BREAKING NEWS

৫ মাঘ  ১৪২৮  বুধবার ১৯ জানুয়ারি ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

কচ্ছপদের চ্যালেঞ্জের মুখে মোদি, বারাণসী থেকে আশ্রয় উঠছে জলচরদের

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: April 1, 2019 4:26 pm|    Updated: April 1, 2019 4:27 pm

A turtle sancturay in Varansi,Modi's constituency is going to be closed

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: স্বচ্ছ জলের ছোট কচ্ছপ, বিপদে ফেলতে চলেছে নরেন্দ্র মোদিকে৷ হ্যাঁ, এটাই খাঁটি সত্যি৷ তাঁর কেন্দ্র বারণসীতে কচ্ছপদের আশ্রয়স্থল, যা প্রাণী সংরক্ষণের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্র, তা একেবারে নিঃশব্দে বন্ধ হতে বসেছে৷ আশ্রয়হীন কয়েকশো বিশেষ প্রজাতির কচ্ছপ৷

২০১৪ সালে কেন্দ্রের ক্ষমতায় আসার পর প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি গঙ্গা দূষণ রোধে বেশ কয়েকটি প্রকল্প নিয়েছিলেন৷ যার সূত্র ধরে তৈরি হয়েছিল বারাণসীর এই কচ্ছপ সংরক্ষণ কেন্দ্র৷ ছোট কচ্ছপ, টারটল বললেই যাদের চেহারা সহজে স্পষ্ট হয়, জলদূষণ রোধে সেই প্রাণীর গুরুত্ব অপরিসীম৷ আকারে ছোট হলে কী? স্বচ্ছ জলের এই কচ্ছপ নদীর জল তো বটেই, বিভিন্ন উৎসের জলকেও পরিষ্কার রাখতে সাহায্য করে৷ তাই মূলত গঙ্গাদূষণ রুখতে বারাণসীতে গঙ্গা লাগোয়া ২১০ হেক্টর জমিতে তৈরি হয়েছিল কচ্ছপ সংরক্ষণ কেন্দ্রটি৷ উত্তরপ্রদেশের রামনগর থেকে মালব্য সেতু পর্যন্ত ৭ কিলোমিটার জলপথে অবাধ যাতায়াত প্রকৃতিবন্ধু কচ্ছপদের৷ এই প্রকল্পের আওতায় বারণসী থেকে পশ্চিমবঙ্গের হলদিয়া পর্যন্ত গঙ্গার জল পরিষ্কার রাখার লক্ষ্যমাত্রা নেওয়া হয়৷ তাতে মোট ৮০টি ঘাটের জলে দূষণ সমস্যা থাকবে না৷    

                                                  [ আরও পড়ুন: ক্ষমতায় এলে ২২ লক্ষ চাকরি, প্রতিশ্রুতির বন্যা রাহুলের  ] 

কিন্তু কাশী বন্যপ্রাণ সংরক্ষণ বিভাগের পর্যবেক্ষণ অনুযায়ী, কচ্ছপ সংরক্ষণ কেন্দ্রটি থেকে যতটা উপকার আশা করা হয়েছিল, কোনও কারণে তা পূরণ হচ্ছে না৷ চার বছর ধরে নাকি গঙ্গার জল ততটা পরিষ্কার করা যায়নি৷ তাই সম্প্রতি কাশীর ডিএফও ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে গোপন আলোচনা করে ঠিক করেছে, কচ্ছপ সংরক্ষণ কেন্দ্রটিকে তুলে দেওয়া হবে৷ এই মুহূর্তে মাত্র ১৩টি টারটল রয়েছে এখানে৷ তাদের অন্যত্র পুনর্বাসন নিয়ে অবশ্য এখনও স্থির কোনও সিদ্ধান্ত হয়নি৷ এই খবর ছড়িয়ে পড়তেও বেশি সময় লাগেনি৷ আর তাতেই সমালোচনা শুরু হয়েছে বিভিন্ন মহলে৷ দেশের বন্যপ্রাণ সংরক্ষণ কেন্দ্রের মানচিত্র থেকে বারাণসীর এই কেন্দ্রটিকে অতি সন্তর্পণে, সুপরিকল্পিতভাবে মুছে ফেলা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠছে৷ বন্যপ্রাণ সংরক্ষক, প্রাণীবিদদের অনেকেই নিন্দায় মুখর৷ মনে করা হচ্ছে, এই সিদ্ধান্তের প্রভাব পড়বে আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে৷ ফের বারাণসী কেন্দ্র থেকে লড়বেন নরেন্দ্র মোদি৷ এই ইস্যু ভোটে কতটা প্রভাব ফেলবে, তা নিয়ে জল্পনা তৈরি হচ্ছে৷

turtle2

এর আগে হরিয়ানার প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ভূপিন্দর সিং হুডাও এভাবে তাঁর এলাকার সরস্বতী বন্যপ্রাণ সংরক্ষণ কেন্দ্র তুলে দিতে চাইছিলেন৷ কিন্তু জনমতের চাপে পড়ে তাঁকে সেই সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করতে হয়েছে৷ তবে বারাণসীর ক্ষেত্রে তেমনটা হল না৷    

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে