BREAKING NEWS

৪ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

প্রধানমন্ত্রীর সংহতির আহ্বানে সাড়া কেরলের মুখ্যমন্ত্রীর! নেভানো হল সরকারি বাসভবনের আলো

Published by: Soumya Mukherjee |    Posted: April 6, 2020 1:51 pm|    Updated: April 7, 2020 1:08 pm

An Images

ফাইল ফটো

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: শুক্রবার সকাল ন’টায় দেশবাসীর উদ্দেশে করোনা পরিস্থিতি নিয়ে ভাষণ দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি (Narendra Modi)। ন’মিনিটের ওই বক্তব্যে তিনি বলেছিলেন, ‘৫ এপ্রিল আপনাদের সকলের কাছ থেকে ৯ মিনিট সময় চেয়ে নিচ্ছি। ওই দিন রাত ৯টায় ৯ মিনিটের জন্য সবাই ঘরের আলো নিভিয়ে রাখুন। তারপর বাড়িতে থেকেই প্রদীপ, মোমবাতি বা টর্চ জ্বালান। তা যদি না হয় তবে মোবাইলের ফ্ল্যাশ লাইট জ্বালান।’ তাঁর উদ্দেশ্য ছিল, করোনার বিরুদ্ধে যুদ্ধে ভারত যে ঐক্যবদ্ধ রয়েছে তা গোটা বিশ্বের সামনে তুলে ধরা। কিন্তু, বিষয়টি নিয়ে প্রবল বিতর্ক দেখা দেয়। অনেকেই এই পরিস্থিতিতে কাজের কাজ না করে প্রধানমন্ত্রী অবৈজ্ঞানিক কথাবার্তা বলছেন বলেও কটাক্ষ করেন।

যদিও রবিবার রাত ৯টা বাজতেই বদলে যায় চিত্রটি। গোটা দেশের প্রায় সব নাগরিকই প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানে সাড়া দিয়ে এই কর্মসূচিতে অংশ নেন। বিভিন্ন ক্ষেত্রের বিশিষ্ট মানুষদের পাশাপাশি বেশিরভাগ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদেরও বাসভবনের আলো নিভিয়ে প্রদীপ জ্বালাতে দেখা যায়। যার মধ্যে সবাই অবাক হয়েছেন কেরলের মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়নের সরকারি বাসভবনের আলো নেভানো হয়েছে শুনে।

[আরও পড়ুন: কাশ্মীরে লকডাউনের মধ্যে সেনা অভিযানে খতম ৯ জঙ্গি, শহিদ পাঁচ জওয়ান ]

 

একটি সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, রবিবার রাত নটায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আহ্বানে সাড়া দিয়ে কেরলের বামপন্থী মুখ্যমন্ত্রীর সরকারি বাসভবনের আলো নেভানো হয়েছিল। এমনকী তাঁর বাসভবনে থাকা কর্মচারীরা প্রদীপের বদলে টর্চও জ্বালিয়েছেন। একই কাজ করেছেন তাঁর মন্ত্রিসভার অন্য সদস্যরাও। এছাড়া রাজ্যজুড়ে প্রচুর সাধারণ মানুষের মতো অনেক খ্রিস্টান যাজককেও চার্চগুলির সামনে মোমবাতি জ্বালিয়ে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গিয়েছে।

[আরও পড়ুন: ভারতে করোনায় মৃতের সংখ্যা ১০০ ছাড়াল, গত ১২ ঘণ্টায় পজিটিভ ৪৯০ জন]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement