BREAKING NEWS

২ আশ্বিন  ১৪২৭  শনিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত বৃদ্ধির হার মোটে ৬ শতাংশ, আশার কথা শোনাল কেন্দ্র

Published by: Paramita Paul |    Posted: April 25, 2020 9:21 pm|    Updated: April 25, 2020 9:26 pm

An Images

ফাইল ফটো

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: আশার আলো দেখাচ্ছে ভারত। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে আক্রান্তের সংখ্যা মাত্র ৬ শতাংশ বেড়েছে। যা নিসন্দেহে সন্তোষজনক। আবার গত এক সপ্তাহে সুস্থ হওয়ার হারও ছিল এদিকে শনিবার থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য ব়্যাপিড টেস্ট বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে খবর। সংবাদ সংস্থা ANI সূত্রে খবর, কেন্দ্রীয় মন্ত্রীদের বৈঠকে এমনই সিদ্ধান্ত হয়েছে।

কেন্দ্রের স্বাস্থ্যমন্ত্রকের তথ্য অনুযায়ী, শুক্রবার সকাল ৮টা থেকে শনিবার সকাল ৮টা পর্যন্ত হিসেবে দেখা গিয়েছে মাত্র ছয় শতাংশ আক্রান্ত বৃদ্ধি হয়েছে। সূত্রের দাবি, “মার্চের নিরিখে দিনপ্রতি এই সংক্রমণের হার সর্বনিম্ন। গত মাসেই ১০০ ছাড়িয়েছিল সংক্রমণ। দিনের বিচারে বৃদ্ধির হার ছিল উদ্বেগজনক।” শনিবার কেন্দ্রীয় মন্ত্রী পরিষদের একটি বৈঠক হয়েছে।স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষ বর্ধনের নেতৃত্বাধীন ওই বৈঠকে সেখানে বলা হয়, দেশের করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এসেছে। সরকারের পদক্ষেপ প্রশংসনীয়। তাই এখন ব়্যাপিড টেস্ট আপাতত স্থগিত রাখার কথা ভাবছে কেন্দ্র।। জানা গিয়েছে, দিনপ্রতি মৃত্যুর হার ৩.১% আর সুস্থ হওয়ার হার ২০%। এই ধারাও অত্যন্ত আশাব্যঞ্জক। অন্তত বাইরের অন্য দেশগুলোর বিচারে সংক্রমণ-সহ মৃত্যুর হার কমায় সরকারের উদ্বেগ খানিকটা কমেছে বলে দাবি করা হয়ছে। আর তাই কি আপাতত ব়্যাপিড টেস্ট বন্ধ রাখা হল? উঠছে প্রশ্ন।

[আরও পড়ুন : সময়মতো জুটল না অ্যাম্বুল্যান্স, বাইকে হাসপাতাল যাওয়ার পথেই মৃত্যু দু’বছরের শিশুর]

এদিনের বৈঠকে দ্বিগুণ সংক্রমণের হার নিয়েও আলোচনা হয়েছে। জানা গিয়েছে, এখন ৯.১ দিনে দ্বিগুণ হচ্ছে সংক্রমণ। শুক্রবার পর্যন্ত ১০ দিনে দ্বিগুণ হয়েছে সংক্রমণ। লকডাউনের আগে পর্যন্ত ৩.৪ দিনে দ্বিগুণ হয়েছে সংক্রমণ। গ্রাফের এই নিম্নমুখী সূচক আশা দেখাচ্ছে চিকিৎসকদের। জানা গিয়েছে, শনিবার পর্যন্ত একটা সপ্তাহ ধরলে গত ৭ দিনে ২০.৬৬% মানুষ সুস্থ হয়েছে। গত সপ্তাহে এই হার ছিল ৯.৯৯%। কিন্তু এই তথ্যের উপর ভিত্তি করে ব়্যাপিড টেস্ট বন্ধ রাখা কতটা যুক্তিসঙ্গত, তা নিয়ে ইতিমধ্যে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। ওয়াকিবহাল মহলের মতে, ভারতের মতো দেশ ব়্যাপিড টেস্ট বন্ধ রাখা অত্যন্ত ভুল সিদ্ধান্ত। যদিও সূত্রের খবর, টেস্ট কিটের সমস্যা থাকায় এই পরীক্ষা বন্ধ রাখা হচ্ছে। 

[আরও পড়ুন : বিপদে দুস্থদের পাশে দাঁড়াতে ২৫ লক্ষ টাকায় জমি বিক্রি, কমিউনিটি কিচেন খুললেন দুই ভাই]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement