BREAKING NEWS

১২ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২৬ মে ২০২০ 

Advertisement

ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাতের মামলা থেকে সাময়িক স্বস্তি ভারতী সিংয়ের

Published by: Bishakha Pal |    Posted: January 27, 2020 7:50 pm|    Updated: January 27, 2020 7:50 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: কিছুদিন আগে ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত করার অভিযোগ তুলে এফআইআর দায়ের হয়েছিল ভারতী সিং, রবিনা ট্যান্ডন ও ফারহা খানের বিরুদ্ধে। সেই এফআইআর প্রত্যাহারের আবেদন জানিয়ে পঞ্জাব ও হরিয়ানা হাই কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিলেন কমেডিয়ান ভারতী সিং। পুলিশের তদন্ত যাতে বন্ধ করা হয়, সেই আবেদনও জানিয়েছিলেন তিনি। সেই আবেদনের ভিত্তিতে হাই কোর্ট জানাল, ভারতী সিংয়ের বিরুদ্ধে জোর করে কোনও পদক্ষেপ পুলিশ নিতে পারবে না।

ডিসেম্বর মাসে ভারতী সিং, ফারহা খান ও রবিনা ট্যান্ডনের বিরুদ্ধে দায়ের হয় অভিযোগ। বড়দিন উপলক্ষে বিশেষ পর্ব আয়োজিত হয়েছিল এক কমেডি শোয়ে। টেলিপর্দার সেই শো’তে হাজির ছিলেন ফারহা খান এবং অভিনেত্রী তথা রিয়ালিটি শোয়ের বিচারক রবিনা। টেলিভিশনের ওই জনপ্রিয় কমেডি শো’তে ফারহা, ভারতী এবং রবিনা– এই তিনজনই একাধিকবার ‘Christianity’ (খ্রিস্টধর্ম) শব্দটি ব্যবহার করেন তাঁদের কথোপকথনের মধ্যে। আর ঠিক সেখানেই ওঠে আপত্তি।

[ আরও পড়ুন: আত্মঘাতী জনপ্রিয় টেলি অভিনেত্রী সেজল শর্মা, মৃত্যুর কারণ নিয়ে ঘনীভূত হচ্ছে রহস্য ]

কেন কোনও ধর্মের নাম করে দর্শকদের কাছে সেই বিষয়টি হাসির খোরাক করে তোলা হবে? এই প্রশ্ন তোলেন সংশ্লিষ্ট ধর্মাবলম্বীরা। ন্যাশনাল টেলিভিশনে এভাবে ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত দেওয়া সেলেবদের উচিত হয়নি। সেই দাবি তুলে প্রথমে পাঞ্জাবের অমৃতসরের থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের হয় ফারহা, রবিনা এবং ভারতীর নামে। তবে শুধু অভিযোগ জানিয়েই চুপ থাকেননি খ্রিস্ট ধর্মাবলম্বীরা। অমৃতসরের অঞ্জালায় সম্প্রতি একটি বিক্ষোভ মিছিলও বের করেন স্থানীয়রা। যার জেরে অঞ্জালা থানাও সংশ্লিষ্ট শোয়ের ভিডিও দেখে বলিউড তারকাদের নামে এঅফআইআর দায়ের করতে বাধ্য হয়। পঞ্জাবের কম্বোজ নগরের এক বাসিন্দা ওই তিনজনের বিরুদ্ধে ফের এফআইআর দায়ের করেন। ভারতীয় দণ্ডবিধির ২৯৫-এ ধারায় তাঁদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়।

সোমবার আদালতে সেই অভিযোগ প্রত্যাহার করার আবেদন জানান কমেডিয়ান ভারতী সিং। পঞ্জাব ও হরিয়ানা হাই কোর্টকে তাঁর আইনজীবী জানান, রবিনা ট্যান্ডনকে শোতে একটি শব্দের বানান বলতে বলা হয়। ট্যান্ডন সঠিকভাবে বানানটি বলেন। কিন্তু ভারতী সঠিক বানান বলতে পারেননি। এর অর্থ ভারতী শব্দটি জানেন না। বরং হিন্দিতে অন্য একটি শব্দের উল্লেখ করেন তিনি। এর থেকেই বোঝা যায়, ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানার কোনও উদ্দেশ্য তাঁর ছিল না। তারপরই হাই কোর্ট পুলিশকে জানায়, জোর করে কোনও পদক্ষেপ ভারতীর বিরুদ্ধে করা যাবে না। প্রসঙ্গত গত বৃহস্পতিবার ফারহা খান ও রবিনা ট্যান্ডনের ক্ষেত্রেও এই নির্দেশ দিয়েছিল আদালত।

[ আরও পড়ুন: পার্ণোর পর এবার প্রিয়াঙ্কা সরকার, বড়পর্দা থেকে ফিরছেন ছোটপর্দায় ]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement