BREAKING NEWS

২৮ আশ্বিন  ১৪২৭  শুক্রবার ২৩ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

‘আপনারা আইনের শাসনের কী বোঝেন?’ বাবরি রায় নিয়ে পাক সমালোচনার জবাব ভারতের

Published by: Biswadip Dey |    Posted: October 2, 2020 10:03 am|    Updated: October 2, 2020 4:18 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বাবরি মসজিদ মামলায় (Babri Masjid verdict) অভিযুক্ত ৩২ জনকেই আদালত অব্যাহতি দিয়েছে। যার তীব্র সমালোচনা করেছে পাকিস্তান। এবার পাকিস্তানের (Pakistan) সেই সমালোচনার জবাব দিল ভারত। জানিয়ে দিল, পাকিস্তানের পক্ষে গণতন্ত্র এবং আইনের শাসন বোঝা কঠিন।

গত ৩০ সেপ্টেম্বর বাবরি মসজিদ মামল‌ায় অভিযুক্ত সকলের বেকসুর খালাস পাওয়ার বিষয়টির নিন্দা করেছিল পাকিস্তানের বিদেশ মন্ত্রক। পাশাপাশি কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে দেশের সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের নিরাপত্তার বিষয়টি নিশ্চিত করার আরজিও জানিয়েছিল তারা। বিশেষ করে মুসলিমদের ও তাদের ধর্মীয় উপাসনাস্থলগুলিকে নিরাপত্তা প্রদানের দাবি জানিয়েছিল প্রতিবেশী দেশ।

[আরও পড়ুন: আরও একদফা সামরিক বৈঠকে রাজি ভারত-চিন, সীমান্তে এখনও অধরা রফাসূত্র]

পাকিস্তানের এহেন সমালোচনার জবাব দিয়েছে ভারত। বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র অনুরাগ শ্রীবাস্তব এক অনলাইন প্রশ্নোত্তরের অনুষ্ঠানে পাকিস্তানের প্রতিক্রিয়ার উত্তরে বলেন, ‘‘ভারতে গণতন্ত্র অত্যন্ত পরিণত। এখানে সরকার ও নাগরিকরা আদালতের অনুশাসন মেনে চলে এবং আইনকে সম্মান করে।’’ তিনি আরও বলেন, ‘‘যে দেশে দমনমূলক শাসনব্যবস্থা রয়েছে এবং যেখানে মানুষ ও আদালতকে প্রশাসনের ইচ্ছায় নীরব করে রাখা হয়, তাদের পক্ষে এমন গণতান্ত্রিক নীতি বোঝা কঠিন।’’

[আরও পড়ুন: লাদাখ সীমান্তে মোতায়েন ‘নির্ভয়’, লালফৌজের উপর অগ্নিবর্ষণ করবে এই ক্ষেপণাস্ত্র]

বাবরি মসজিদ ভাঙার প্রায় ২৮ বছর পরে লখনউয়ের বিশেষ সিবিআই আদালত বিজেপি নেতা লালকৃষ্ণ আডবানী, মুরলী মনোহর যোশি, উমা ভারতী-সহ মোট ৩২ জন অভিযুক্তকে অব্যাহতি দিয়েছে। গত বুধবার ২ হাজার ৩০০ পাতার রায় দেন সিবিআই আদালতের বিচারক সুরেন্দ্রকুমার যাদব।

বিচারকের রায় অনুযায়ী, ১৯৯২ সালের ৬ ডিসেম্বরের ঘটনার পিছনে কোনও ষড়যন্ত্র বা পূর্ব পরিকল্পনা ছিল না। পুরোটাই ছিল আকস্মিক, স্বতস্ফূর্ত জনরোষের ফল। এই মামলায় মোট অভিযুক্তের সংখ্যা ছিল ৪৯। তাঁদের মধ্যে ১৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। বাকি ৩২ জনকে অব্যাহতি দিয়েছে আদালত। ঘটনার দিন তাঁদের ভূমিকায় কোনও অপরাধ ছিল না বলে জানিয়েছে আদালত। বরং তাঁরা ভাঙচুর আটকানোর চেষ্টাই করেছিলেন বলে জানানো হয়েছে রায়ে।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement