৯ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

বাগদেবীর আরাধনা ছুতো, কলেজেই বসল অশ্লীল নাচের আসর

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: January 24, 2018 5:51 am|    Updated: January 24, 2018 5:52 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বাগদেবীর আরাধনাকে ঢাল করেই কলেজে চলল তুমুল বেলেল্লাপনা। অশ্লীল নাচগান। কলেজ চত্বরের মধ্যেই বাঁধা মঞ্চে রীতিমতো বারের আবহ এনে নাচলেন স্বল্পবসনা নর্তকীরা। আর তাদের সঙ্গতে দেখা গেল ছাত্রদের। কলেজ না কোনও ভোজপুরী মৌতাতের আসর, এক লহমায় দেখে ফারাক করা মুশকিল। কিন্তু এটাই বাস্তব। আর সে ছবি ও ভিডিও ছড়িয়ে পড়তেই চক্ষু চড়কগাছ দেশবাসীর।

[ নানা রকমের কয়েন কি আদৌ নেবেন? কী জানাল আরবিআই? ]

সরস্বতী পুজো উপলক্ষে স্কুল ও কলেজে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। দীর্ঘদিনের প্রথা। মূলত পড়ুয়ারাই সেখানে অংশগ্রহণ করে। সরস্বতী পুজো তো শুধু ধর্মীয় অনুষ্ঠান নয়। শিক্ষা ও সংস্কৃতির দেবী তিনি। সুতরাং এই ধরনের অনুষ্ঠানের রেওয়াজ আছে গোটা দেশেই। কিন্তু তা যে অশ্লীললতায় পর্যবসিত হবে তা বোধহয় কেউ কল্পনাও করতে পারেননি। পাটনার অন্যতম সেরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বিএন কলেজ। সেখানেই উঠে এল এই বিসদৃশ ছবি। সরস্বতী পুজোকে কেন্দ্র করে রীতিমতো বার হয়ে উঠল কলেজের মঞ্চ। মঞ্চ মাতালেন বার গার্লরা। আর তাঁদের ঠুমকায় তাল দিতে দেখা গেল কিছু কিছু পড়ুয়াদের। সামনে বেশ কিছু পড়ুয়া বসে তা উপভোগও করলেন। জানা যাচ্ছে, কলেজ পড়ুয়াদের একাংশ দেবী জাগরণ-এর জন্য কর্তৃপক্ষের থেকে অনুমতি চান। তা দিয়েও দেওয়া হয়। এরপরই তা ছাত্রদের নিয়ন্ত্রণে চলে যায়। যা আদতে বার গার্লদের নিয়ে নাচগানের আসরে পরিণত হয়। জানা যাচ্ছে, প্রচণ্ড জোরে হিন্দি ও ভোজপুরি গান চালিয়ে চলে নাচ ও গান। এমনকী ঘটনাস্থলে পুলিশ উপস্থিত থাকলেও, তাঁরা কোনও প্রতিবাদ করেননি।

[ রাজনৈতিক দলকে নগদে ২০০০ টাকার বেশি চাঁদা নয়, কড়া নির্দেশ আয়কর দপ্তরের ]

এই ঘটনার ভিডিও ও ছবি ছড়িয়ে পড়তেই নড়েচড়ে বসে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। পাটনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর নিজে ওই কলেজে যান। প্রিন্সিপালকে পুরো ঘটনার তদন্তের নির্দেশ দেন। যে ছাত্ররা এ ধরনের কাণ্ড বাধিয়েছেন তাঁদের দোষ প্রমাণিত হলে কঠোর শাস্তি হবে বলেও জানানো হয়েছে। বারবার শিক্ষা নিয়ে মুখ পোড়ে বিহারের। টপার কেলেঙ্কারি থেকে গণ টোকাটুকিতে বারাবর কলুষিত হয়েছে বিহার। এবার সামনে এল আরও এক নমুনা। পড়ুয়ারা নিজেদের কাজেই কলেজের সম্মান ধুলোয় মেশালেন। সরস্বতী পুজোর দিনেই সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের নামে কী করে পড়ুয়ারা এ ধরনের বেলেল্লাপনায় মেতে উঠতে পারে, গোটা দেশের কাছেই তা বড় প্রশ্ন।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement