BREAKING NEWS

২৮ আশ্বিন  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ২২ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

রাজ্যসভায় তৃণমূল সাংসদের ‘অভব্যতা’র নিন্দা রাজনাথের, ‘রুল বুক ছিঁড়িনি’, দাবি ডেরেকের

Published by: Paramita Paul |    Posted: September 20, 2020 9:33 pm|    Updated: September 20, 2020 10:25 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: কৃষি বিল ও রাজ্যসভায় বিরোধীদের প্রতিবাদ ঘিরে রবিবার দিনভর উত্তাল রইল জাতীয় রাজনীতি। দিনের শেষে ছয় কেন্দ্রীয় মন্ত্রী রীতিমতো সাংবাদিক বৈঠক করে কৃষি বিলের পক্ষে সওয়াল করলেন। তীব্র নিন্দা করলেন তৃণমূল সাংসদ ডেরেক ও’ব্রায়েনের (Derek O’Brien) আচরণের। যদিও তৃণমূল সাংসদের দাবি, তিনি মোটেই রুল বুক ছেঁড়েননি। তাঁর কাছে সেই প্রমাণও রয়েছে।

এদিন সাংবাদিক বৈঠকে তৃণমূল সাংসদ ডেরেক ও’ব্রায়েনের আচরণের তীব্র সমালোচনা করেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং (Rajnath Singh)। বলেন, “ওয়েলে নেমে রাজ্যসভার ডেপুটি চেয়ারম্যানের সামনে পৌঁছে রুল বুকের (Rule Book) পাতা ছেঁড়া অত্যন্ত নিন্দনীয়।” প্রতিরক্ষামন্ত্রী এদিন আরও বলেন, “লোকসভা বা রাজ্যসভা কোথাও বিরোধীদের এমন আচরণ আগে দেখিনি। এটি সংসদীয় শিষ্টতার পরিপন্থী। এতে সংসদের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ হয়েছে। বিষয়টি অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক ও লজ্জাজনক। ” একইসঙ্গে সাংবাদিক বৈঠক থেকে তিনি কৃষি বিলের ইতিবাচক দিকগুলি তুলে ধরেন। প্রতিরক্ষামন্ত্রীর দাবি, এই বিলের সুবাদে কৃষকরা দেশের যে কোনও স্থানে নিজেদের উৎপন্ন ফসল বেচতে সমর্থ হবেন। কিন্তু গুজব ছড়িয়ে কৃষকদের বিভ্রান্ত করার চেষ্টা চলেছে। একইসঙ্গে চাষিরা এমএসপি পাবেন বলেও আশ্বাস দেন রাজনাথ। তবে একা রাজনাথ নন, টুইট করে ডেরেককে তীব্র আক্রমণ করেছেন আরেক কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়ও।

[আরও পড়ুন : নিয়ম বিরুদ্ধ কাজ! রাজ্যসভার ডেপুটি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব আনল বিরোধীরা]

এদিকে তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছেন তৃণমূল সাংসদ। তাঁর সাফ কথা, “রুল বুক আমি ছিঁড়িনি। এই ধরনের মিথ্যে সাজানো ঘটনা ছড়াবেন না। বের করে দেওয়ার আগে পর্যন্ত আমাদের কাছে সব ছবি আছে। যথা সময় প্রমাণ দেব।” ডেরেকের দাবি, “আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণ করতে পারলে, আমি সাংসদ পদ থেকে ইস্তফা দেব।” অন্যদিকে বিল নিয়েও তীব্র অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন তৃণমূল সাংসদ। তিনি ভিডিওতে বলেন, “ভোটাভুটি চেয়েছেন বিরোধীরা। কিন্তু বিজেপির প্রয়োজনীয় সংখ্যা না থাকায় তা করেনি। বিজেপি বলছে, এটা ঐতিহাসিক দিন। কিন্তু সংসদীয় গণতন্ত্রে এটা দুঃখের দিন”।

[আরও পড়ুন : ‘কৃষি বিল চাষিদের মৃত্যু পরোয়ানা’ কটাক্ষ বিরোধীদের, ‘যুগান্তকারী পদক্ষেপে’র প্রশংসায় মোদি]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement