২২  শ্রাবণ  ১৪২৯  সোমবার ৮ আগস্ট ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

Rocketry The Nambi Effect Review: আর মাধবনই ‘রকেট্রি: দ্য নাম্বি এফেক্ট’ ছবির প্রধান আকর্ষণ, পড়ুন রিভিউ

Published by: Suparna Majumder |    Posted: July 1, 2022 10:07 pm|    Updated: July 1, 2022 10:12 pm

Review of R. Madhavan starrer Rocketry The Nambi Effect | Sangbad Pratidin

চারুবাক: নাম্বি নারায়ণন ভারতের অন্যতম শ্রেষ্ঠ একজন রকেট বিজ্ঞানী। তাঁর হাত ধরেই ভারতীয় সংস্থা ইসরো আজকের ঈর্ষণীয় পর্যায়ে উঠতে পেরেছে। কিন্তু তাঁর জীবনের শুরুর পর্যায়টি হোমি ভাবার স্নেহ আশীর্বাদে স্বচ্ছন্দ, স্বাভাবিক হলেও মধ্য পর্যায়ে শুরু হয় পরোক্ষ রাজনীতির সঙ্গে এক ছায়া যুদ্ধ। আর এই ছায়া যুদ্ধের কারণেই নাম্বির কপালে দাগ পড়ে দেশদ্রোহিতার।  এরপর থেকেই শুরু হয় তাঁর দীর্ঘ ১৫-২০ বছরের জেল ও সংগ্রামী জীবন। অভিনেতা আর মাধবন (R Madhavan) নাম্বির এই সংঘাতময় জীবন নিয়ে তৈরি করেছেন ‘রকেট্রি: দ্য নাম্বি এফেক্ট’ (Rocketry: The Nambi Effect)।

Rocketry: The Nambi Effect

না, এ সিনেমা কখনই নাম্বির বায়োপিক নয়, কিন্তু তাঁর জীবনের এক কলঙ্কিত অধ্যায়ের কোলাজ। টুকরো টুকরো কিছু ঘটনা নিয়ে চিত্রনাট্য সাজিয়েছেন অভিনেতা। সেখানে কিন্তু কোনও ধারাবাহিকতা নেই। ছবি শুরু হয় নাম্বিকে পুলিশের গ্রেপ্তার দিয়ে। এক মন্দিরে পুজোর সময় তাঁকে ধরা হয় কোনও ওয়ারেন্ট ছাড়াই। এরপরই প্রায় বিশ বছর পর এক সংবাদমাধ্যমের অনুষ্ঠানে দেখা যায় প্রখ্যাত বিজ্ঞানীকে। সেখানে সঞ্চালকের ভূমিকায় শাহরুখ খান (Shah Rukh Khan)।  সঞ্চালকের সামনে নিজের অতীতের কাহিনি বলেন নাম্বি। তাঁর কথা অনুযায়ী এগোয় ছবির গল্প।

[আরও পড়ুন: আসছে নতুন ছবি ‘দশভূজা অ্যাকাডেমি’, রথযাত্রার দিন বড় ঘোষণা ইন্দ্রাণী হালদারের]

প্রথমাংশে সৌর ও রকেট বিজ্ঞানের বিভিন্ন তথ্য নিয়ে আলোচনা সাধারণ দর্শকের কাছে একেবারেই কোনও আবেদন রাখে না। এই অংশ কমানো উচিত ছিল। আমেরিকা এবং ফ্রান্সে গিয়ে নম্বির পড়াশোনা, বিদেশি অধ্যাপক ও বন্ধুদের সঙ্গে তাঁর নৈকট্যের পর্ব মন্দ লাগে না। ছবির দ্বিতীয়ার্ধ অনেক বেশি নাটকীয় ও জমজমাট। গ্রেপ্তারের পর পুলিশের থার্ড ডিগ্রি অত্যাচার, নায়ার নামের এক সিবিআই অফিসারের চেষ্টায় নামবির দেশদ্রোহিতার অভিযোগ থেকে মুক্তি পাওয়ার পর্যায়গুলো দর্শক উপভোগ করবেন।

Rocketry: The Nambi Effect

তবে এখানেও একটা গুরুতর প্রশ্ন থেকে যায় – নাম্বির বিরুদ্ধে গোয়েন্দাগিরির অভিযোগ কেন, কেইবা সেটা করল? নাম্বি তো রাশিয়া থেকে রকেটের যন্ত্রাংশ অনেক কম দামে কিনে লাহোর হয়েই ভারতে আসছিলেন। তাঁর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করল কে? গবেষণার স্বার্থেই উন্নিকে তাঁর ছেলের মৃত্যু সংবাদ জানাননি নাম্বি?  নাকি এখানেও ছিল ইসরোর কোনও অভ্যন্তরীণ রাজনীতি? এই প্রশ্নগুলির অর্থ পরিষ্কার হল না।

মাধবনের পরিচালনায় তেমন কোনও স্মরণীয় মুহূর্ত পেলাম না। একেবারেই সাদামাটা প্রয়োগশৈলী। তবে অসাধারণ অভিনয়ে তিনি তাঁর পরিচালনার খামতি পুষিয়ে দিয়েছেন। নাম্বি চরিত্রের গভীরে গিয়ে তাঁর আনন্দ, বিষাদ, দুঃখ, অবসাদ, সব অবস্থাকে তিনি সুন্দর ফুটিয়েছেন। মাধবনই ছবির প্রধান আকর্ষণ। তাঁর কাঁধেই ছবির পুরো সিনেমার ভার। ভালই সামলেছেন বলতে হবে। কিন্তু ছবির বিষয়টাই যেখানে ব্যতিক্রমী, সেখানে সাধারণ দর্শক কতটা আগ্রহী হবেন?  সেটাই একটা বড় প্রশ্ন।

ছবি – রকেট্রি: দ্য নাম্বি এফেক্ট
অভিনয়ে – আর মাধবন, সিমরন, রজিত কাপুর, রবি রাঘবেন্দ্র প্রমুখ
পরিচালনায় – আর মাধবন

[আরও পড়ুন: বাবা কৌশিক গঙ্গোপাধ্যায়ের পরিচালনায় নায়ক উজান, কবে মুক্তি পাচ্ছে ‘লক্ষ্মী ছেলে’?]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে