২৬  শ্রাবণ  ১৪২৯  বুধবার ১৭ আগস্ট ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

চার যুবকের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক দিদির, আপত্তি জানাতেই গণধর্ষণ করে খুন নাবালিকাকে  

Published by: Kishore Ghosh |    Posted: June 30, 2022 10:31 am|    Updated: June 30, 2022 6:48 pm

13-year-old girl gang raped and murdered in Lakhimpur Kheri | Sangbad Pratidin

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ফের ভয়ংকর অপরাধের ঘটনায় সংবাদ শিরোনামে যোগীরাজ্যের লখিমপুর খেরি (Lakhimpur Kheri)। এবার ১৩ বছরের নাবালিকাকে ধর্ষণ করার পর শ্বাসরোধ করে খুনের অভিযোগ উঠল সেখানে। ঘটনায় ৭ জন অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। অভিযুক্তদের অন্যতম নাবালিকার দিদি। সে-ই ছোটবোনকে ধর্ষণ করায় তার ‘বন্ধুদের’ দিয়ে। এমনকী অপরাধস্থলে উপস্থিত ছিল বলেও জানিয়েছে পুলিশ।

ঘটনাটি ঘটে মঙ্গলবার ভোরে। গ্রামের একটি আখ খেতে নাবালিকা শৌচকর্ম করতে গিয়েছিল। সেই সময় পরিকল্পনা করেই তাকে ধর্ষণ করা হয়। খেরি পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, নির্যাতিতার দিদির সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক ছিল রঞ্জিত, অমর, অঙ্কিত ও সন্দীপ নামের চার যুবকের সঙ্গে। যা নিয়ে আপত্তি জানায় নাবালিকা। এই নিয়ে দিদির সঙ্গে নাবালিকার বেশ কয়েকবার ঝামেলাও হয়। এই ‘অপরাধে’ই ‘বন্ধুদের দিয়েই ১৩ বছরের বোনকে ধর্ষণ করায় অভিযুক্ত দিদি। ধর্ষণ করে রঞ্জিত চৌহান, অমর সিং, অঙ্কিত ও সন্দীপ চৌহান। অপরাধের সময় পাহারার দায়িত্বে ছিল দীপু চৌহান ও অর্জুন। এছাড়াও ঘটনাস্থলে ছিল নির্যাতিতার দিদি। পুলিশ আরও জানিয়েছে, নাবালিকাকে খুন করার পরিকল্পনা না থাকলেও অপরাধীদের নির্যাতিতা চিনে ফেলায় তারই ওড়না দিয়ে তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়।

[আরও পড়ুন: উদয়পুর হত্যাকাণ্ড: ধৃত রিয়াজ ISIS স্লিপার সেলের প্রধান! হামলার ছক ছিল জয়পুরেও]

এরপর নাবালিকার দিদি বাড়িতে ফিরে আসে। পরিবারের অন্যরা নাবালিকার খোঁজ করলে সে এই বিষয় কিছু জানে না বলে জানায়। কিন্ত পুলিশ ঘটনার তদন্তে নামতেই পুরো বিষয়টা স্পষ্ট হয়ে যায়। গ্রেপ্তার করা হয় নাবালিকার দিদি-সহ সাতজনকে। ফরেনসিক পরীক্ষার পর মৃত নাবালিকার দেহ ময়নাতদন্তে পাঠানো হয়েছে। পুলিশের যে দল এই ধর্ষণ ও খুনের ঘটনার তদন্ত করছে তাদের জন্য ২০ হাজার টাকা পুরস্কার ঘোষণা করেছেন লখিমপুরের এসপি সঞ্জীব সুমন।

[আরও পড়ুন: চতুর্থ ঢেউ সময়ের অপেক্ষা? বেড়েই চলেছে দেশের দৈনিক করোনা সংক্রমণ, অ্যাকটিভ কেস পেরল ১ লক্ষ]

এসপি (SP) সঞ্জীব সুমান বলেন, “রঞ্জিত, অমর, অঙ্কিত এবং সন্দীপের সঙ্গে ‘সম্পর্ক’ ছিল বড় বোনের। ১৩ বছর বয়সী মেয়েটি এই সম্পর্কের বিরোধিতা করেছিল। সেই কারণেই তাকে ধর্ষণ করে শাস্তি দেওয়ার পরিকল্পনা ছিল অভিযুক্তদের। কিন্ত শেষ পর্যন্ত খুনও করে ফেলে।”

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে