BREAKING NEWS

৭ মাঘ  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ২১ জানুয়ারি ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

মুক্তির কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই সাড়া ফেলল ‘কেদারনাথ’-এর ট্রেলার

Published by: Sulaya Singha |    Posted: November 12, 2018 7:36 pm|    Updated: November 12, 2018 7:36 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ভিন্ন ধর্মের মধ্যে প্রেম, ঈশ্বরের প্রতি ভক্তি, দুর্দান্ত লোকেশন, ভয়াবহ প্রাকৃতিক বিপর্যয়, টানটান উত্তেজনা- ছবি সুপারহিট হতে ঠিক যা যা মশলা প্রয়োজন, ‘কেদারনাথ’ ছবির ট্রেলারে সবই ধরা পড়ল। আর তাই সোমবার ট্রেলার মুক্তি পাওয়ার পর যে এ ছবি দেখার আগ্রহ দ্বিগুণ হয়ে গেল সিনেপ্রেমীদের, তা বলাই বাহুল্য।

[OMG! এত কোটি টাকায় বিক্রি হবে নিক-প্রিয়াঙ্কার বিয়ের ছবি!]

২০১৩ সালে কেদারনাথের ভয়াবহ বন্যার প্রেক্ষাপটে হিন্দু ও মুসলিম যুবক-যুবতীর মধ্যে একটি মিষ্টি প্রেমকাহিনিই তুলে ধরেছেন পরিচালক অভিষেক কাপুর। যেখানে এক মুসলিম যুবকের ভূমিকায় দেখা যাচ্ছে সুশান্ত সিং রাজপুতকে। হিন্দু যুবতীকে কাঁধে চাপিয়ে কেদারনাথে পৌঁছে দেওয়ার দায়িত্ব তাঁর। আর সেই চলার পথেই ভালবাসার সম্পর্কে জড়ান তাঁরা। কিন্তু পথের কাঁটা হয়ে দাঁড়ায় যুবতীর পরিবার। সাফ জানিয়ে দেয়, কোনও প্রলয় না এলে এমন সম্পর্ক মেনে নেওয়া হবে না। আর তারপরই সেই ভয়ংকর বন্যার দৃশ্য ভেসে ওঠে পর্দায়। কী হল শেষ পর্যন্ত? সব বাধা টপকে জিতল ভালবাসা? তা জানতে ৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত অপেক্ষা করতেই হবে। তবে মুক্তির কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই প্রায় দু’লক্ষ দর্শক দেখে ফেলেছেন ট্রেলারটি। কিন্তু একটা বিষয় ভেবেই মন খারাপ তাঁদের। স্থানীয় পুরোহিত এবং বিজেপি নেতা-মন্ত্রীদের রোষের কোপে পড়া ছবিটি আদৌ মুক্তি পাবে তো?

[‘কেদারনাথ’-এর মুক্তি আটকাতে সেন্সর বোর্ডকে চিঠি বিজেপি নেতার]

মুক্তির আগেই বিতর্ক শুরু হয়েছে সুশান্ত সিং রাজপুতের ‘কেদারনাথ’ নিয়ে। ২০১৩ সালে কেদারনাথের ভয়াবহ বন্যার প্রেক্ষাপটে হিন্দু ও মুসলিম যুবক-যুবতীর মধ্যে একটি মিষ্টি প্রেমকাহিনিই তুলে ধরেছেন পরিচালক অভিষেক কাপুর। আর এই বিষয়টি নিয়েই আপত্তি তোলেন ওই শহরের পুরোহিতরা। তাঁদের দাবি, ছবির বিষয়বস্তু হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের ভাবাবেগে আঘাত করেছে। তাই ছবির মুক্তি যেন নিষিদ্ধ করে দেওয়া হয়। একই সুর বিজেপি নেতাদের গলাতেও।

হিন্দু ভাবাবেগ ক্ষুণ্ণ হয়েছে, এই অভিযোগেই সেন্সর বোর্ডের কাছে চিঠি লিখে ‘কেদারনাথ’ নিষিদ্ধ করার দাবি তোলেন বিজেপি নেতা অজেন্দ্র অজয়৷ ছবিতে ‘লাভ জেহাদ’কে (হিন্দু ও মুসলিম ধর্মের দুটি মানুষের মধ্যে প্রেম) প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে৷ তাঁর মতে, যে ভয়ংকর প্রাকৃতিক দুর্যোগ বহু মানুষের প্রাণ কেড়ে নিয়েছে, সেই প্রেক্ষাপটে প্রেমকাহিনি তুলে ধরাকে কোনওভাবেই সমর্থন করা যায় না। গেরুয়া শিবিরের প্রশ্ন, ছবির মুখ্যচরিত্র হিন্দু নয় কেন? ফলে সারা আলি খানের প্রথম ছবির মুক্তি নিয়ে ধোঁয়াশা তৈরি হয়েছে৷

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement