৫ আশ্বিন  ১৪২৬  সোমবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: সুব্রতরঞ্জন দত্ত, নামটা পরিচালক হিসেবে একেবারেই পরিচিত নয়। স্বাভাবিক। ঝুলিতে মাত্র ২ টো ছবি। তাতে নেই ঝাঁ চকচকে কাস্টিং। তাই প্রচারের আলোও তার উপর পড়েনি। তবে সম্প্রতি তাঁর জীবনযুদ্ধ এবং ভাগ্যের পরিহাসে টলিউডের পরিচালক থেকে নিরাপত্তারক্ষীতে পরিণত হওয়ার মানবিক কাহিনি জেনে অনেকেই সাহায্য করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন সুব্রতরঞ্জন দত্তকে। আর এই ব্যক্তির সঙ্গেই বিতর্কে জড়ালেন অভিনেতা ঋত্বিক চক্রবর্তী।  

[আরও পড়ুন: পরি পিসির পর ‘ভূত পরী’, নয়া ছবি পরিচালক সৌকর্য ঘোষালের]

ঋত্বিক নিপাট সাদামাটা। টলিউডের কোনও বিতর্কেই তাঁর নাম আজ অবধি শোনা যায়নি। কিন্তু এবার কি এমন হল, যার জেরে একেবারে রেগে গেলেন অভিনেতা? আসলে সম্প্রতি সুব্রতরঞ্জন দত্ত ঋত্বিকের বিরুদ্ধে অভব্যতার আচরণ এনেছিলেন। তাঁর অভিযোগ, দিন কয়েক আগেই তিনি ঋত্বিককে ফোন করে কাজের প্রস্তাব দিয়েছিলেন। তখনই নাকি অভিনেতা তাঁর সঙ্গে অভব্য আচরণ করেছিলেন। সুব্রতরঞ্জনের কথায়, “ঋত্বিক আমার সঙ্গে কাজ করবে না, ঠিক আছে। কিন্তু নামী-অনামী পরিচালক এসব বিভেদ টানায় আমার খারাপ লেগেছে।” যার জেরে ইম্পার ডিরেক্টর অ্যাসোসিয়েশনের কাছে ঋত্বিক চক্রবর্তীর বিরুদ্ধে অভিযোগ জানান তিনি। এমনকী বিষয়টি আর্টিস্ট ফোরাম অবধি চলে গিয়েছে বলে সূত্রের খবর। এপ্রসঙ্গে সংস্থার সেক্রেটারি বিমল দে জানিয়েছেন, ঋত্বিকের বিরুদ্ধে সুব্রতরঞ্জনের অভিযোগ খতিয়ে দেখা হচ্ছে। প্রয়োজনে আর্টিস্ট ফোরামকে বিষয়টি জানানো হবে।

নিরাপত্তারক্ষীর পোশাকে পরিচালক সুব্রতরঞ্জন

সামনে একগুচ্ছ ছবির কাজ। একমাসে মুক্তি পেয়েছে ঋত্বিকের ৬টি ছবি। যার জন্যে অভিনেতা এখন বেজায় ব্যস্ত। তাঁর মাঝেই সুব্রতরঞ্জনবাবুর অভিযোগ প্রসঙ্গে পালটা মুখ খুললেন অভিনেতা। ঋত্বিক চক্রবর্তীর বক্তব্য, “চিত্রনাট্য না শুনে কী করে কারও ছবিতে অভিনয় করার প্রতিশ্রুতি দেব? উনি ফোন করে সরাসরি আমার ডেট চাইছেন। সেদিন খুবই ব্যস্ত ছিলাম আমি। প্রথমে বুঝিনি কে কথা বলছেন ফোনের ওপারে।”

[আরও পড়ুন: রানাঘাটের লতাকণ্ঠী রানু এখন হিমেশ রেশমিয়ার প্লে-ব্যাক গায়িকা]

অভিনেতা জানান, এদিন বারবার সুব্রতরঞ্জন ডেট চাওয়ায়, ঋত্বিক আগামী মাসগুলিতে তাঁর ব্যস্ততার কথা জানান। ফোনের ওপার থেকে ক্রমাগত তিনি ঋত্বিককে নাকি বলতে থাকেন, ‘ও তুমি কাজটা তাহলে করবে না!’ ব্যস্ততার জন্যই নাকি ঋত্বিক সেদিন আর কথা এগোতে পারেননি। কিন্তু তাই বলে যে উনি এভাবে অভিযোগ জানাবেন, এমনটা আশা করেননি অভিনেতা। তিনি আরও বলেন, “উনি ওনার অভিযোগে যে মন্তব্যগুলি আমার মুখে বসিয়েছেন সেগুলো সম্পূর্ণ ভুল। ওই ভাষা আমি ব্যবহার করতে পারি না। আর উনি যেভাবে নানা জায়গায় আমার নামে অভিযোগ করলেন, তারপর তো ওনার সঙ্গে কাজ করার প্রশ্নই ওঠে না।”

নিরাপত্তারক্ষী হওয়ার পর থেকে টলিউডের অনেকের সঙ্গেই যোগাযোগ হয় সুব্রতরঞ্জন দত্তের। সেভাবেই ঋত্বিকের সঙ্গেও আলাপ হয়। সুব্রতরঞ্জনের কথায়, ঋত্বিক কাজ করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন বলেই তিনি চিত্রনাট্য চূড়ান্ত করে তাঁকে ফোন করেন। কিন্তু পরিচালকের প্রতি অভব্য আচরণের অভিযোগ ঋত্বিক পুরোপুরি অস্বীকার করেন।

 

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং