BREAKING NEWS

৪ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

জানেন, পাপ মুক্তিতে কোন মন্দিরে মেলে সার্টিফিকেট?

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: May 25, 2016 6:00 pm|    Updated: May 25, 2016 6:58 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: সেই কোনকাল থেকে পাপস্খালনের জন্য মানুষ দেবতার সামনে মাথা নত করেছে৷ কিন্তু তা যে হচ্ছে কী করে বোঝা যাবে? না, এখনও তা জানার অন্তত কোনও উপায় নেই৷ কিন্তু এর মধ্যেই রাজস্থানের এক মন্দির এ ব্যাপারে বেশ ‘প্রফেশনাল’৷ শিক্ষিত কতটা হল সে প্রশ্ন তুলে রেখেও তো পড়াশোনা অন্তে দেওয়া হয় ডিগ্রির সার্টিফিকেট৷ ঠিক একই কায়দায় এ মন্দিরেও দেওয়া হয় পাপ-মুক্তি সার্টিফিকেট৷

রাজস্থানের প্রতাপগড়ের এ মন্দির উপজাতিদের হরিদ্বার নামে খ্যাত৷ গৌতমেশ্বর মহাদেব পাপমোচন তীর্থ আসলে শিবমন্দির৷ বহু ভক্তের সমাগম লেগে থাকে বছরভর৷ তার মধ্যে অন্যতম আকর্ষণ এই পাপ-মুক্তি সার্টিফিকেট পাওয়া৷ মন্দিরের ভিতরের কুণ্ডে স্নান করলে ‘দোষ নির্বাণ’ হয়৷ এরপরেই পুরোহিতরা এই সার্টিফিকেট দেন৷_64815016_certificate

স্বাধীনতার পর থেকেই চলে আসছে এ নিদান৷ দোষ নির্বাণের জন্য পুরোহিতরা নেন ১০ টাকা৷ আর সার্টিফিকেট দেওয়ার জন্য ১ টাকা৷ অর্থাৎ মোট ১১ টাকা প্রণামী দিলেই মিলতে পারে পাপ-মুক্তি সার্টিফিকেট৷ কিন্তু সকলেই এ জিনিস পান না৷  কে পাবেন সে বিচারের ভার থাকে পুরোহিতদের হাতে৷ বছরে একবার মেলা উপলক্ষে বিপুল সংখ্যক মানুষের সমাগম হয়৷ কিন্তু তাঁদের মধ্যে ভাগ্যবান কয়েকজনই পুরোহিতদের দেওয়া সার্টিফিকেট পান৷

মন্দির-প্রণামী সব মিলিয়ে যেন একটা ‘ইন্ডাস্ট্রি’- ভারতের মন্দিরগুলো সম্পর্কে এ কথা বলাই যায়৷ ধর্ম যে বাণিজ্যের একটা উপকরণ হযে দাঁড়িয়েছে তা বিভিন্ন সময় নানা সমালোচনায় উঠে এসেছে৷ সাম্প্রতিক ‘ও মাই গড’ বা ‘পিকে’ সিনেমাতেও দেখা গিয়েছে সে সমালোচনা৷ কিন্তু এই পুরো প্রক্রিয়ার মধ্যে কোথাও নেই এতটুক প্রফেশনালিজমের ছাপ৷ সেই নিরিখে রাজস্থানের এ মন্দির যে দারুণ ব্যতিক্রম সে কথা স্বীকার করতেই হয়৷ তবে পাপ-মুক্তি সার্টিফিকেট পেয়ে গেলেই কি মোক্ষলাভ হল মানুষের? এর তো আর উত্তর নেই৷ কে না জানে, বিশ্বাসে মিলায় বস্তু, তর্কে বহুদূর!

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement