BREAKING NEWS

১৪ আশ্বিন  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ১ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

পুরুষ সেজে সেলুনে কাজ দুই তরুণীর, বিজ্ঞাপনে ঠাঁই ছকভাঙা নেহা-জ্যোতির

Published by: Sayani Sen |    Posted: May 1, 2019 9:00 pm|    Updated: May 2, 2019 11:25 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: উত্তরপ্রদেশের বানওয়ারি টোলা গ্রামের নেহা এবং জ্যোতির কথা মনে পড়ছে? ভুলে গেলে চলুন আরেকবার মনে করা যাক৷ টাইম মেশিনে চড়ে বছর পাঁচেক আগে ফিরে যাই চলুন৷ নেহা এবং জ্যোতি গরীব পরিবারের দুই মেয়ে৷ তাঁদের বাবার একটি সেলুন ছিল৷ বাবা অসুস্থ হয়ে পড়েন৷ একমাত্র রোজগেরের অসুস্থতায় বদলে গিয়েছিল পরিবারের আর্থিক পরিস্থিতি৷ কিন্তু ঢাল হয়ে দাঁড়ালেন দুই তরুণী৷ ছেলের বেশে তাঁরাই চালাতে শুরু করলেন সেলুন৷ পরিবারের মাথায় ছাতা হয়ে দাঁড়ালেন দু’জনে৷ ছুঁৎমার্গকে দূরে সরিয়ে মহিলাদের স্রোতের বিপরীতে হাঁটার কাহিনি নিয়ে আলোচনা কম হয়নি৷ এই সত্যি কাহিনি অবলম্বনেই তৈরি হল ‘জিলেট’-এর বিজ্ঞাপন৷ যা ইতিমধ্যেই নেটদুনিয়ায় সাড়া জাগিয়েছে৷

[ আরও পড়ুন: ‘স্বল্পবসনা তরুণীদের ধর্ষণ করো’, ক্যামেরার সামনেই কুরুচিকর মন্তব্য মহিলার]

নতুন এই বিজ্ঞাপনের শুরুতেই এক শিশুকে দেখা গিয়েছে৷ যে ছোট থেকে একটা কথা জানে বাবা যা করেন, তা দেখেই নাকি তাঁর সন্তানরা শেখে৷ সেক্ষেত্রে বাবা পুত্রসন্তানের এবং কন্যাসন্তানের পথ প্রদর্শক মা৷ ছেলেরা বাবার পেশায় প্রতিষ্ঠা পেতে পারে৷ কিন্তু মেয়ে সামলাবে ঘর৷ সে রান্না করবে, জল আনবে, সকলের সেবা যত্ন করবে৷ তার জীবন সব সময়েই গণ্ডিতে বাঁধা৷ কিন্তু আচমকাই পরিবর্তন৷ কারণ, সবাই যে সমাজের স্রোতে বইতে পারেন না৷ কেউ কেউ তো স্রোতের বিপরীতে হেঁটেও জয়ী হওয়ার স্বপ্ন দেখেন৷ তেমনই দুই কিশোরী একদিন হাজির হলেন সেলুনে৷ যাঁরা হাত লাগালেন দাড়ি কাটার কাজে৷ লিঙ্গবৈষম্য নয়, পুত্র-কন্যাসন্তান উভয়েই বেড়ে উঠুক নিজের মতো করে৷ এই বার্তাই ফুটিয়ে তোলা হয়েছে বিজ্ঞাপনে৷

[ আরও পড়ুন: বোরখা পরা স্বামীর ছবি পোস্ট, পুরুষতান্ত্রিক সমাজের গালে চড় পাকিস্তানি তরুণীর]

পুরুষতান্ত্রিক সমাজের চিন্তাভাবনাকে পরিবর্তন করা এই বিজ্ঞাপন নেটদুনিয়ায় ভাইরাল হতে বেশি সময় নেয়নি৷ ইতিমধ্যেই হাজার হাজার মানুষ ইউটিউবে ওই বিজ্ঞাপন দেখেছেন৷ সোশ্যাল মিডিয়ায় টাইমলাইনে অনেকেই শেয়ারও করেছেন এই বিজ্ঞাপন৷ তবে এখানেই শেষ নয়৷ ইনস্টাগ্রামে #BarbershopGirls ঝড়ও বইছে৷ অভিনেতা ফারহান আখতার ইতিমধ্যেই ইনস্টাগ্রামে বিজ্ঞাপন শেয়ার করেছেন৷ জ্যোতি এবং নেহাকে কুর্নিশ জানিয়েছেন তিনি৷ স্রোতের বিপরীতে হাঁটার জন্য অভিনেত্রী স্বরা ভাস্করেরও জুড়ি মেলা ভার৷ তিনিও ওই দুই কিশোরীকে নিয়ে তৈরি বিজ্ঞাপন সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করে বানওয়ারি টোলা গ্রামের বাসিন্দাদের ধন্যবাদ জানিয়েছেন৷ সমাজের উলটো পথে হাঁটার জন্য বাঁকা কথা কম শুনতে হয়নি নেহা-জ্যোতিকে৷ কিন্তু বিজ্ঞাপনের সাফল্য যেন প্রমাণ করে দিয়েছে হারতে হারতেও শেষ পর্যন্ত জয়ী অর্ধেক আকাশ৷

দেখুন সেই বিজ্ঞাপন:

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement