১৩ অগ্রহায়ণ  ১৪২৭  সোমবার ৩০ নভেম্বর ২০২০ 

Advertisement

উত্তরপ্রদেশে ফের অনাচার! সাড়ে পাঁচ বছরের শিশুকে ধর্ষণে অভিযুক্ত ৭ বছরের নাবালক

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: October 20, 2020 8:54 pm|    Updated: October 20, 2020 8:59 pm

An Images

ছবি: প্রতীকী

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: হাথরাসের ঘটনার জের এখনও কাটেনি। তার মাঝেই একাধিক ধর্ষণের ঘটনার অভিযোগ নথিভুক্ত হয়েছে উত্তরপ্রদেশে। এবার মাত্র সাড়ে পাঁচ বছরের শিশুকন্যাকে ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেপ্তার হল ৭ বছরের এক নাবালক। মঙ্গলবার জুভেইনাল আদালতে তোলা হলে অভিযুক্তকে তার বাবা-মায়ের সঙ্গে রাখারই নির্দেশ দেন বিচারক। ঘটনাটি ঘটেছে উত্তরপ্রদেশের আলিগড়ে (Aligarh)। বিষয়টি প্রকাশ্যে আসার পরেই দেশজুড়ে চাঞ্চল্য তৈরি হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, গত ১২ অক্টোবর নিজেদের বাড়ির ছাদে বল নিয়ে খেলছিল সাড়ে পাঁচ বছরের বাচ্চা মেয়েটি। আচমকা বলটি পাশের বাড়ির উঠোনে পড়ে যায়। মেয়েটি সেটি আনতে গেলে ওই বাড়ির একটি সাত বছরের ছেলে তাকে ধর্ষণ করে বলে অভিযোগ। প্রথমে বিষয়টি জানাজানি না হলেও কয়েকদিন পরে মেয়েটির মা স্থানীয় থানায় গিয়ে প্রতিবেশী নাবালকের নামে ধর্ষণের অভিযোগ দায়ের করেন। এরপরই অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করে মঙ্গলবার জুভেইনাল আদালতে তোলা হয়। আর উভয়পক্ষের আইনজীবীর কথা শোনার পর শুনানি শেষ না হওয়া পর্যন্ত নাবালকটিকে তার বাবা-মায়ের কাছে রাখার নির্দেশ দেন বিচারক।

[আরও পড়ুন: লাদাখ থেকে কাশ্মীর পর্যন্ত ১০০ কিলোমিটার টানেল বানাচ্ছে ভারত, চাপে চিন ও পাকিস্তান ]

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, মেয়েটির মায়ের অভিযোগপত্রে অভিযুক্তের বয়সের কোনও উল্লেখ ছিল না। পরে ডাক্তারি পরীক্ষা করে জানা যায় নাবালকটির বয়স ৭ বছর। অভিযুক্তের নামে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩৭৬ নম্বর ধারা ও পসকো আইনে ((POCSO act) মামলা দায়ের করে মঙ্গলবার আদালতে তোলা হয়। ছেলেটির বয়সের কথা চিন্তা করে তাকে বাবা-মায়ের কাছে রাখার অনুমতি দেন বিচারক।

এপ্রসঙ্গে আইনজীবীদের একাংশ জানাচ্ছেন, এক্ষেত্রে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৮৩ নম্বর ধারা অনুযায়ী কিছুটা সুবিধা পাবে অভিযুক্ত। ওই ধারায় বলা হয়েছে, সাত থেকে ১২ বছর বয়সীদের মধ্যে এই ধরনের অপরাধের বিষয়ে কোনও বোধ তৈরি হয়নি। তাই সে যা ঘটিয়েছে তা অচেতন মনেরই কাজ।

[আরও পড়ুন: প্রবল বৃষ্টিতে ভাসছে তেলেঙ্গানা, সরকারি ত্রাণ তহবিলে ২ কোটি টাকা সাহায্য মমতার]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement