশাপাশি সুশান্তের বন্ধু তথা ক্রিয়েটিভ ম্যানেজার সিদ্ধার্থ পিঠানি (Sidharth Pithani), রিয়ার সহযোগী স্যামুয়েল মিরান্ডাকে (Samuel Miranda) জিজ্ঞাসাবাদ করেছেন গোয়েন্দারা। সুশান্তের দিদি মীতু সিংকেও DRDO গেস্ট হাউসে ডেকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। সোমবার ফের রিয়া ও সৌভিককে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডাকার সম্ভাবনা প্রবল। এরই মধ্যে সোশ্যাল মিডিয়ায় খবর ছড়িয়েছে, জিজ্ঞাসাবাদের সময় নাকি সহযোগিতা না করার জন্য রিয়াকে থাপ্পড় মারেন সিবিআই আধিকারিক। শোনা এও গিয়েছে, সিবিআইয়ের জিজ্ঞাসাবাদের মুখে স্যামুয়েল মিরান্ডা জানিয়েছেন ইউরোপ সফর থেকে ফেরার পর থেকেই নাকি অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন সুশান্ত। আর্থিক দিক নিয়ে চিন্তায় থাকতেন। একেক সময় কারও সঙ্গে কথা বলতেন না সুশান্ত। কখনও কাঁদতেন, কখনও আবার মাঝরাতে বেরিয়ে ভগবানের ছবিতে আলিঙ্গন করে আবার শুতে চলে যেতেন।

 

[আরও পড়ুন: চলচ্চিত্রকে বাঁচান! কেন্দ্রের কাছে সিনেমা হল খোলার আরজি জানালেন দেব]

এরই মধ্যে সুশান্ত মামলায় ‘Darknet’ তথ্য উঠে এসেছে। নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরো (NCB) সূত্রে খবর, রিয়ার হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাট থেকে CBD অয়েল, MDMA, গাঁজা, হ্যাশ, মারিজুয়ানার মতো মাদকের নাম উঠে এসেছে। মনে করা হচ্ছে, মাদক গুলি ‘Darknet’-এর মাধ্যমেই আনানো হত। ডার্কনেটের মাধ্যমে ভুয়ো আইডি তৈরি করে অপরাধ জগতের বিভিন্ন সরঞ্জাম আনানো যেতে পারে। এই ডার্কনেটের মাধ্যমেই বহু অবৈধ ব্যবসাও চলে। তেমন কিছু সুশান্ত মামলায় হয়েছে কিনা তা খতিয়ে দেখছেন NCB-র আধিকারিকরা। উল্লেখ্য, এর আগেই শোনা গিয়েছিল, দিশার মৃত্যুর দিন সুশান্তের উপস্থিতিতে ৮টি হার্ড ডিস্ক নষ্ট করা হয়েছিল। সিদ্ধার্থ পিঠানি নাকি দাবি করেছেন, সুশান্তের নির্দেশেই হার্ড ডিস্কগুলি নষ্ট করা হয়েছিল। তাতে কী এমন ছিল, সেই তথ্যও জানার চেষ্টা চলছে বলে জানা গিয়েছে।

ঘটনায় গোয়ার হোটেল ব্যবসায়ী গৌরব আর্যের (Gaurav Arya) নাম উঠে এসেছে। এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টোরেটের (ED) পক্ষ থেকে গৌরবকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মুম্বই ডেকে পাঠানো হয়েছে। মুম্বইয়ের জন্য রওনাও দিয়েছেন গৌরব। তার আগে জানিয়েছেন, সুশান্ত সিং রাজপুতকে তিনি চিনতেন না। রিয়ার সঙ্গে পরিচয় আছে। ২০১৭ সাল থেকে রিয়াকে চেনেন গৌরব। সোমবার গৌরবকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হতে পারে বলে খবর।

[আরও পড়ুন: ‘আশ্রম’ রিভিউ: চেনা মাঠেই ভিত গড়লেন প্রকাশ ঝা, রাম রহিমের স্মৃতি ফেরালেন ববি দেওল]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement