BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  শনিবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

একাধিক ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট রয়েছে? এখনই বন্ধ না করলে বিপদে পড়বেন!

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: March 29, 2017 7:36 am|    Updated: March 29, 2017 7:36 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: আপনার কি একাধিক ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট রয়েছে? খুব একটা কাজে না লাগলেও একের বেশি ব্যাঙ্কে অ্যাকাউন্ট খুলে রেখেছেন? বা অফিস বদলালেও পুরনো অফিসের স্যালারি অ্যাকাউন্ট বন্ধ করেননি? তাহলে এখনই বন্ধ করে দিন আপনার অব্যবহৃত ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট। এমন পরামর্শই দিচ্ছেন ব্যাঙ্কবাজার ডট কমের সিইও অধিল শেট্টি। তা সে আপনি ব্যবসায়ীই হন বা চাকুরীজীবি, একাধিক ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট থাকলে পয়লা এপ্রিল থেকে বেশ কিছু সমস্যা হতে পারে আপনার। কেন এমন কথা বলছেন তিনি? তাহলে জেনে নিন-

[এবার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট ছাড়াও লেনদেন করা যাবে আধারের সাহায্যে]

১. পয়লা এপ্রিল থেকে বেশ কিছু ব্যাঙ্কে ন্যূনতম সঞ্চয়রাশির পরিমাণ বাড়ছে। শহুরে এলাকায় বেশ কিছু ব্যাঙ্কে ন্যূনতম ২৫ হাজার টাকা না রাখলে জরিমানা দিতে হতে পারে। অন্যান্য ব্যাঙ্কগুলির ক্ষেত্রে সাধারণত ৫-১০ হাজার টাকা ন্যূনতম ব্যালেন্স রাখতেই হবে পয়লা এপ্রিল থেকে। সেক্ষেত্রে একাধিক ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট চালু রাখতে আপনাকে এবার থেকে মোটা অঙ্কের টাকা ব্যাঙ্কে রাখতে হবে। তবে জিরো ব্যালেন্স অ্যাকাউন্টের ক্ষেত্রে পুরনো নিয়মই চালু থাকছে।

২. অধিকাংশ সেভিংস অ্যাকাউন্টের পরিষেবাই ফ্রি-তে মেলে না। ডেবিট কার্ড, এসএমএস অ্যালার্ট, এটিএম ব্যবহারের জন্য প্রতি মাসে চার্জ দিতে হয়। কোনও কোনও ক্ষেত্রে প্রতি মাসে সেভিং অ্যাকাউন্টের জন্য ৬০০ টাকা পর্যন্ত খরচ করতে হয়। পয়লা এপ্রিল থেকে অন্য ব্যাঙ্কের এটিএম ব্যবহারের চার্জ-সহ বেশ কিছু চার্জ বাড়ছে। তাই আপনি সচরাচর ব্যবহার করেন না এমন ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দেওয়াটাই বুদ্ধিমানের কাজ হবে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

[এসবিআই ব্যাঙ্কের নয়া নিয়ম, লাগু হচ্ছে ১ এপ্রিল থেকেই]

৩. ব্যাঙ্কে টাকা ফেলে রাখলে মিউচুয়াল ফান্ড, এফডি-র মতো অধিক লাভজনক প্রকল্পে টাকা খাটাতে পারবেন না। ফলে আপনার রিটার্নও কম হবে। একটি সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমের দাবি, এই মুহূর্তে দেশের যা আর্থিক পরিস্থিতি রয়েছে, তাতে বিনিয়োগ না করে ব্যাঙ্কে টাকা ফেলে রাখলে ৩-৪ শতাংশ পর্যন্ত কম রিটার্ন পেতে পারেন।

৪. অধিল শেট্টি জানাচ্ছেন, যে ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টগুলি থেকে নিয়মিত টাকা লেনদেন হয় না, সেই সব ‘নিষ্ক্রিয়’ অ্যাকাউন্টের উপরে নজর রাখে দুষ্কৃতীরা। কালো টাকাকে সাদা করতে সেই সব অ্যাকাউন্ট ব্যবহৃত হতে পারে। নোট বাতিলের পর থেকে এমন বেশ কিছু ‘নিষ্ক্রিয়’ অ্যাকাউন্ট থেকে অবৈধভাবে টাকা লেনদেন হয়েছে। যাঁর নামে অ্যাকাউন্ট, তাঁর কোনও অনুমতি ছাড়াই।

৫. ট্যাক্স জমা দেওয়ার সময় প্রতিটি অ্যাকাউন্ট পিছু আয়ের হিসাব জমা দেওয়ার মতো দীর্ঘ প্রক্রিয়া এড়াতে যে অ্যাকাউন্টগুলি সাধারণত ব্যবহার করেন না, সেগুলি বন্ধ করে দেওয়াই বুদ্ধিমানের কাজ।

[এবার অনলাইনে সব লেনদেনই ফ্রি করছে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement