১ অগ্রহায়ণ  ১৪২৬  সোমবার ১৮ নভেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক:  গত বৃহস্পতিবার কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়র যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রবেশ নিয়ে ধুন্ধুমার পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছিল। অগ্নিগর্ভ হয়ে উঠেছিল গোটা যাদবপুর চত্বর। সোশ্যাল মিডিয়াতেই হোক কিংবা উপস্থিত থেকে, ভিন্ন ক্ষেত্র থেকে একের পর এক শিল্পী সেই ঘটনার তীব্র ধিক্কার জানিয়ে সমর্থন করেছেন ছাত্রছাত্রীদের। সেই তালিকায় ছিলেন বাচিক শিল্পী উর্মিমালা বসুও। যাদবপুরের পড়ুয়াদের সমর্থনে মুখ খুলেছিলেন তিনি। তার জেরেই কদর্য আক্রমণের শিকার হতে হল তাঁকে। সোশ্যাল মিডিয়ায় অশ্লীলভাবে ট্রোলড হতে হল উর্মিমালা বসুকে।

[আরও পড়ুন: মুম্বইয়ের স্টেশনে হেলায় পড়ে পণ্ডিত রবিশংকরের মহামূল্যবান নথি, উঠছে প্রশ্ন ]

উর্মিমালা বসুর ট্রোলড হওয়া নিয়ে ইতিমধ্যেই গর্জে উঠেছে রাজ্যের সংস্কৃতিমহল। নিজের লেখায় তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন কবি জয় গোস্বামী। আর সোশ্যাল মিডিয়ার ওই কুরুচিকর মিমের বিরুদ্ধেই এফআইআর দায়ের করছেন শিল্পী উর্মিমালা বসু। মঙ্গলবার বেলা গড়াতেই এমন খবরই পাওয়া গেল শিল্পীর কাছ থেকে। উল্লেখ্য, কুরুচিকর ওই মিমে উর্মিমালা বসুকে ‘যৌনদাসী’র আখ্যা দেওয়া হয়। যার বিরুদ্ধে ছিছিক্কার পড়ে গিয়েছে গোটা রাজ্যজুড়ে।

ঘটনার সূত্রপাত দিন তিন-চারেক আগে। বৃহস্পতিবার এবিভিপির নবীন বরণ অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত ছিলেন বাবুল সুপ্রিয়। তবে, বামপন্থী মনোভাবাপন্ন ছাত্রছাত্রীরা ঢুকতে বাধা দেন তাঁকে। শুধু তাই নয়, মন্ত্রীর গায়ে হাতও তোলেন। যার জেরেই পরিস্থিতি আরও বেগতিক হয়ে ওঠে। পালটা দেওয়া হয় এবিভিপির তরফ থেকেও। দিন কয়েক গড়ালেও এখনও কিন্তু অশান্তির আঁচ রয়ে গিয়েছে। এর মাঝেই ছাত্রছাত্রীদের পাশে দাঁড়ান উর্মিমালা বসু। বলেন, “বাবুলের উচিত বাচ্চাগুলোর কাছ থেকে ক্ষমা চেয়ে নেওয়া।” যার জেরে পালটা উর্মিমালা বসুকেও ক্ষমা চাইতে বলা হয় বাবুলের কাছে। কিন্তু তিনি চাননি। ক্ষমা না চাওয়ার পর থেকেই এহেন কদর্য ভাষায় আক্রমণ করা শুরু হয় উর্মিমালা বসুকে। 

[আরও পড়ুন: যাদবপুর কাণ্ড নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট, সমালোচিত মীর]

উর্মিমালা বসুর প্রতি হওয়া আক্রমণের তীব্র নিন্দা করেছেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়। যেই ঘটনার জেরে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে ক্ষমা চেয়ে নিয়েছেন বাবুল নিজে। প্রতিবাদ করে টুইটারে তিনি লিখেছেন, “এই ধরনের আচরণ একেবারেই কাম্য নয়৷ আমি ওনাকে ব্যক্তিগতভাবে চিনি৷ যাদবপুর কাণ্ডে উনি যা বলেছেন তাঁর উত্তর আমি দেব যথা সময়ে৷ কিন্তু এই ধরনের নোংরা মিম একেবারেই সমর্থনযোগ্য নয়।”

https://twitter.com/SuPriyoBabul/status/1176380747986268160

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং