BREAKING NEWS

১০ অগ্রহায়ণ  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ২৬ নভেম্বর ২০২০ 

Advertisement

বম্বে হাই কোর্টের রায়কে চ্যালেঞ্জ, এবার শীর্ষ আদালতের দ্বারস্থ হলেন অর্ণব গোস্বামী

Published by: Biswadip Dey |    Posted: November 10, 2020 5:25 pm|    Updated: November 10, 2020 5:25 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্কবম্বে হাই কোর্টের (Bombay High Court) নির্দেশকে চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টের (Supreme Court) দ্বারস্থ হলেন রিপাবলিক টিভির এডিটর-ইন-চিফ অর্ণব গোস্বামী (Arnab Goswami)। গতকালই তাঁর জামিনের আবেদন খারিজ করে দিয়েছিল বম্বে হাই কোর্ট। তারপরই মঙ্গলবার এই পদক্ষেপ করলেন অর্ণব। ২০১৮ সালে আত্মহত্যায় প্ররোচনার মামলায় অর্ণবের করা অন্তর্বর্তী জামিনের আবেদন শনিবার সংরক্ষিত রেখেছিল হাই কোর্ট। সোমবার তা খারিজ করে আদালত অর্ণবকে নির্দেশ দেয় নিম্ন আদালতে জামিনের আবেদন করার জন্য।

আদালতের সেই নির্দেশ মেনে সোমবারই দায়রা আদালতে জামিনের আবেদন করেছেন অর্ণব। এবার সুপ্রিম কোর্টেরও দ্বারস্থ হলেন তিনি। বর্তমানে তিনি রয়েছেন নবি মুম্বইয়ের তালোজা জেলে। তাঁকে আলিবাগে এক মিউনিসিপ্যাল স্কুলের কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে রাখা হয়েছিল। কিন্তু বিচার বিভাগীয় হেফাজতে থাকাকালীন বিনা অনুমতিতে মোবাইল ফোন ব্যবহার করার অভিযোগে শেষপর্যন্ত রবিবার তাঁকে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়।

[আরও পড়ুন: গণনার আগেই রক্তাক্ত বিহার! বিজেপি নেত্রীর স্বামীকে গুলি করে খুন করল দুষ্কৃতীরা]

সোমবার রায়গড় পুলিশের ১০ সদস্যের একটি দল অর্ণব ও অন্য দুই অভিযুক্ত ফিরোজ শেখ ও নীতীশ সারদাকে তিন ঘণ্টা জেরা করে। রায়গড় ক্রাইম ব্রাঞ্চের ইনস্পেক্টর জামিল শেখ একথা জানিয়েছেন। তবে এজন্য পুলিশকে আদালতের অনুমতি নিতে হয়েছে। কেননা আইন অনুযায়ী, কোনও অভিযুক্ত জেল হেফাজতে থাকলে আদালতের অনুমতি ছাড়া তাঁকে জেরা করা যায় না।

গত বুধবার গ্রেপ্তার হয়েছিলেন অর্ণব। তাঁর বিরুদ্ধে ৫ কোটি ৪০ লক্ষ টাকা ঋণ নিয়ে শোধ না করা এবং আত্মহত্যার প্ররোচনার অভিযোগ রয়েছে। তিন অভিযুক্তকেই আগামী ১৮ নভেম্বর পর্যন্ত বিচার বিভাগীয় হেফাজতে রাখার নির্দেশ দিয়েছে আদালত। 

[আরও পড়ুন: বিহারে হারের ইঙ্গিত মিলতেই শুরু ইভিএমকে দোষারোপ! কারচুপির অভিযোগ কংগ্রেস নেতার]

২০১৮ সালে মুম্বইয়ের এক ইন্টেরিয়র ডিজাইনার এবং তাঁর মা আত্মহত্যা করেন। মুম্বই পুলিশের দাবি, তাঁদের সুইসাইড নোটে নাকি বলা হয়েছিল, অর্ণব গোস্বামী ৫ কোটি ৪০ লক্ষ টাকা শোধ না করায় তাঁদের আর্থিক অনটনে পড়তে হয়েছে। অর্ণবের বিরুদ্ধে ঋণখেলাপি এবং আত্মহত্যার প্ররোচনার অভিযোগ দায়ের করেছেন ওই ইন্টেরিয়র ডিজাইনারের ছেলে।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement