২২ আষাঢ়  ১৪২৭  মঙ্গলবার ৭ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

মাস্ক না পরার ‘শাস্তি’! স্বাস্থ্যবিধি অমান্য করে কমেডিয়ান বীর দাসের মুখের সামনে কেশে দিলেন প্রৌঢ়

Published by: Bishakha Pal |    Posted: May 25, 2020 3:01 pm|    Updated: May 25, 2020 3:01 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: দেশজুড়ে করোনার আবহ। সবাইকে সামাজিক দূরত্ব মানতে বারবার নির্দেশ দিচ্ছে প্রশাসন। হাঁচি-কাশির সময় কনুই দিয়ে নাক-মুখ ঢাকতে নির্দেশ দেওয়া হচ্ছে যাতে করোনা না ছড়ায়। আর এমন পরিস্থিতিতেই অভিনেতা-কমেডিয়ান বীর দাসের সামনে এসে কিনা কেশে দিলেন এক প্রতিবেশি। তাও আবার ইচ্ছা করে। ওই প্রতিবেশির অভিযোগ, বীর নাকি মাস্ক পরেননি। সেই কারণেই তিনি কেশেছেন। অদ্ভুত যুক্তি!

ওই ব্যক্তি বীরের প্রতিবেশি। গোটা ঘটনার ভিডিও অভিনেতা শেয়ার করেছেন তাঁর টুইটার প্রোফাইলে। সেখানে তিনি লিখেছেন, তাঁর বন্ধু কবি তিনটি বাড়ি পরে থাকে। সেদির রাতে তিনি বন্ধুকে ডেকেছিলেন রাতের খাবার দেবেন বলে। বীর তাঁর বাড়ির দোরগোড়াতেই ছিলেন। তখনই ঘটে এসব গন্ডগোল। ভিডিওয় দেখা যাচ্ছে, অভিনেতা বারবার ওই ব্যক্তিকে বলছেন, তিনি যেন ১৫ ফিট দূরত্ব বজায় রাখেন। কিন্তু তিনি কথা কানেই তুলছেন না। উলটে মাস্ক না পরার জন্য অভিনেতাকে শাপ-শাপান্ত করে যাচ্ছেন অবিরাম।

[ আরও পড়ুন: বাংলা ওয়েব সিরিজে ডেবিউ অভিষেকের, পাওলির ‘কালী’তে দেখা যাবে অভিনেতাক ]

বীর জানিয়েছেন, তিনি ও তাঁর প্রতিবেশি কয়েকজন বন্ধু প্রায়ই এমন করে থাকেন। নিজে ভালমন্দ কিছু রান্না করলে একে অপরকে ডেকে খাওয়ান। এদিনও তেমনই ঘটেছিল। তাঁর এক প্রতিবেশি ক্যানে করে তাঁর বাড়িতে রান্না হওয়া খাবার নিয়ে এসেছিলেন। তাঁরা ১৫ ফুট দূরত্বে তাঁকে একটি চেয়ার দেন। সম্পূর্ণ সামাজিক দূরত্ব মেনেই বাক্যালাপ চলছিল। এমন সময় ওই ব্যক্তি ঘটনাস্থলে এসে উপস্থিত হন। এসেই নাকি তিনি রাগারাগি শুরু করেন। অভিনেতার মতে, তিনি যে বাড়িটিতে ভাড়া থাকেন সেটি তাঁর বাড়ির মালিক উত্তরাধিকার সূত্রে পেয়েছিলেন। কিন্তু ওই ব্যক্তি পাননি। এটাই রাগের সূত্রপাত। তারপর অভিনেতাকে তিনি বলতে থাকেন, তিনি কেন মাস্ক পরেননি। বীর যতবার বলছেন তিনি বাড়ির মধ্যে আছেন, মাস্ক কেন পরবেন, ওই ব্যক্তি গ্রাহ্যই করছিলেন না। তিনি যে ভুল বলছেন না, তার প্রমাণস্বরূপ বীর ভিডিওয় নিজের বাড়ির চৌকাঠ পর্যন্ত দেখান। কিন্তু ওই ব্যক্তি মানতে রাজি নন। ওই ব্যক্তিকে বীর বারবার অনুরোধ করতে থাকেন তিনি যেন ১৫ ফুট দূরত্ব থেকে কথা বলেন। কিন্তু ওই ব্যক্তি একবারও তা শোননি। উলটে বীরের মুখের সামনে এসে মাস্ত সরিয়ে কেশে দেন তিনি। এরপর আবার বীরকে বলতে থাকেন, তাঁর বাবা-মা মারা গিয়েছেন। রোজ রাতে তাঁরা বীরকে এসে ভয় দেখাবেন।

ঘটনার পর অভিনেতার বেশিরভাগ বন্ধু তাকে সমর্থন করেছিলেন। কুব্রা সইত লিখেছেন, “এত শান্ত থাকার জন্য তোমায় কুর্নিশ। সাবথানে থেকো শিবানী ও বীর।” সায়ানী গুপ্ত লিখেছেন, “এটি নির্ভেজাল হয়রানির ঘটনা। ভুতুড়ে হুমকির সাথে অভিশাপ দিয়েছে। একটু পাগল মনে হল। সেটাই ভীতির কারণ। নিরাপদ থেকো।”

[ আরও পড়ুন: করোনায় আক্রান্ত হয়ে প্রয়াত বরুণ ধাওয়ানের মাসি, গায়েত্রী মন্ত্র পোস্ট করে শ্রদ্ধাজ্ঞাপন অভিনেতার ]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement