BREAKING NEWS

২৬ বৈশাখ  ১৪২৮  সোমবার ১০ মে ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

কোভিড পরিস্থিতির বাধা পেরিয়ে বইপার্বণের স্বাদ পাবেন শহরবাসী, শুরু হচ্ছে ‘বইমেলা ২০২১’

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: January 24, 2021 5:57 pm|    Updated: March 24, 2021 7:18 pm

BookFair

সুলয়া সিংহ: কোভিড (COVID-19) কাঁটায় এবার ফি বছরের মতো চেনা ছন্দে ধরা নাও পড়তে পারে কলকাতা আন্তর্জাতিক বইমেলা। কিন্তু শীতের শহরে বইয়ের মেলা হবে না? তা বড়ই বেমানান। তাই তিলোত্তমার পূর্ণ ছন্দ ফিরিয়ে দিতে আয়োজন করা হচ্ছে বইমেলার (Book Fair)। উদ্যোক্তা ‘বর্ণপরিচয়’। আগামী সপ্তাহে উত্তর কলকাতার আমহার্স্ট স্ট্রিটের হৃষিকেশ পার্ক সেজে উঠছে বইয়ের মেলায়। শুরু হচ্ছে ‘বইমেলা ২০২১’। থাকবে বইয়ের স্টল, লিটল ম্যাগাজিন, অনলাইন ম্যাগাজিন গ্যালারি। থাকবে সাংস্কৃতিক মঞ্চও। ফলে বইমেলার স্বাদ আর অধরা থাকবে না।

‘বর্ণপরিচয়’ পরিচালিত বইমেলার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন আগামী ২৮ তারিখ। ওই দিন বিকেল চারটেয় ঘন্টা বাজিয়ে মেলার সূচনা হবে। থাকছে জমজমাট অনুষ্ঠান। ৩১ জানুয়ারি রবিবার রাতে শেষ। এই চারদিনের মধ্যে বাড়তি আকর্ষণ, ৩০ জানুয়ারি সন্ধেবেলা শান্তিনিকেতন থেকে মেলায় আসছে বাউল শিল্পীরা। মেলায় বইয়ের স্টলের পাশাপাশি চলবে সাহিত্য নিয়ে আলোচনা, প্রকাশিত হবে নতুন বই। নিজেদের সম্ভার নিয়ে হাজির থাকবে বইপাড়াও। বইপ্রেমীদের জন্য ‘বইমেলা ২০২১’এর উপহার, ২৫ শতাংশ ছাড়ে বই কেনার সুযোগ! এ বড় কম পাওয়া নয়। খাদ্যরসিকদের জন্য থাকছে সুখবর। বইমেলায় থাকবে খাবারের স্টলও।

[আরও পড়ুন: কালীঘাটে উদ্ধার বস্তা ভরতি পোড়া টাকা, হুড়োহুড়ি স্থানীয়দের, এলাকায় চাঞ্চল্য]

তবে ২৮ তারিখ বইমেলার আনুষ্ঠানিক সূচনার আগেও চমক থাকছে। ২৬ জানুয়ারি অর্থাৎ সাধারণতন্ত্র দিবসে ট্রাম ট্যাবলো যাত্রা শুরু হবে। বইয়ে ঠাসা চলন্ত ট্রামে চলবে গান, সাহিত্যচর্চা। বিশেষ ট্রামটির যাত্রাপথ ধর্মতলা থেকে শ্যামবাজার। এ বছর কলকাতার বুকে একটু অন্য ধরনের বইমেলার এই উদ্যোগে সমন্বয় কমিটিকে সহযোগিতা করছে নেক্সটজেন মিডিয়া। মেলার আয়োজনে ‘বর্ণপরিচয়’-এর পাশাপাশি ‘রাইস’, ‘অ্যাডামাস বিশ্ববিদ্যালয়’, ‘সংবাদ প্রতিদিন’, ‘নিউজ 18 বাংলা’, ‘ফ্রেন্ডস এফএম’, ‘বিশ্ব বাংলা সংবাদ’, ‘কলকাতা ট্রাম কোম্পানি’, পশ্চিমবঙ্গ সরকারের বিভিন্ন দপ্তর, কলকাতা পুরসভা-সহ বিভিন্ন সংস্থা।

[আরও পড়ুন: জন্মশতবর্ষে সত্যজিতকে শ্রদ্ধার্ঘ্য কলকাতা পুরসভার, অপ্রকাশিত চিঠি ও রচনাগুচ্ছ ‘পুরশ্রী’তে]

বইমেলা কমিটির চেয়ারম্যান দীপ প্রকাশনের কর্ণধার শঙ্কর মণ্ডল বলেন, “এই উদ্যোগ বইপ্রেমীদের প্রাণের টান। হয়ত স্থানাভাবে ও সময়াভাবে তেমন বড় করা গেল না, কিন্তু আমরা নিশ্চিত যে এই বইমেলাও তৃপ্তি দেবে।” কমিটির আহ্বায়ক দেব সাহিত্য কুটিরের ডিরেক্টর রূপা মজুমদার বলেন, “এটি নিউ নর্মাল বইমেলা। কোভিডে প্রকাশকদের ব্যবসা ও মনে যে ভাঁটার টান এসেছিল, তা থেকে ঘুরে দাঁড়ানোর বইমেলা। যেভাবে প্রকাশকরা এগিয়ে এসেছেন, আমরা অভিভূত। কষ্ট হচ্ছে এই ভেবে যে স্থানাভাব ও কোভিড সতর্কতায় সকলকে স্থান দেওয়া যাচ্ছে না। যথাসাধ্য চেষ্টা হচ্ছে।”

আসলে চারদিকে সবরকম মেলা হচ্ছে। জেলায় জেলায়ও বইমেলা হচ্ছে। তাহলে কলকাতায় বইমেলা কেন নয়? এই তাগিদ থেকেই হৃষিকেশ পার্কে বইমেলার আয়োজন। আগামী সপ্তাহেই বইপ্রেমী, প্রকাশক, সাহিত্যিকদের অন্যতম গন্তব্য হয়ে উঠতে চলেছে এই বইমেলা। রবিবার বইমেলা কমিটির বৈঠকে বিভিন্ন সিদ্ধান্ত হয়। মাঠ ঘুরে দেখেন সদস্যরা।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement