BREAKING NEWS

১২ আশ্বিন  ১৪২৭  মঙ্গলবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

মিমি-নুসরতের পোশাক নিয়ে খোঁচা, সোশ্যাল মিডিয়ায় সমালোচিত সাংবাদিক

Published by: Sayani Sen |    Posted: June 2, 2019 12:06 pm|    Updated: June 2, 2019 12:06 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: রাজনীতির আঙিনায় পা রাখার শুরু থেকেই তাঁদের নিয়ে আলোচনার শেষ নেই৷ কখনও গ্লাভস বিতর্ক, তো আবার কখনও বদমেজাজি অভিযোগের সঙ্গে নাম জুড়েছে মিমির৷ নুসরতকেও নানা ইস্যুতেই আক্রমণ করেছেন বিরোধীরা৷ রাজনীতিতে এক্কেবারে আনকোরা৷ কিন্তু সেই নব্য রাজনীতিকদের কাছে পর্যুদস্ত হতে হয়েছে তুলনায় অভিজ্ঞ নেতাদের৷ এখন তাঁরা সাংসদ হিসাবেই পরিচিত৷ সংসদে পা রাখার প্রথমদিনে মেরুন রঙের ফর্মাল পোশাকে দেখা গিয়েছিল নুসরতকে৷ সাদা শার্ট, নীল জিনস এবং স্নিকার্স পরেছিলেন মিমি৷ হাসি হাসি মুখে তোলা সেদিনের ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্টও করেন দুই তরুণী সাংসদ৷ তাতেই বয়ে গিয়েছে সমালোচনার ঝড়৷ এই ইস্যুতে টুইট করে পালটা বিতর্কে জড়িয়ে পড়লেন বিবিসির প্রাক্তন সাংবাদিক তুফেল আহমেদ৷ 

[ আরও পড়ুন: ঘোমটা নয়! স্যুট পরা মহিলার ছবিই এখন ‘ফিট ফর রেল’]

সম্প্রতি টুইটারে মিমি-নুসরতের সংসদের সামনে দাঁড়ানো ছবি টুইটারে পোস্ট করেন সাংবাদিক৷ সঙ্গে লেখেন, ‘‘ভারত থেকে ক্রমশ হারিয়ে যাচ্ছে শাড়ি৷ আমাদের আগামী প্রজন্ম এরপর শুধুমাত্র বিয়ের অনুষ্ঠানেই শাড়ি পরবে৷’’ সাংবাদিকের এই টুইট ভাইরাল হয়ে গিয়েছে নিমেষেই৷ একজন শিক্ষিত ব্যক্তি কীভাবে কোনও মহিলার পোশাক নিয়ে মন্তব্য করতে পারেন, সেই প্রশ্ন তোলেন টুইটার ব্যবহারকারী অপর্ণা জৈন৷ তিনি লেখেন, ‘‘আমি বুঝতে পারছি না কেন সকলে মহিলাদের পোশাক নিয়ে প্রশ্ন করেন৷ দুজন তরুণী সাংসদের কাজ নিয়ে ভাবনাচিন্তা করেন না তাঁরা৷’’ তবে সাংবাদিক দমে যাওয়ার পাত্র নন৷ তাঁর বিরুদ্ধে যতই সমালোচনার ঝড় উঠুক না কেন, আত্মপক্ষ সমর্থন করে বারবার টুইট করে গিয়েছেন তিনি৷ অপর্ণার পালটা টুইটে সাংবাদিক লেখেন, ‘‘শাড়ি মহিলাদের কাছে পায়ের বেড়ির মতো হয়ে দাঁড়িয়েছে৷ পাশ্চাত্যের দেশগুলির প্রতি আমাদের কৃতজ্ঞ থাকা উচিত৷ ওই দেশগুলির জন্যই মহিলারা জিনসের কথা জানতে পেরেছেন৷’’

[ আরও পড়ুন: অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত বাধ্যতামূলক হিন্দি! কেন্দ্রের শিক্ষানীতির খসড়া নিয়ে বিতর্ক]

আত্মপক্ষ সমর্থনই যে সাংবাদিকের কাল হয়ে দাঁড়াবে তা বোধহয় আগে ভাবেননি৷ তাঁর দ্বিতীয় টুইটের পর আক্রমণের ঝাঁজ আরও বেড়েছে৷ মিমি-নুসরতের পাশে দাঁড়িয়ে নেটিজেনদের একাংশের দাবি, ‘‘সংসদে কোন পোশাকে যেতে হবে, তা নির্দিষ্ট করে উল্লেখ করা নেই৷ তাই মিমি-নুসরত আধুনিক পোশাকে সেখানে যেতেই পারেন৷’’ আবার কারও কারও দাবি, ‘‘একসময় পুরুষেরাও ধুতি-পাঞ্জাবিতে অভ্যস্ত ছিলেন৷ কিন্তু বর্তমানে তাঁরাও আধুনিক পোশাক পরেন৷ তাহলে মহিলারাই বা সারাজীবন শাড়ি পরবেন কেন?’’ তুমুল সমালোচনার মাঝে যদিও আর মুখ খোলেননি ওই সাংবাদিক৷ যদিও নিন্দুকদের সমালোচনায় মাথা ঘামাতে নারাজ তৃণমূলের দুই তারকা সাংসদও৷

 

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement