২ কার্তিক  ১৪২৬  রবিবার ২০ অক্টোবর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বিফ স্যুপ খেয়ে ছবি দিয়েছিলেন সোশ্যাল মিডিয়ায়৷ সেটাই কাল হলো তামিলনাডুর নাগাপত্তিনমের এক যুবকের৷ গোমাংস খাওয়ার জেরে ওই যুবকের উপর হামলা চালানোর অভিযোগ উঠল হিন্দু মাক্কাল কাটচি দলের চার সদস্যের বিরুদ্ধে৷ অভিযোগ, মহম্মদ ফৈজান নামে ওই যুবককে লোহার রড এবং ধারাল অস্ত্র দিয়ে আক্রমণ  করে তারা৷ গুরুতর জখম অবস্থায় বর্তমানে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন তিনি৷ অভিযোগের ভিত্তিতে ইতিমধ্যেই চারজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ৷ 

[ আরও পড়ুন: রাস্তার ধারে বসে যোগাসন, বেপরোয়া গাড়িতে পিষ্ট ৬ বৃদ্ধ]

৯জুলাই রেস্তরাঁয় খেতে গিয়েছিলেন তামিলনাড়ুর নাগাপত্তিনমের বাসিন্দা মহম্মদ ফৈজান৷ বিফ তাঁর অত্যন্ত প্রিয়৷ তাই রেস্তরাঁয় বসেও বিফ স্যুপ খেয়েছিলেন তিনি৷ হাতে স্মার্টফোন রয়েছে৷ তাই অবসর যাপনের এই মুহূর্ত ফ্রেমবন্দি করেছিলেন ফৈজান৷ ওইদিনই ছবিটি সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্টও করেন৷ তাঁর এই পোস্টটি নজরে আসে হিন্দু মাক্কাল কাটচি দলের এক সদস্যের৷ নেটদুনিয়ায় ফৈজানের তীব্র সমালোচনা করেন তিনি৷ তা নিয়ে ফৈজানের সঙ্গে বাদানুবাদও হয়৷

ফৈজান ভেবেছিলেন, সমস্যা মিটে গেল৷ কিন্তু আচমকাই তাঁর বাড়িতে চড়াও হয় বেশ কয়েকজন যুবক৷ কিছু বুঝে ওঠার আগেই ফৈজানকে ঘিরে বেধড়ক মারধর করে তারা৷ ধারাল অস্ত্র এবং লোহার রড দিয়ে তাঁর উপর হামলা চালানো হয় বলেও অভিযোগ৷ রক্তাক্ত অবস্থায় বাড়ির সামনে লুটিয়ে পড়েন ফৈজান৷ যন্ত্রণায় ছটফট করতে থাকেন তিনি৷ ঘটনাস্থল ছেড়ে চলে যাওয়ার আগে অবশ্য নিজে মুখে মারধরের কারণ স্পষ্ট করে আগন্তুকরা৷ গোমাংস খাওয়ার ‘অপরাধে’ হামলা বলেই জানিয়েছে ওই যুবকেরা৷ ধারাল অস্ত্র এবং লোহার রড দিয়ে মারে গুরুতর অসুস্থ মহম্মদ ফৈজান৷ হাসপাতালে চিকিৎসা চলছে তাঁর৷

[ আরও পড়ুন: ‘সময়মতো চিকিৎসা হলে বেঁচে যেতেন তবরেজ’, প্রাথমিক রিপোর্টে দাবি তদন্তকারীদের]

মারধরের ঘটনায় পুলিশের দ্বারস্থ হন আক্রান্ত৷ তাঁর অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ দীনেশ কুমার, গণেশ কুমার, মোহন কুমার-সহ মোট চার যুবককে গ্রেপ্তার করেছে৷ তাদের বিরুদ্ধে খুনের চেষ্টার মামলা দায়ের করা হয়েছে৷ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি আমাদের দেশের ঐতিহ্য৷ তা সত্ত্বেও গোমাংস খাওয়ার জেরে মারধরের ঘটনায় বাড়ছে অস্বস্তি৷ অশান্তির এই খবরে উদ্বিগ্ন শুভবুদ্ধিসম্পন্ন ব্যক্তিরা৷

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং