BREAKING NEWS

১৫  আষাঢ়  ১৪২৯  বৃহস্পতিবার ৩০ জুন ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

ক্ষমা চেয়েও নিস্তার নেই, তাণ্ডব জাভেদ হাবিবের সালোঁতে

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: September 9, 2017 8:56 am|    Updated: September 9, 2017 8:56 am

Ad row: Jawed Habib salon ransacked in UP

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: মা দুর্গাকে নিয়ে বিতর্কিত বিজ্ঞাপনের জন্য তিনি প্রকাশ্যে ক্ষমা চেয়েছেন। তবুও জাভেদ হাবিবের প্রতি স্বঘোষিত ধর্মরক্ষকদের রাগ এতটুকু পড়েনি। উত্তরপ্রদেশের উন্নাওতে তছনছ করে দেওয়া হল এই হেয়ার স্টাইলিস্টের সালোঁ।

[প্রথম থ্রি-ডি রোবটিক বিলবোর্ড লাগিয়ে তাক লাগাল Coca Cola]

শনিবার সকালে বেশ কয়েকজন উন্নাওয়ের মোতিনগরের ওই সালোঁতে আচমকা ঢুকে পড়ে। সেই সময় ওই সেখানে ছিলেন বেশ কয়েকজন খদ্দের এবং কর্মী। অভিযোগ কিছু বোঝার আগেই শুরু হয় তাণ্ডব। লাঠি, বাঁশ দিয়ে যথেচ্ছভাবে দোকান ভাঙচুর করা হয়। এমনকী জাভেদ হাবিবের ওই ফ্র্যাঞ্চাইজির মালিককে গালিগালাজ করা হয়। অবিলম্বে দোকানে ঝাঁপ ফেলার জন্য শাসানো হয় তাকে। এই ঘটনার কিছু পরে মোতিনগর থানার পুলিশ ওই দোকানে যায়। কর্মী এবং প্রত্যক্ষদর্শীদের সঙ্গে কথা বলে। এর নেপথ্যে যে তাদের ইন্ধন রয়েছে তা বুঝিয়ে দিয়েছে স্থানীয় হিন্দু জাগরণ মঞ্চের কর্মীরা। ওই সংগঠনের কর্মী বিমল দ্বিবেদী জানান, হিন্দু দেব-দেবীকে অসম্মান কোনওভাবে বরদাস্ত করা হবে না। হুমকি সুরে তিনি জানিয়েছেন ওই সালোঁ আর খুলতে দেওয়া হবে না। জাভেদ হাবিবকে ওই সমস্ত বিজ্ঞাপন গুটিয়ে নিতে হবে। এই হুমকির জেরে হিন্দু জাগরণ মঞ্চের কর্মীদের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

[বিজ্ঞাপনে মা দুর্গার ছবি, ক্ষমা চাইলেন হেয়ার স্টাইলিস্ট জাভেদ হাবিব]

কিছুদিন আগে জাভেদ হাবিরের সংস্থার এক বিজ্ঞাপন ঘিরে শোরগোল পড়ে গিয়েছিল। যেখানে দেখা গিয়েছিল মা দুর্গা মর্ত্যে এসে হাবিবের পার্লারে সাজগোজে ব্যস্ত। এমনকী মায়ের সন্তানরও তাদের রূপচর্চা সারছেন ওই সালোঁতে। বিজ্ঞাপনের নিচে লেখা ছিল স্বয়ং ভগবানও হাবিবের সালোঁতে যান। যা নিয়ে বেশ কিছু হিন্দু সংগঠনের সদস্যরা ক্ষোভপ্রকাশ করেছিলেন। হিন্দু ভাবাবাগে আঘাতের অভিযোগ সোশ্যাল মিডিয়ায় ধিক্কৃত হন হাবিব। এমনকী তাঁকে খুনের হুমকিও দেওয়া হয়েছিল। শেষ পর্যন্ত ভিডিও পোস্ট করে এই ঘটনার জন্য ক্ষমা চেয়ে নিয়েছিলেন দেশের প্রথম সারির এই হেয়ার স্টাইলিস্ট। উন্নাওর ঘটনা দেখিয়ে দিল এক পক্ষ থেমে গেলেও অন্য পক্ষ এখনও থামতে শেখেনি।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে