BREAKING NEWS

১২ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

১৮৬টি শিখ বিরোধী দাঙ্গায় ফের তদন্তের নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: January 11, 2018 3:13 am|    Updated: January 11, 2018 3:13 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ১৯৮৪ থেকে এ পর্যন্ত শিখ-বিরোধী যে সব দাঙ্গা ঘটেছে তার মধ্যে ১৮৬টি মামলার নতুন করে তদন্ত করার সিদ্ধান্ত নিল সুপ্রিম কোর্ট। তদন্ত না করেই মামলাগুলি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল। সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্রের নেতৃত্বাধীন এক বেঞ্চ বুধবার জানিয়েছে, এই মামলাগুলির তদন্ত পর্যবেক্ষণ করার জন্য তিন সদস্যের একটি নতুন বিশেষ তদন্তকারী দল (সিট) গঠন করা হবে।

[অন্ধ করেছে পেলেট, দশম শ্রেণিতে দুরন্ত রেজাল্ট করে শিরোনামে এই কাশ্মীরি কন্যা]

বুধবার শীর্ষ আদালত জানিয়েছে, কেন্দ্রের তৈরি সিট শিখ বিরোধী দাঙ্গা সংক্রান্ত যে সব ঘটনার তদন্ত করেনি সেগুলিই নতুন বিশেষ তদন্তকারী দলের কাছে পাঠানো হবে। শীর্ষ আদালতের নজরদারি প্যানেল তার রিপোর্টে জানায়, শিখ বিরোধী ২৪১টি দাঙ্গা মামলার মধ্যে ১৮৬টি কোনও তদন্ত না চালিয়েই বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। হাই কোর্টের অবসরপ্রাপ্ত কোনও বিচারপতির নেতৃত্বে এই সিট গঠন করা হবে। বিচারপতি ছাড়াও একজন কর্মরত পুলিশ আধিকারিক এবং ডিআইজি স্তরের অবসরপ্রাপ্ত একজন অফিসারকে নিয়ে এই সিট গঠন করা হবে।

শিখ দাঙ্গার বিভিন্ন ঘটনা তদন্ত করে দেখার জন্য ২০১৪ সালে সিট গঠন করে কেন্দ্র। মোট ২৯৩টি ঘটনার তদন্তভার দেওয়া হয় সিটকে। ওই সব ঘটনা পুনরায় তদন্ত করে দেখার প্রয়োজন আছে কি না তা খতিয়ে দেখে সিট। সিটের সদস্য হিসাবে সুপ্রিম কোর্টের দুই অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি তাঁদের রিপোর্ট সর্বোচ্চ আদালতে পেশ করেন। এর পরই শীর্ষ আদালত এদিন এক নির্দেশে জানায়, শিখ বিরোধী দাঙ্গার ১৮৬টি ঘটনার তদন্তের জন্য নতুন একটি বিশেষ তদন্তকারী দল গঠন করা হবে।

উল্লেখ্য, ১৯৮৪ সালে শিখ দেহরক্ষীর গুলিতে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর মৃত্যুর পর দেশজুড়ে আক্রমণের মুখে পড়ে শিখ সম্প্রদায়। শিখ বিরোধী সেই দাঙ্গায় প্রায় তিন হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছিল। জখম হয়েছিলেন অনেকেই। শিখ সম্প্রদায়ের বেশ কিছু সম্পত্তিও নষ্ট হয়েছিল। শিখবিরোধী দাঙ্গা সংক্রান্ত ২৪১টি মামলা বন্ধ করে দেওয়ার যে সিদ্ধান্ত সিট নিয়েছিল তা খতিয়ে দেখার জন্য ২০১৭—র ১৬ আগস্ট সর্বোচ্চ আদালতের প্রাক্তন দুই বিচারপতি জে এম পাঞ্চাল ও কে এস পি রাধাকৃষ্ণানকে নিয়ে একটি কমিটি গঠিত হয়। তিন মাসের মধ্যে কমিটিকে তার রিপোর্ট দিতে বলা হয়। এই মামলায় কেন্দ্র আদালতে জানায়, সিটের তদন্ত করা ২৫০টি মামলার মধ্যে ২৪১টির ক্ষেত্রে ক্লোজার রিপোর্ট জমা দেওয়া হয়েছে। ৯টির তদন্ত করছে সিট। ২টির তদন্ত করছে সিবিআই।

[বেজে গেল যুদ্ধের দামামা, আমেরিকার পর ইজরায়েলি মিসাইলের নিশানায় সিরিয়া]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement