১৭  আষাঢ়  ১৪২৯  রবিবার ৩ জুলাই ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

বিবাহ আসরে হাজির পুলিশ, শেষমুহূর্তে ভেস্তে গেল ধর্ষণে অভিযুক্ত মিমোর বিয়ে

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: July 8, 2018 8:59 am|    Updated: July 8, 2018 9:02 am

Mithun Chakraborty’s son mimoh's wedding cancelled after police arrives

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ধর্ষণে অভিযুক্ত ছেলে মহাক্ষয় মিমো চক্রবর্তী। তাতে কী? বেশ ভালভাবেই ছেলের বিয়ের আয়োজন করেছিলেন অভিনেতা মিঠুন চক্রবর্তী। তামিলনাড়ুর উটিতে একটি হোটেলে বিয়ের অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছিল। বিবাহবাসরে যথা সময়েই হাজির হয়েছিল কনেপক্ষ। বিয়ের পোশাকে ছাতনাতলায় পৌঁছে গিয়েছিলেন মহাক্ষয়ও। কিন্তু রোম্যান্টিক সিনেমার মতো হ্যাপি এন্ডিং হল না। শেষমেশ ভেস্তে গেল বিয়ে।

ধর্ষণে অভিযুক্ত মহাক্ষয় বম্বে হাই কোর্টে অগ্রিম জামিনের আবেদন করেছিলেন। কিন্তু গত বৃহস্পতিবার সে আবেদন মঞ্জুর হয়নি। তবে শোনা গিয়েছিল, দিল্লি আদালত থেকে শনিবার জামিন পেয়েছিলেন মহাক্ষয়। এমন অবস্থাতেই বিয়ের পিঁড়িতে বসতে চলেছিলেন মিঠুন-পুত্র। পাত্রী অভিনেত্রী শীলা শর্মার কন্যা মাদালসা শর্মা। মাদালসা নিজেও পেশায় অভিনেত্রী। শনিবারই গাঁটছড়া বাঁধার কথা ছিল। কিন্তু বিয়ের আসরেই এসে উপস্থিত হয় পুলিশ। সেখানেই অতিথিদের সামনে ধর্ষণে অভিযুক্ত মিমোকে জেরা করতে শুরু করেন তদন্তকারী আধিকারিকরা। আর এমন দৃশ্য দেখে বেঁকে বসেন কনে। তখনই বিয়ে ভাঙার সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেন। এরপর হাজার অনুরোধ সত্ত্বেও আর বিয়ের পিঁড়িতে বসতে রাজি হননি মাদালসা। আসর ছেড়ে সেখান থেকে চলে যায় কনেপক্ষ।

[জীবনের ‘ক্রিসক্রস’ নিয়ে হাজির টলিপাড়ার পাঁচ কন্যা, দেখুন টিজার]

মহাক্ষয়ের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ এনেছেন এক অভিনেত্রীই। হিন্দি ও ভোজপুরি সিনেমায় অভিনয় করতে দেখা গিয়েছে তাঁকে। সম্প্রতি ওই অভিনেত্রীর আইনজীবী রবি সোনি জানান, চার বছর ধরে মহাক্ষয়ের সঙ্গে সম্পর্ক ছিল ওই অভিনেত্রীর। সেই সম্পর্কেরই সুযোগ নিয়েছেন মিঠুন-পুত্র। মহিলার পানীয়তে মাদক মিশিয়ে জোর করে তাঁর সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করেছেন। বিয়ের প্রতিশ্রুতিও দিয়েছিলেন। সেই কারণেই এতদিন ওই মহিলা মুখ খোলেননি। কিন্তু সময় আসতেই ভোল পালটেছেন মহাক্ষয়। অন্য কাউকে বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নিতেই শুরু হয় সমস্যা। সবকিছুর পরও মিমোকে বিয়ে করতে চেয়েছিলেন অভিযোগকারিনী। কিন্তু মিমো ও তাঁর মা যোগিতা বালি এই সম্পর্ক মানতে চাননি। তাই ধর্ষণ, জোর করে গর্ভপাত ও হুমকির অভিযোগ আনা হয় চক্রবর্তী পরিবারের সদস্যের বিরুদ্ধে।

ধর্ষণের অভিযোগ সত্ত্বেও মিমোকে বিয়ে করতে রাজি ছিলেন মাদালসা। জানিয়ে ছিলেন, হবু বরের প্রতি সম্পূর্ণ আস্থা রয়েছে তাঁর। কিন্তু জীবনের এমন বিশেষ দিনে পুলিশ হাজির হওয়ায় শেষমেশ বিয়ে ভাঙেন তিনি। এদিকে পুলিশ জানিয়েছে, ধর্ষণের ঘটনার পূর্ণাঙ্গ তদন্ত চলছে।

[অভিনেত্রীর উপর হামলা, গ্রেপ্তার অভিনেতা জয় মুখোপাধ্যায়]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে