২৮ অগ্রহায়ণ  ১৪২৬  রবিবার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিতরে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়কে হেনস্তার ঘটনায় সরগরম রাজ্য রাজনীতি। চলছে অভিযোগ, পালটা অভিযোগ, দায় চাপানো আবার তার পালটা সাফাই দেওয়ার পালা। এই ইস্যুতেই ফেসবুক পোস্ট করে বিতর্কে জড়ালেন মীর। তাঁর পোস্ট ঘিরে দ্বিধাবিভক্ত নেটদুনিয়া। কেউ কেউ কড়া ভাষায় ওই পোস্টের সমালোচনা করছেন। আবার নেটিজেনদের একাংশ মীরের রসবোধের প্রশংসায় পঞ্চমুখ।

[আরও পড়ুন: আদর-আড়ম্বর ফিকে, তবু সন্ধ্যাপ্রদীপ জ্বালিয়ে রাখে মানভূমের চিরায়ত ভাদু]

গত বৃহস্পতিবার এবিভিপি-র নবীনবরণ অনুষ্ঠানে যোগ দিতে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে আমন্ত্রিত হিসাবে যান বাবুল সুপ্রিয়। কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর আসা নিয়ে অশান্তির সূত্রপাত। টানা ছ’ঘণ্টা ধরে কার্যত তাঁকে ঘিরে ধরে হেনস্তা করা হয়। কখনও চুলের মুঠি টেনে ধরা হয় তাঁর। আবার কখনও জামা ছিঁড়ে দেওয়ার চেষ্টাও করা হয়।
Debanjan Ballav
ঐতিহ্যবাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ওইদিন সন্ধেয় কার্যত আগুন জ্বলে ওঠে। সেই ঘটনায় রাজনৈতিক টানাপোড়েন অব্যাহত। এই ইস্যুতে ফেসবুক পোস্ট করেন বিখ্যাত রেডিও জকি মীর আফসার আলি। একটি ‘বাবুল’ পেস্টের ছবি শেয়ার করে তিনি লেখেন, “যাদবপুর ইউনিভার্সিটির ছাত্র ছাত্রীদের খুব প্রিয় পেস্ট।”

সোশ্যাল মিডিয়ায় মীরের অনুরাগীদের সংখ্যা যে যথেষ্ট তা নতুন করে বলার কিছুই নেই। তাই মুহূর্তের মধ্যেই রিঅ্যাকশন এবং কমেন্টের ঝড় বয়ে যায়। সেলিব্রিটির ফেসবুক পোস্ট নিয়ে নেটিজেনরা দ্বিধাবিভক্ত। কেউ কেউ বলছেন, “একজন বিচক্ষণ মানুষ হওয়া সত্ত্বেও পুরোটা না বিচার করে কোনও মন্তব্য করা ঠিক নয়।”

Mir

আবার কারও বক্তব্য, যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো নিন্দনীয় ঘটনা নিয়ে পোস্ট করে কার্যত ‘ভুল’ করেছেন মীর। কেউ কেউ আবার তাঁকে মনোরোগ বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিতেও বলেছেন। 

Mir

 

[আরও পড়ুন: ‘জাতীয় সংগীত পরিবর্তনের কথা বলিইনি’, ফের অভিযোগ অস্বীকার গায়ক নোবেলের]

তবে শুধুই যে তিনি সমালোচিত হয়েছেন, তা বলা ভুল হবে। রাজনীতির কথা দূরে সরিয়ে বহু নেটিজেনেরই বক্তব্য, এই ফেসবুক পোস্টের মাধ্যমে আরও একবার মীরের তুখড় রসবোধই ফুটে উঠেছে।

Mir

যদিও এই ফেসবুক পোস্ট ঘিরে বিতর্ক নিয়ে এখনও পর্যন্ত একটি বাক্যও খরচ করেননি মীর।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং