৫ মাঘ  ১৪২৫  রবিবার ২০ জানুয়ারি ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও ফিরে দেখা ২০১৮ ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: রাজ্যসভায় পাশ হল আর্থিকভাবে পিছিয়ে পড়া উচ্চবর্ণদের জন্য ১০ শতাংশ সংরক্ষণ বিল। ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই এই বিলকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টে মামলা করল একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। তাঁদের দাবি, আর্থিক অসংগতি কখনও সংরক্ষণের মাপকাঠি হতে পারে না। শীর্ষ আদালতে আবেদনে করে বলা হয়েছে, এই বিল সংবিধান বিরোধী। উচ্চবর্ণের কোনও সংরক্ষণ থাকতে পারে না। ৫০ শতাংশের বেশি হলে কোনওভাবে সংরক্ষণের আওতায় আনা যায় না।

স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ইউথ ফর ইকিউয়ালিটি ও জনৈক কৌশলকান্ত মিশ্র কেন্দ্রের এই সংরক্ষণ বিলের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে মামলা করেন। প্রথমে লোকসভায় এই বিল পাশ হয়। বুধবার রাতে রাজ্যসভাও এই বিলে অনুমোদন দেয়। উচ্চবর্ণের আর্থিকভাবে দুর্বল মানুষদের চাকরি ও শিক্ষাক্ষেত্রে ১০ শতাংশ সংরক্ষণ দেওয়ার সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানায় সবমহল। বিরোধীদের দাবি, ভোটের আগে এসব কেন্দ্রের রাজনৈতিক অভিসন্ধি। তবে মায়াবতী থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, প্রত্যেকেই নৈতিক সমর্থন করেছেন এই বিলের। বুধবার এই বিল আইনে রূপান্তরিত হওয়ার পর নড়েচড়ে বসে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনগুলো। এদিন এই বিলের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করে এই স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন।

[সততার মাশুল! ‘সঠিক ভাড়া’ আদায় করায় খুন বৃদ্ধ অটোচালক]

বুধবার এই বিল আইনে পরিণত হওয়ার পর আইনমন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ বলেন, “স্লগওভারে ছয় মারছে কেন্দ্র। আরও কয়েকটা ছক্কা দেখা যাবে।” লোকসভায় পাশ হওয়ার পরেও রাজ্যসভায় অনুমোদন পাওয়া যাবে কিনা, তা নিয়ে ধন্দ ছিল। কিন্তু বেশ ভালভাবেই ১৬৫-৭ ভোট পেয়ে এই বিল পাশ হয়ে যায়। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এই বিল পাশ হওয়ার পর বলেন, গর্বিত। এই বিলে সবার সমর্থন দেখে সত্যি খুশি।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং