৩১ শ্রাবণ  ১৪২৬  শনিবার ১৭ আগস্ট ২০১৯ 

BREAKING NEWS

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

৩১ শ্রাবণ  ১৪২৬  শনিবার ১৭ আগস্ট ২০১৯ 

BREAKING NEWS

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক:  তিনি বাঙালির আন্তর্জাতিক অহঙ্কার৷ সচেতনভাবে সমসমায়িক৷ সময়ের ধুলো যেন তাঁর আভিজাত্যের সৌন্দর্য স্পর্শ করে না৷ এ চেনা পৃথিবী থেকে তিনি দূরে থাকেন না৷ এই তো তিনি অভিনয় করছেন, কবিতা লিখছেন-পড়ছেন৷ থিয়েটারি আলো-আঁধারিতে এই তো মাত্র কয়েক হাত দূরে তাঁর অবস্থান৷ তবু তাঁকে ঘিরে থাকে এক আশ্চর্য আলোকবৃত্ত৷ মন আর মননের সেই অনুশীলিত আলোর জোরেই অতি চেনা পৃথিবীর ক্লিশে তাঁকে গ্রাস করে না৷ এ এক যেন আশ্চর্য নাগরিক উপন্যাস৷ যার পরতে পরতে মিশে আছে শহরের ঘাম-ধুলো৷ আর সেই চেনা পৃথিবীর পথ ভাঙতে ভাঙতেই তা পৌঁছে যাচ্ছে মেধার সেই আকাশে, যেখান থেকে তাঁকে মনে হয় দূরতম কোনও নক্ষত্র৷ যে নক্ষত্রদ্যুতি কয়েক দশক ধরে আমাদের অভিভূত করে রেখেছে৷

তিনি সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়৷ বয়স তো সংখ্যামাত্র৷ তিরাশিতে পা দিয়েও আজও তিনি যুবকের প্রেরণায় কাজ করে চলেছেন অনায়াসে৷

20160825_131141 soumitra-1_web

বস্তুত বাঙালির জীবনের ছোট গল্পের পরিসর সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়কে যেন মাঝে মধ্যেই ধরে উঠতে পারে না৷ এমন বহুমুখী বাঙালির দেখা মেলা ভার৷ প্রথমত তিনি অভিনেতা৷ তারপর হয়তো তিনি কবি, নাট্য ব্যক্তিত্ব, সম্পাদক ইত্যাদি ইত্যাদি৷ কিন্তু আসলে তিনি বাঙালির অভিজাত সংস্কৃতির সার্থক ধারক৷ আসলে তিনি বাঙালির শিক্ষিত চেতনার জাগপ্রদীপ৷ বহু বৈচিত্রেও তাই অদ্ভুত নির্লিপ্তি যেন তাঁর সহজাত৷ পর্দা ও পর্দার বাইরে মিলেমিশে যে সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় বাঙালির মননে জায়গা করে নিয়েছেন তাঁকে ব্যাখ্যা করার চেষ্টা বৃথা৷ বরং বহু স্তরভেদে তাঁকে ছুঁয়ে ছুঁয়ে গিয়ে টের পাওয়া যায় বাঙালির সংস্কৃতির ঐশ্বর্য৷ কোন জাগরূক অবস্থা আমাদের প্রার্থিত ছিল, আর কোথায় আমাদের পৌঁছানোর ছিল সেই রেখাচিত্র যেন তিনি তাঁর জীবনব্যপী কাজকর্মে তুলে ধরেন৷ দাদাসাহেব ফালকে সেখানে একটি মাইলস্টোন মাত্র, আসলে সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় বাঙালির মঙ্গলকাব্যের এক চরিত্র, যিনি বাঙালিকে ভবিষ্যতেও চিনিয়ে দেবেন তার স্মৃতি ও সত্তা৷

Soumitra-2
চিত্রনাট্যের খসড়া৷ নিজস্ব ছবি৷

এ যেন তাঁর কর্তব্যই ছিল৷ নির্লিপ্ত হয়েই তিনি এই গুরুকাজ অবলীলায় করে চলেছেন৷ সঞ্জয় মুখোপাধ্যায় তাই যথার্থই বলেন, “সকলে নন, কেউ কেউ পারেন অভিনেতা হতে৷ তাদের স্বাক্ষর নির্জন৷ তেমন নির্জনতা সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের আছে৷ কোনও তুলনা ও প্রতি তুলনা তাঁর নির্বাক কিংবা মুখর মুখের সৌন্দর্যে ছায়া ফেলতে পারবে না৷” এ তাঁর সযত্নে রচিত প্রাসাদ৷ সঞ্জয়বাবু যেমন বলেন, “বলতে চাইছি নিজের মুদ্রাদোষে একা ও আলাদা হয়ে যাওয়ার কৃতিত্ব ও সাহস তাঁর আছে৷ শিল্পী সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় সত্যজিৎ রায়ের কাছে নিশ্চিতভাবে ঋণী কিন্তু সত্যজিৎ-সর্বস্ব নয়৷” দশকের পর দশক পেরিয়ে বাঙালি হয়তো এতদিনে ক্রমশ চিনে নিতে পারছে সংস্কৃতির এই অভিজাত ধারকমুদ্রাটিকে৷

খেরোর খাতা
খেরোর খাতা

আর এই পথে হাঁটতে হাঁটতে তাঁকেও হয়ে উঠতে হয়েছে নীলকণ্ঠ৷ বলেন তাই,  “আমার সম্ভাবনা, আমার অভিনয় করার ক্ষমতা, আমার শ্রম- আমি বিক্রি করি-এই আমার পেশা৷ কিন্তু এই শ্রম বেশিরভাগ বাঙালির সংগ্রাম সংগঠনে কোনও কাজেই আসে না৷ কারণ আমার শ্রম ও সৃষ্টিশীলতা যারা কেনে তারা আমার বাসনা, আমার মানসিকতা, আমার আদর্শকে কেনে না৷ তারা আমার থেকে আমার অভিনয় করার ক্ষমতাটুকু নিষ্কাশিত করে নেয়৷ এবং তা দিয়ে ব্যবসা করে৷ অতএব এক সুদীর্ঘ বিছিন্নতার জন্ম হয় আমার ব্যক্তিত্ব ও আমার স্বাভাবিক বৃত্তিগুলির মধ্যে৷ আমার ভাবনা ও আমার কাজের মধ্যে দূরত্ব দুস্তর হয়৷” এই দ্বন্দমুখরতা তাঁকে রক্তাক্ত করে৷ তবু প্রকৃত শিল্পীই পারেন সেই রক্তকে রক্তগোলাপ করে ফুটিয়ে তুলতে পারে৷ আপামর জনগণ তাতে মুগ্ধ হয়৷ তবু সময় সময় আসে যখন এ আমি’র আবরণ সরিয়ে চিনে নিতে হয় মানুষটিকে৷ আমরা দেখতে পাই এই নাগরিক বৃত্তের মধ্যেই তিনি জেগে আছেন এক শাপভ্রষ্ট দেবদূত হয়েই৷

জন্মদিনে প্রণাম কিংবদন্তিকে৷

সংবাদ প্রতিদিন ও দেজ পাবলিকেশন নিবেদিত সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়কে নিয়ে প্রদর্শনী:

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং