৫ মাঘ  ১৪২৭  মঙ্গলবার ১৯ জানুয়ারি ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

গ্ল্যামারের দেখনদারি ছাড়া আর কিছুই নেই, মন ভরাল না ‘ফ্যাবিউলাস লাইভস অফ বলিউড ওয়াইভস’

Published by: Suparna Majumder |    Posted: November 28, 2020 9:54 pm|    Updated: November 28, 2020 10:12 pm

An Images

সুপর্ণা মজুমদার: ভারতবর্ষে জন্ম নিয়ে হিন্দি ভাষা বলা বড্ড কষ্টকর ইংরেজরা চলে যাওয়ার এত বছর পরেও। জীবনের বড় স্ট্রাগল ছেলে কিংবা মেয়ে বলিউডের তারকা করে তোলা। ফেসিয়াল করে কার চেহারায় কতটা গ্লো এল তা দেখা অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। ‘লা বল’ (ফরাসি ভাষায় প্রম নাইটকে বলা হয়) ছাড়া বড় হয়ে ওঠাই বৃথা। আবার কেউ যদি মহান সেই নাচকে ‘বেলি ডান্সিং’ ভেবে ফেলেন, হাসির খোরাক হয়ে ওঠেন। গয়নার বার্গেনিং শুরু হয় এক লক্ষ টাকা থেকে (টাকার অভাবে কত পড়ুয়া ভারচুয়াল ক্লাস করতে পারল না কে জানে?)। করণ জোহরের ‘ফ্যাবিউলাস লাইভস অফ বলিউড ওয়াইভস’ (Fabulous Lives of Bollywood Wives) না দেখলে এত কিছু জানাই যেত না।

নেটফ্লিক্সের (Netflix) এই ডকু-ফিচার রিয়ালিটি সিরিজ অবশ্য করণ জোহরের (Karan Johar) মস্তিষ্কপ্রসূত নয়। হলিউডের ‘কিপিং আপ উইথ দ্য কার্ডাশিয়ানস’ শোয়ের অনুপ্রেরণায় (এখন আর নকল বলা যায় না) তৈরি। নামও অন্যের থেকে ‘চালাকি’ করে নেওয়া। নেহাত মধুর ভান্ডারকর (Madhur Bhandarkar) সোশ্যাল মিডিয়ায় যুদ্ধ ঘোষণা করেছিলেন। নেপোটিজমের বাজারে করণ জোহর ক্ষমা চেয়ে বিষয়টি মিটিয়ে নিয়েছেন।

[আরও পড়ুন: অনির্বাণের স্ত্রীর শারীরিক গঠন নিয়ে নেটদুনিয়ায় কুরুচিকর মন্তব্য, যোগ্য জবাব দিলেন অনুরাগীরা]

সমস্ত বিতর্কের অবসান ঘটিয়েই শুক্রবার মুক্তি পেয়েছে সিরিজটি। কাহিনি আবর্তিত হয়েছে সঞ্জয় কাপুরের স্ত্রী মাহিপ কাপুর (Maheep Kapoor), সোহেল খানের স্ত্রী সীমা খান (Seema Khan), চাঙ্কি পাণ্ডের স্ত্রী ভাবনা পাণ্ডে (Bhavana Pandey) এবং প্রাক্তন অভিনেত্রী নীলমকে (Neelam) কেন্দ্র করে। শেষ এপিসোডে গেস্ট হিসেবে দেখা গিয়েছে শাহরুখ খান (Shahrukh Khan) ও গৌরী খানকে (Gauri Khan)। এছাড়াও রবিনা ট্যান্ডন, সিদ্ধার্থ মালহোত্র, অর্জুন কাপুর, মালাইকা অরোরা, জাহ্নবী কাপুর, অনন্যা পাণ্ডের মতো একাধিক তারকার উপস্থিতি রয়েছে। প্রযোজক করণ জোহর মাঝে আবার নিজের ‘কফি উইথ করণ’-এর ফ্লেভার ঢুকিয়েছেন। ১৩০ কোটির ভারতবর্ষে এমন এক গ্ল্যামার জগৎ রয়েছে যাঁদের লোকাল ট্রেনের ভিড়ের পরোয়া করতে হয় না, মাসমাইনের তোয়াক্কা করতে হয় না। ওয়াইন পান করতে করতে যাঁরা বিমানের ফার্স্টক্লাসের টার্বুল্যান্সে বেজায় ভয় পান। আবার দোহার বিলাসবহুল হোটেলে হলিউড তারকার ছোঁয়া বিছানায় পেয়ে বেজায় খুশি হন।

সিরিজের প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত নীলম প্রশ্ন করে গিয়েছেন তাঁর বলিউডে কামব্যাক করা উচিত কিনা। এই প্রশ্নের উত্তর নীলম ছাড়া আর কারও পক্ষে দেওয়া দুষ্কর। বিশেষ করে কারও লেখা চিত্রনাট্য নিয়ে ঠাট্টা-তামাশা করার পর। অভিনয় শিল্পে শরীর ভাবাবেগ প্রকাশের মাধ্যম হয়। খুব ছোটবেলায় শিখেছিলাম, যাবতীয় কুণ্ঠা কাটিয়েই নিজেকে মঞ্চে সঁপে দিতে হয়। সেই বিসর্জন না দিলে, নতুন করে কাঠামো গড়ে তোলা যায় না। বলিউড তারকাদের স্ত্রী বলে কি তাঁরা কাজ করেন না? করেন। প্রত্যেকেরই আলাদা পরিচয় রয়েছে। স্ট্রাগলও রয়েছে। কিন্তু তার বদলে এই সিরিজে শুধুমাত্র অভিজাত জীবনের দেখনদারি উঠে এল। প্রত্যেকেই যেন একতা কাপুরের (Ekta Kapoor) ধারাবাহিকে সেই নায়িকা, যিনি মেকআপ করেই ঘুম থেকে ওঠেন। বাড়িতেও স্টাইলিশ পোশাক পরে থাকেন। প্রদীপের নিচের অন্ধকারের চিহ্নমাত্র নেই। শুধুই গ্ল্যামারের ছটা। অনেকের কাছেই বিরক্তিকর ঠেকবে? কৌতূহলের প্রশ্রয়ে আবার দেখবেনও।  

[আরও পড়ুন: ওয়েব দুনিয়ায় তৃতীয় মরশুমে কতটা জমাটি হল ‘রহস্য রোমাঞ্চ সিরিজ’? পড়ুন রিভিউ]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement